ভারতে আংশিক সার্ভার মেরামত বেনাপোল বন্দরে আমদানি-রপ্তানি ধীরগতিতে শুরু

প্রকাশিত: ১২:৫২ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ৫, ২০১৯ | আপডেট: ১২:৫২:পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ৫, ২০১৯

বেনাপোল স্থল বন্দর দুই দিন বন্ধ থাকার পর
বেনাপোল-পেট্রাপোল দিয়ে আমদানি-রফতানি কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

সোমবার দুপুরের পর থেকে বিশেষ ব্যবস্থায় আংশিক কার্যক্রম শুরু হয়। সূত্র জানায়,মূলত ভারতের দিল্লী কাস্টমস থেকে যে সব পণ্যবাহী ট্রাকের ছাড়পত্র দেওয়া আছে সে সব ট্রাক বাংলাদেশে প্রবেশে অনুমতি দেওয়া হয়েছে। সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত প্রায় ৫০টি ট্রাক পণ্য নিয়ে বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ করেছে। কোলকাতার কোন ট্রাক বন্দরে প্রবেশ করেনি।

সিএন্ডএফ এজেন্ট সূত্রে জানা যায়,বেনাপোলের বিপরীতে ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে ইন্টারনেট সার্ভার ও প্রিন্টার জটিলতায় শনিবার সকাল থেকে দু‘দেশের মধ্যে আমদানি-রফতানি বন্ধ হয়ে যায়। রোববার বিশেষ ব্যবস্থায় বাংলাদেশি ৩৫টি রফতানি ট্রাক পেট্রাপোল বন্দরে গেলেও সেদিক থেকে কোন ট্রাক বেনাপোল বন্দরে আসেনি। ওপারে নানা চেষ্টার পরও প্রিন্টার ঠিক হয়নি।

ফলে বৈধ কাগজপত্রেরঅভাবে স্থানীয় কোন ট্রাক পণ্য নিয়ে বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ করতে পারছে না। দিল্লী কাস্টমস থেকে ছাড়কৃত ট্রাকগুলোকে পেট্রাপোল কাস্টমস কর্তৃপক্ষ বিশেষ ব্যবস্থায় বেনাপোলে প্রবেশের অনুমতি দিচ্ছে। ২/১ দিনের মধ্যে এ সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে বলে তারা জানান।

বেনাপোল স্থলবন্দরের আমদানি-রফতানিকারক সমিতির সহ-সভাপতি আমিনুল হক বলেন,’পেট্রাপোল বন্দরে শিল্পকারখানায় ব্যবহৃত কাঁচামাল,খাদ্যদ্রব্য ও পচনশীল পণ্যের শত শত ট্রাক পড়ে আছে। দ্রুত বাণিজ্য সচল না হলে ব্যবসায়ীরা লোকসানের মুখে পড়বেন। ‘বেনাপোল চেকপোস্ট কাস্টমস কার্গো শাখার রাজস্ব কর্মকর্তা রাশেদুল হক বলেন,’রোববার থেকে সোমবার সকাল ১০টা পর্যন্ত বাংলাদেশের ১৮২টি ট্রাক পণ্য নিয়ে ভারতে গেছে। আর ভারত থেকে বিশেষ ব্যবস্থায় ৫০টি ট্রাক পণ্য নিয়ে বেনাপোল বন্দরে এসেছে। প্রিন্টার বিকল থাকায় পেট্রাপোল কাস্টমস প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দিতে পারেনি। এ কারণে বাংলাদেশী ট্রাকগুলো পণ্য খালাস করে বাংলাদেশে ফিরতে পারছে না। ‘

ভারতের পেট্রাপোল ক্লিয়ারিং এজেন্ট স্টাফ ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক কার্তিক চক্রবর্তী বলেন,’পেট্রাপোল বন্দরে আগে হাতে কলমে কাজ করা হতো। এখন বন্দরে অটোমেশন প্রক্রিয়া চালু হওয়ায় ওই কাজ অনলাইনে করা হয়। পেট্রাপোল বন্দরে কেন্দ্রীয় (দিল্লী) সার্ভারের সঙ্গে যুক্ত প্রিন্টার কাজ করছে না।

বেনাপোল স্থলবন্দরের উপ-পরিচালক (ট্রাফিক) মামুন কবীর তরফদার বলেন,’শনিবার সকাল থেকে সোমবার সকাল পর্যন্ত এ পথে আমদানি বন্ধ রয়েছে। তবে বাংলাদেশ থেকে রফতানি পণ্যের চালান পেট্রাপোলে গ্রহণ করা হচ্ছে। সোমবার দুপুরের পর থেকে থেমে থেমে বিশেষ ব্যবস্থায় প্রায় ৫০টি পণ্যবাহী ট্রাক বেনাপোল বন্দরে এসেছে। ‘যার কারনে কাগজপত্রের জটিলতায় পণ্য খালাস ও বাংলাদেশে পণ্য রফতানি সংক্রান্ত সব কাজ বন্ধ রয়েছে। বিশেষ ব্যবস্থায় সোমবার দুপুরের পর থেকে ভারতীয় কাস্টমস কিছু কিছু পণ্যবাহী ট্রাক উভয়দেশে প্রবেশের অনুমতি দিয়েছে।