কারো প্রতি অভিযোগ নেই উৎপলের পরিবারের

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৭:৫৮ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ২০, ২০১৭ | আপডেট: ৭:৫৮:পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ২০, ২০১৭
কারো প্রতি অভিযোগ নেই উৎপলের পরিবারের

কে বা কারা তাদের উৎপলকে ধরে নিয়েছিল তা নিয়ে এখন আর কোন অভিযোগ নেই তার পরিবারের। ২ মাস ১০ দিন পর পরিবারের ‘ধন’ কে ‍ফিরে পেয়েছেন এতেই তারা খুশি।

সাংবাদিকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে উৎপলের বাবা-মা বলেন, আপনাদের সবাইকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। আপনারা আমার ছেলেকে ফিরিয়ে আনতে অনেক আন্দোলন করেছেন। এজন্য পরিবারের পক্ষ থেকে আমরা কৃতজ্ঞ।

মায়ের কোলে ফিরে অনেকটা নির্ভয় আর স্বস্তিতে রয়েছে অনলাইন নিউজ পোর্টাল পূর্বপশ্চিমবিডি ডট নিউজের জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক উৎপল দাস।

তিনি বলেন, আমাকে অপহরণ করা হয়েছিলো। তারা ভেবেছিলো আমার কাছে অনেক টাকা আছে। এজন্য আমাকে বারবার চাপও দেয়া হচ্ছিল। এমনকি আমার মোবাইল ফোনও কেড়ে নেয়া হয়। এরপর কি হয়েছে আমি জানিনা। তবে এখন আমি ভালো আছি, সুস্থ্য আছি। এর বেশি কিছু বলতে চাইনা।

বুধবার দিবাগত রাতে বাবা-মা-স্বজনরা ভুলতা পুলিশ ফাঁড়িতে এসে উৎপলকে গ্রামের বাড়িতে নিয়ে যায়। পুলিশ ফাঁড়ি অতিক্রমকালে তার বোন বলেন, আমাদের কারো প্রতি কোন অভিযোগ নেই। ভাইকে ফিরে পেয়েছি এটাই বড় কথা।

উৎপলের মা বলেন, এই অনুভূতি বলে বোঝানোর নয়। সন্তানকে ফিরে পেয়েছি, এর চেয়ে আনন্দের কি আর হতে পারে।

কিভাবে উৎপলকে নারায়ণগঞ্জে নিয়ে আসা হলো, সে বর্ণনা দিলেন তিনি নিজেই।

বললেন, ‘যারা আমাকে ধরে নিয়েছিল তারা আমার মোবাইল নিয়ে যায়। এরপর কি হয়েছে আমি জানি না। তারা কি করেছে জানি না। তারা আমার কাছে টাকা চাইতো। আমার কাছে মোবাইল ছিল না। তারা কি করেছে আমি জানি না। আজ আমাকে চোখ বেঁধে মাইক্রোবাসে করে এখানে নিয়ে আসে। চোখ খুলে দেওয়ার পর আমি বুঝতে পারি এটা নারায়ণগঞ্জের ভুলতা।’

ভুলতা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ শহিদুল ইসলাম বলেন, উৎপল তাকে জানিয়েছেন, ভুলতার আদুরিয়া এলাকার শাহজালাল ফিলিং স্টেশনের কাছে একটি মাইক্রোবাস থেকে কে বা কারা তাকে ফেলে যায়। তাকে ঢাকা থেকে এখানে নিয়ে আসা হয়। তিনি আর কিছু বলেননি। তিনি ভুলতা ফাঁড়িতে পুলিশ হেফাজতে রয়েছেন।

পূর্ব পশ্চিম বিডির প্রধান সম্পাদক পীর হাবিবুর রহমান বলেন, বুক থেকে পাথর নেমে গেছে। উৎপল নারায়ণগঞ্জে আছে। বেশ কিছুক্ষণ তার সঙ্গে কথা হয়েছে। উৎপল দাসের মার সাথেও কথা হয়েছে। পরশু অফিসে যোগ দিবে। সে উৎফুল্ল। বলেছে তার শরীর ভালো আছে।

গত ১০ অক্টোবর মতিঝিলে নিজ কর্মস্থল পূর্ব-পশ্চিমের অফিস থেকে বের হওয়ার পর নিখোঁজ হন উৎপল দাস। এ ঘটনায় ২২ ও ২৩ অক্টোবর পরিবার ও প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে মতিঝিল থানায় পৃথক দুটি জিডি করা হয়। সহকর্মীসহ বিভিন্ন সাংবাদিক সংগঠন উৎপলের সন্ধান দাবিতে টানা আন্দোলন চালিয়েছেন।

  • আমাদের সময়