ঝালকাঠি পৌর কর্মচারির বিরুদ্ধে যৌতুক মামলায় গ্রেফতারী পরোয়ানা

প্রকাশিত: ৭:৫১ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৫, ২০১৯ | আপডেট: ৭:৫১:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৫, ২০১৯

ঝালকাঠিতে যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে মারধরের অভিযোগে পৌরসভার সহকারী কর আদায়কারী মোঃ হাসান ইমাম পলাশ’র বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হয়েছে। বুধবার পলাশের স্ত্রী মোসাঃ শারমিন ফেরদৌস বাদী হয়ে ঝালকাঠি সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে এ মামলা দায়ের করেন। আদালতে অভিযোগ উপস্থাপনা করলে আদালত তা আমলে নিয়ে আসামীর বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা জারী করেন। গ্রেফতারী পরোয়ানার জারীর সংবাদ পেয়ে আত্মগোপন করেছেন পলাশ ।
মামলা সূত্রে জানাগেছে, ২০১২ সালে ইসলামী শরিয়াহ অনুযায়ী ৩ লাখ টাকা দেন মোহর ধার্য্যে পলাশ-শারমিনের বিবাহ সম্পন্ন হয়। বিবাহকালীন সময়ে দেড়শ বর যাত্রীর আপ্যায়ন, ২০ ভরি স্বর্ণ ও অন্যান্য মালামাল উপহার হিসেবে আনুষ্ঠানিকভাবে তুলে দেন কন্যার পিতা মোঃ আক্কাস আলী খান। দাম্পত্য জীবনে একটি পুত্র সন্তানের জন্ম নিলে তার নাম রাখা হয় সালমান, তার বর্তমান বয়স ৫ বছর। ঝালকাঠি পৌরসভার সহকারী কর আদায়কারীর পদে অনেক কষ্ট ও খরচ করে চাকুরীর ব্যাবস্থা করে দেন কন্যার বাবা। এতেও পলাশ খুশি হতে না পেরে প্রায়ই তার স্ত্রীকে মারধর করতেন। পাশাপাশি বিভিন্ন মেয়েদের সাথে পরকিয়ায় আসক্ত হয়ে পড়েন। শারমিনের বাবার কাছ থেকে আরো ১০লাখ টাকা যৌতুক বাবদ এনে দিতে চাপ সৃষ্টি করে। টাকা না দিলে পরকিয়ায় আসক্তদের যে কোন একজনকে মোটা অংকের যৌতুক নিয়ে বিবাহ করবেন বলে জানান পলাশ। টাকা দিতে অস্বীকৃতি জানালে আমাকে পিত্রালয়ে পাঠিয়ে দিয়ে সে গ্রামের বাড়িতে অবস্থান নেয়। গত ১১ অক্টোবর তার গ্রামের বাড়িতে গিয়ে সাাত করে বিনা যৌতুকে গ্রহণের অনুরোধ জানালে সে আমাকে সন্তান সহ ফিরিয়ে দিয়ে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। আদালতে বাদী পে মামলাটি পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট জাহাঙ্গির কবীর।