মুলাদীতে জমি বিরোধের জেরধরে শিক্ষিকাকে পিটিয়ে আহত ॥ শিক্ষক নেতাদের নিন্দা

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৮:২৩ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২১, ২০১৯ | আপডেট: ৮:২৩:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২১, ২০১৯

মুলাদী প্রতিনিধি ॥

মুলাদীতে জমি বিরোধের জেরধরে এক শিক্ষিকাকে পিটিয়ে আহত করেছে প্রতিপক্ষরা। গত ১৭ অক্টোবর বিকাল সাড়ে ৩টার দিকে উপজেলার বাটামারা ইউনিয়নের সেলিমপুর গ্রামের মৃত জয়নাল আবেদীন মুন্সীর ছেলে শহীদুল মুন্সীর নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী হামলা চালিয়ে একই বাড়ির মোনাব্বার মিয়ার স্ত্রী দক্ষিণ সেলিমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আরজু বেগমকে পিটিয়ে মারাতœক আহত করে। এঘটনায় স্কুল শিক্ষিকার স্বামী মোনাব্বার হোসেন বাদী হয়ে মুলাদী থানায় মামলা দায়ের করেছেন।

মোনাব্বার হোসেন মিয়া জানান জমি নিয়ে তাদের একই বাড়ির শহিদুল ইসলাম ও তার লোকজনের সাথে দীর্ঘ দিন ধরে বিরোধ চলে আসছিলো। গত ১৭ অক্টোবর বিকালে মোনাব্বার হোসেনের ঘর সংলগ্ন একটি নারকেল গাছ থেকে পাকা নারকেল পড়ে গেলে তার স্ত্রী আরজু বেগম তা ঘরের মধ্যে নিয়ে আসেন। শহীদুল ইসলাম ও তার লোকজন ওই নারকেল গাছটি তাদের দাবী করে মোনাব্বারের ঘরে প্রবেশ করে নারকেলটি নেওয়ার চেষ্টা করলে আরজু বেগম বাধা দেন।

 

এতে ক্ষিপ্ত হয়ে শহীদুল ইসলাম, তার স্ত্রী পারভীন বেগম, পুত্র তামিম হোসেনসহ ৪/৫জন আরজু বেগমের ওপর হামলা চালিয়ে তাকে পিটিয়ে, কিলঘুষি, লাথি মেরে মারাতœক আহত করে। এসময় হামলাকারীরা আরজু বেগমের গলা থেকে ১ভরি ওজনের স্বর্ণের চেইন ও কানের দুল ছিনিয়ে নেয়। এঘটনায় গত ১৮ অক্টোবর মোনাব্বার হোসেন বাদী হয়ে শহীদুল মুন্সীসহ ৪জনকে আসামী করে মুলাদী থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ শহীদুল গ্রেফতার করে জেল-হাজতে প্রেরণ করেন। ২১ অক্টোবর শহীদুল ইসলাম মুন্সী জামিন নিয়ে এলাকায় ফিরে স্কুল শিক্ষিকা আরজু ও তার স্বামী মোনাব্বার হোসেনকে হত্যাসহ বিভিন্ন ধরনের হুমকি দিয়েছে বলে জানান আরজু বেগম। স্কুল শিক্ষিকার ওপর হামলা ঘটনায় শিক্ষক নেতারা তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। নিন্দা জানিয়েছেন উপজেলার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন প্যাদা, শিক্ষক নেতা এসএম কামাল পাশা, সাইফুল ইসলাম মাসুমসহ বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষকবৃন্দ।