যেভাবে পতন হলো যুবলীগ নেতা ওম’র ফারুকের

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৯:৫২ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২০, ২০১৯ | আপডেট: ৯:৫৩:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২০, ২০১৯

যুবলীগ থেকে বহিষ্কার হয়েছেন ওম’র ফারুক চৌধুরী। রোববার প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে যুবলীগ নেতাদের বৈঠক থেকে তাকে বহিষ্কারের বিষয়টি জানানো হয়।

যুবলীগের সপ্তম জাতীয় কংগ্রেস আয়োজন উপলক্ষে এ বৈঠকের আয়োজন করা হয়। তবে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন না সংগঠনটির চেয়ারম্যান ওম’র ফারুক চৌধুরী ও প্রেসিডিয়াম সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন।

মূলত ক্যাসিনোবিরোধী অ’ভিযানের পর থেকে আলোচনায় আসেন ওম’র ফারুক চৌধুরী। ক্যাসিনোকা’ণ্ডে গ্রে’ফতার সম্রাটের কাছ থেকে ক্যাসিনোর ভাগ পেতেন বলেও অ’ভিযোগ ওঠে তার বি’রুদ্ধে। তার ক্যাসিনো-সম্পৃক্ততায় নড়েচড়ে বসেন আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের অনেক নেতা।

এছাড়া ওম’র ফারুক চৌধুরীর বি’রুদ্ধে হাজারও অ’ভিযোগ জমে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে। দলীয় পদ বাণিজ্যের অ’ভিযোগ, স্বেচ্ছাচারিতা, ইচ্ছামাফিক পদ দেয়া-পদ বাতিল করা ও নেতাকর্মীদের সঙ্গে অসদাচরণ ছিল তার নিত্তনৈমিত্তিক ব্যাপার।

এসব কা’ণ্ডে ওম’র ফারুক চৌধুরীর দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। এ বিষয়ে বিমানবন্দর ও স্থলবন্দরগুলোয় সরকারের পক্ষ থেকে নির্দেশনা পাঠানো হয়। নেয়া হয় বাড়তি সতর্কতা। একপর্যায়ে ব্যাংক হিসাব তলবের পর নিজেকে গুটিয়ে নেন ওম’র ফারুক চৌধুরী।

গণমাধ্যমে যুবলীগ নেতাদের সংশ্লিষ্টতায় ঢাকার ৬০টি জায়গায় ক্যাসিনো পরিচালনার খবর প্রকাশ হয়। এরপর অ’ভিযান চালিয়ে গ্রে’ফতার করা হয় যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ ভূঁইয়াকে। যিনি ইয়াংমেনস ক্লাবের সভাপতি ছিলেন।

গ্রে’ফতার করা হয় যুবলীগ নেতা পরিচয় দিয়ে ঠিকাদারি করা গো’লাম কিবরিয়া শামীম ওরফে জিকে শামীমকে। পরে গ্রে’ফতার করা হয় ক্যাসিনো সম্রাট খ্যাত যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট’কে।

এসব ক্যাসিনো ব্যবসায় যুবলীগ নেতাদের ম’দদ দেয়ার অ’ভিযোগ ওঠে যুবলীগ চেয়ারম্যান ওম’র ফারুক চৌধুরীর বি’রুদ্ধে। এরই মধ্যে তার দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে। তলব করা হয় ব্যাংক হিসাব।

এছাড়া ৭১ বছর বয়সী ওম’র ফারুক যুবলীগের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। দু’র্নীতিতে সংশ্লিষ্টতার অ’ভিযোগে কয়েক সপ্তাহ ধরে তিনি গণমাধ্যমের শিরোনামে ছিলেন। এরই ধারাবাহিকতায় তাকে দল থেকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।