আজ ফুটবলার লুকা মদ্রিচ-এর জন্মদিন

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৫:৫১ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৯ | আপডেট: ৬:১৯:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৯

তানজিদ শুভ্রঃ
ফিফা বিশ্বকাপ- ২০১৮-র অন্যতম তারকা ফুটবলার ক্রোয়েশিয়ান অধিনায়ক লুকা মদ্রিচ। সেরা খেলোয়ার হিসেবে এবারের আসরের গোল্ডেন বল অর্জনকারীও তিনি। এ ক্রোয়েশিয়ান অধিনায়কের আজ ৩৪ তম জন্মদিন।

তৎকালীন যুগোস্লাভিয়ার ভেলেবিট পর্বতশ্রেণীর ঢাল ঘেঁষা ছোট্ট গ্রাম মড্রিচিতে ১৯৮৫ সালের ৯ সেপ্টেম্বর জন্ম নিয়েছিলেন লুকা মড্রিচ। তার শৈশবের গল্পটিও অন্যদের চেয়ে আলাদা। লুকার মা-বাবা উভয়ই ছিলেন টেক্সটাইল কর্মী। কাপড়-বুনে অর্থোপার্জন করতেন তারা, তাই ছেলেকে সময় দেওয়া সম্ভব ছিলো না তাদের পক্ষে। তাই এ দম্পতির প্রথম সন্তান লুকা একরকম বড় হতে থাকে তার পিতামহ মড্রিচ সিনিয়রের কোলে-পিঠে। তবে এই সুন্দর শৈশব বেশিদিন টেকে নি।

মড্রিচ যখন নেহাৎই শিশু, তখনই দানা বাঁধে ক্রোয়েশিয়ার স্বাধীনতার যুদ্ধ। বীভৎস রক্তক্ষয়ী সে গৃহযুদ্ধের অন্যতম কেন্দ্রস্থল ছিলো লুকাদের গ্রাম মড্রিচি। লুকা মড্রিচের বাবা হয়ে ওঠেন সার্বিয়ান সেনাবাহিনীর একজন যন্ত্রমেরামতকারী। দাদা মড্রিচ সিনিয়রও সরাসরি যুক্ত ছিলেন সার্বিয়ান আর্মির সঙ্গে। ১৯৯১ সালের এক ডিসেম্বরে পাশের পাহাড়ে গবাদি-পশু চড়াতে গিয়ে সার্ব-বিদ্রোহীদের হাতে ধরা পড়ে খুন হন লুকার পিতামহ সিনিয়র মদ্রিচ। তার পর পর-ই ঐ অঞ্চলের অনেক পরিবারের মত ক্রমাগত হত্যার হুমকি পেতে থাকেন লুকার পরিবারও। বাধ্য হয়ে তাই বাড়িঘর ছেড়ে পালিয়ে যেতে হয় মদ্রিচ পরিবারকে। এভাবে ছয় বছর বয়সী ছোট্ট লুকার হয়ে উঠলেন একজন শরণার্থী শিশু।

শরণার্থী শিবিরেই বড় হয়ে উঠেছিলেন লুকা মদ্রিচ, সেখানেই ফুটবলের সাথে সখ্য গড়ে উঠেছিলো। তবে রোগা-পাতলা শরুণার্থী শিশুটি যে একদিন মস্ত বড় খেলোয়ার হয়ে উঠবেন, তা কে ভেবেছিলো? একসময় পরিস্থিতি শান্ত হয়ে ওঠে, স্বাধীনতা লাভ করে ক্রোয়েশিয়া। তবে সেই অগ্নিময় দিনের স্মৃতি বুকে নিয়েই পথ চলতে শুরু করে আজকের দিনে এসে পৌঁছেছেন এ ক্রোয়েট অধিনায়ক।

২০১৮ সালের উয়েফা বর্ষসেরা ফুটবলার-এর খেতাবটিও ইতোমধ্যে জিতে নিয়েছেন এ ফুটবলার।