বানরের কারণে বিয়ে করতে পারছে না গ্রামের যুবতী মে’য়েরা!

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৭:২১ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৬, ২০১৯ | আপডেট: ৭:২১:অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ৬, ২০১৯

ছোট-বড় মিলিয়ে পুরো গ্রামে কয়েক হাজার বানর। বাড়িঘরে কিংবা চলার পথে যেখানেই যাওয়া যাক না কেন, চারপাশেই বানরের উপদ্রব। গ্রামের বাসিন্দারা এক মুহূর্ত শান্তিতে থাকতে পারে না। সব সময় বানরের ভ’য়ে থাকতে হয়। আর সেজন্য ওই গ্রামে কোনও মে’য়ের বিয়েরও আয়োজন করা যায় না।

শুনতে একটু অ’বাক করার মতো লাগলেও প্রতিবেশী দেশ ভা’রতের বিহারের ভোজপুর জে’লার রতনপুর গ্রামের বাস্তব চিত্রটা এরকমই।

বানরদের দাপটে সেখানকার বাসিন্দাদের জীবন অ’তিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। যেকোনও সময় বাড়িঘরে ঢুকে বানরের দল বিভিন্ন জিনিস চু’রি করে নিয়ে যাচ্ছে। কাউকে একলা পেলে মা’রধর করছে। আর যদি কোনও বাড়িতে বিয়ে কিংবা কোনও বিশেষ উপলক্ষে কোনও শোভাযাত্রা হয় তবে তো দলবল নিয়ে সেখানে ঝাঁপিয়ে পড়েন বানরেরা।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, কয়েক বছর আগেও একটি বিয়েবাড়ির শোভাযাত্রায় বানরদের স’ন্ত্রাসী হা’মলায় প্রা’ণহানির ঘটনা ঘটেছে। ওই ঘটনার পর থেকেই গ্রামটিতে বিয়ে ও অন্যান্যও যেকোনও ধরনের অনুষ্ঠান আয়োজন কিংবা শোভাযাত্রা নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

এখন ঘরে যুবতী মে’য়ে রেখে সেখানকার বাবা-মায়ের চিন্তা বাড়ছে। কারণ বানরের অ’ত্যাচারে বিয়ের আয়োজনটুকুও করা যায় না। পাত্রপক্ষ কনে দেখতে এলে পথেই তাদের নাজেহাল করে ছাড়ে বানরেরা। তাই পাটনা শহর থেকে মাত্র ৭৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত ভোজপুরের রতনপুর গ্রামের যুবতী মে’য়েরা এখন বিয়ে করতেই হিমশিম খাচ্ছেন।

জানা গেছে, রতনপুরের মতো আশপাশের আরও কয়েকটি গ্রামেও বানর বাহিনী একইরকমভাবে মানুষদের হয়’রানি ও জ্বালাতন করছে।

বিভিন্ন সময় এ নিয়ে প্রশাসনের সহযোগিতা চাইলেও কার্যকর কোনও পদক্ষেপ চোখে পড়েনি বলে গ্রামবাসীর অ’ভিযোগ।