শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকসহ ১১ জনকে আদালতের শোকজ

প্রকাশিত: ৯:৪৯ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৮, ২০১৯ | আপডেট: ৯:৫১:অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৮, ২০১৯

শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকসহ এগারো জনকে বিবাদী করে আদালতে মামলা (নং-৯৩/১৯) দায়ের হয়েছে ঝালকাঠির আদালতে। ঝালকাঠির কাঠালিয়া উপজেলার চেচরী রামপুর এমএল মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের অনিয়ম, দুর্নীতি, স্বেচ্ছাচারিতা ও অর্থ আত্মসাতের বিরুদ্ধে ম্যানেজিং কমিটির সিদ্ধান্ত বরিশাল মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড গ্রাহ্য না করায় স্থানীয় ইউপি সদস্য ও অভিভাবক মোঃ মান্নান হাওলাদার আদালতে এ মামলা দায়ের করেন। মামলাটি ঝালকাঠির কাঠালিয়া সহকারী জজ আদালতের বিচারক মোঃ নুরুল আমীন আমলে নিয়ে শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকসহ সকল বিবাদীদের কারণ দর্শানো নোটিশ প্রদানের আদেশ দেন। আগামী ১ মাসের মধ্যে জবাব প্রদান করতে হবে বলে ওই আদেশে উলে­খ করা হয়েছে।
আজ বুধবার (২৮ আগস্ট) আদালত এ আদেশ দেন। গতকাল মঙ্গলবার (২৭ আগস্ট) মামলাটি দায়ের করা হয়েছিল। বিদ্যালয়ের বরখাস্তকৃত প্রদান শিক্ষক মোঃ মেহেদী হাসান, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন ও অর্থ/উন্নয়ন), অতিরিক্ত সচিব (অডিট ও আইন), মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের (ঢাকা) মহাপরিচালক, বরিশাল মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের চেয়ারম্যান, বরিশাল অঞ্চলিক মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের উপপরিচালক, সচিব, বিদ্যালয় পরিদর্শক, জেলা শিক্ষা অফিসার, কাঠালিয়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ও ওই বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মোঃ সরোয়ার হোসেনকে মামলায় বিবাদী করা হয়।
প্রধান শিক্ষক মেহেদী হাসান বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সিদ্ধান্ত উপেক্ষা করে এসএসসি ফরম পূরণে অতিরিক্ত ২লাখ টাকা আদায়, স্কুলের কোষাধ্যক্ষের কাছ থেকে ভাউচার বিহীন চেক নিয়ে প্রায় দেড় (১,৫০,০০০) লক্ষ টাকা, সভাপতির স্বাক্ষর জাল করে ভুয়া নিয়োগে ৬ লক্ষ টাকা, অডিট দেখিয়ে প্রায় আড়াই লক্ষ (২,৫০,০০০) টাকা এবং প্রকাশনী কোম্পানী থেকে ১ লাখ টাকা উপঢৌকন গ্রহণ করে আত্মসাত করেছেন বলে মামলায় উলে­খ করা হয়।
এছাড়াও মামলায় উলে­খ করা হয়, বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকায় সভাপতির “এ”(অনুপস্থিত) লেখার উপরে ¯¦াক্ষর করেন প্রধান শিক্ষক মোঃ মেহেদী হাসান। এব্যাপারে সভাপতি তাকে ৩ বার কারণ দর্শানো নোটিশ দিলে তিনি অগ্রাহ্য করে কোন জবাব না দেয়ায় তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়। এ বিষয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে একাধিকবার আবেদন করেও কোন প্রতিকার না পাওয়ায় প্রধান শিক্ষক মেহেদী হাসানের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করেন বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যান জাকির হোসেন। এতে তিনি কারা বাস করলেও বিহিত বিধানে ব্যবস্থা নিতে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষককে নির্দেশ দেয় বরিশাল মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড কর্তৃপক্ষ। চুড়ান্ত বরখাস্তের আদেশ বা পরবর্তি ব্যবস্থা গ্রহণে যথাযথ কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ না দিয়ে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষককে নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলে মামলায় উলে­খ করা হয়েছে।