চলন্ত বাসে ধ’র্ষণের পর নার্স হত্যা : ৯ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১২:১৩ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ৯, ২০১৯ | আপডেট: ১২:১৩:পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ৯, ২০১৯

কিশোরগঞ্জে চলন্ত বাসে নার্স শাহীনুর আক্তার তানি’য়াকে ধ’র্ষণের পর হত্যা মামলায় স্বর্ণল’তা বাসের চালক ও হেলপারসহ ৯ আসামির বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার দুপুরে এ মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) সারোয়ার জাহান কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক আল মামুনের কাছে চার্জশিট দাখিল করেন।

চার্জশিটভুক্ত আসামিরা হলেন স্বর্ণল’তা বাসের চালক নুরু’জ্জামান নুরু, হেলপার লালন মিয়া, বাস মালিক আল মামুন, রফিকুল ইসলাম রফিক, খোকন মিয়া, বকুল মিয়া, বোরহান, আল আমিন ও স্বর্ণল’তা বাসের এমডি পারভেজ সরকার পাভেল। এদের মধ্যে শেষের তিনজন পলাতক রয়েছে। ধ’র্ষণ ও হত্যায় সরাসরি সম্পৃক্ত আসামি বোরহান উদ্দিনকে পুলিশ এখনো গ্রেফতার করতে পারেনি।

কিশোরগঞ্জের পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ জানান, বাসের চালক, তার খালাতো ভাই বোরহান ও বাসের হেলপার লালন মিয়া তানিয়া ধ’র্ষণ ও হত্যার সঙ্গে সরাসরি জড়িত। তাকে বাসের ভেতর পালাক্রমে ধ’র্ষণের পর বাস থেকে ফেলে হত্যা করা হয়। মাথায় প্রচন্ড আঘাতের ফলে তার মৃত্যু হয়। পরে তার মরদেহ কটিয়াদী হাসপাতালে ফেলে পালিয়ে যায় আসামিরা। অন্য ছয় আসামি তানিয়া ধ’র্ষণ ও হত্যার ঘটনায় সহযোগিতা করেন বলে চার্জশিটে উল্লেখ করা হয়েছে। পলাতক বোরহান উদ্দিনসহ অন্য আসামিদের গ্রেফতারে চেষ্টা চলছে বলে জানান পুলিশ সুপার।

প্রসঙ্গত, গত ৬ মে রাতে ঢাকা থেকে স্বর্ণল’তা পরিবহনের একটি বাসে কিশোরগঞ্জের কটিয়াদীতে গ্রামের বাড়ি যাওয়ার পথে ধ’র্ষণ ও হত্যার শিকার হন শাহিনুর আক্তার তানিয়া। তিনি কটিয়াদী উপজেলার লোহাজুড়ি ইউনিয়নের বাহেরচর গ্রামের গিয়াস উদ্দিনের মেয়ে ও ঢাকার কল্যাণপুর এলাকার ইবনে সিনা হাসপাতালের সিনিয়র নার্স ছিলেন।

তানি’য়াকে বহনকারী স্বর্ণল’তা পরিবহনের বাসটি কটিয়াদী বাসস্ট্যান্ডে আসার পর বাসের অন্য যাত্রীরা নেমে যান। কটিয়াদী থেকে বাজিতপুর উপজেলার পিরিজপুর বাসস্ট্যান্ডে যাওয়ার পথে গজারিয়া বিলপাড় এলাকায় বাসের চালক ও সহকারীরা তানিয়ার ওপর পাশবিক নির্যাতন চালায়। পরে তানিয়ার মরদেহ কটিয়াদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমেপ্লক্সে রেখে পালিয়ে যায় তারা।

এ ঘটনায় নিহতের বাবা গিয়াস উদ্দিন বাদী হয়ে ওইদিন রাতেই চারজনের নামে বাজিতপুর থানায় একটি মামলা করেন। এ মামলায় বাসের চালক নুরু’জ্জামান নুরু, হেলপার লালন মিয়া ও বাসের মালিক আল মামুনসহ ছয় আসামি কিশোরগঞ্জ কারাগারে রয়েছেন।