টেকসই উন্নয়নে কমাতে হবে নারী-পুরুষের মধ্যকার বৈষম্য

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১১:২০ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৯, ২০১৭ | আপডেট: ১১:২০:অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৯, ২০১৭
টেকসই উন্নয়নে কমাতে হবে নারী-পুরুষের মধ্যকার বৈষম্য

সোহানুর রহমান: একটি দালান বানাতে যে পরিমাণ ইট কিংবা চুন- সুরকি পোড়াতে হয়, তার চেয়ে বেশি পরিমাণে নিজেকে পোড়ানোর কথা নিজ লেখায় স্বীকার করেছিলেন নারী জাগরণের অগ্রদূত বেগম রোকেয়া। এই পোড়ানো ছিল নিজেকে জ্ঞান সমৃদ্ধ মানুষ হিসেবে গড়ে তোলা। ধর্মান্ধ পিতার কঠোর অবরোধের বেড়াজালে লালিত পালিত হলেও শৈশব থেকেই অভিজ্ঞতা ও জ্ঞানের সাধনার মাধ্যমে নিজেকে তিনি এক আধুনিক চিন্তা চেতনায় গড়ে তুলেছিলেন। মহিয়সী নারী বেগম রোকেয়া দিবস উপলক্ষে আন্তর্জাতিক নারী নির্যাতন প্রতিরোধ পক্ষে বরিশালে জয়িতাদের সংবর্ধনা দিয়েছে জেলা প্রশাসন ও মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর। জয়িতা অন্বেষণে বাংলাদেশ শীর্ষক কার্যক্রমের আওতায় জেলা পর্যায়ে বরিশালের শ্রেষ্ঠ জয়িতা নির্বাচন ও সংবর্ধনা অনুষ্ঠান শনিবার (৯ ডিসেম্বর) বিকেল ৪টায় নগরীর অশ্বিনী কুমার টাউন হলে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন তালুকদার মো. ইউনুস এমপি। বরিশালের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মো.মনির হোসেন হাওলাদারের সভাপতিত্বে সংবর্ধণা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় সংসদের প্যানেল স্পীকার এ্যাডভোকেট তালুকদার মোঃ ইউনুস এমপি। সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা বরিশাল সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকতা মো.ওয়াহিদুজ্জামান ও মহিলা পরিষদের সভাপতি রাবেয়া খাতুন। স্বাগত বক্তব্য দেন জেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা রাশিদা বেগম। অলোচনায় অংশ নেন বিসিসি কাউন্সিলর কহিনুর বেগম, নারী নেত্রী নিগার সুলতানা হনুফা, উন্নয়ন সংগঠক আনোয়ার জাহিদ, কাজী জাহাঙ্গীর কবির, শুভঙ্কর চক্রবর্তী প্রমুখ। এসময় বক্তারা বলেন, নারীরা তাঁদের অগ্রযাত্রায় নানা বাধা অতিক্রম করে চলেছেন বলেই এখন সর্বজায়গায় তাদের জয়জয়কার। টেকসই লক্ষ্য অর্জনে প্রয়োজন নারী ও পুরুষের মধ্যে বিরাজমান বৈষম্য কমানো। সচেতন মানুষের কর্তব্য তাঁদের অগ্রযাত্রার পক্ষে অবস্থান নেয়া। জয়িতারাই বাংলাদেশের বাতিঘর। তারাই বাংলাদেশকে এগিয়ে নেবেন এবং একদিন বাংলাদেশের নেতৃত্ব দেবেন। অনুষ্ঠানের বরিশাল জেলার ১০ উপজেলা থেকে ৫ ক্যাটাগরীতে আসা ৫ জনকে শ্রেষ্ঠ জয়িতা হিসেবে ঘোষণা করা হয়।

অনুষ্ঠানে জেলার শ্রেষ্ঠ জয়িতাসহ বরিশাল সদর উপজেলার ৫ ক্যাটাগরীতে আসা ৫ জয়িতাকেও ক্রেস্ট ও সনদসহ সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে। সংবর্ধিত জয়িতারা হলেন উজিরপুর উপজেলার অর্থনৈতিক সাফল্য অর্জনকারী কিষাণী মাকসুদা বেগম, গৌরনদী উপজেলার শিক্ষা ও চাকরিক্ষেত্রে অরুনা সাহা, হিজলা উপজেলার সফল জননী জাহানারা মজুমদার, বরিশাল সদর উপজেলার নির্যাতনের বিভীষিকা মুছে ফেলে নতুন জীবন শুরু করা জাহেদা বেগম এবং বাবুগঞ্জ উপজেলার সমাজ ও উন্নয়নে রহিমা বেগম। অনুষ্ঠান শেষে সন্ধ্যায় মোমবাতি প্রজ¦লন করা হয়।