শারীরিক সম্পর্ক শেষে স্তন কাটতাম, বিক্রি করে অর্থ উপার্জন করতাম

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৫:৫৬ অপরাহ্ণ, জুন ২০, ২০১৯ | আপডেট: ১০:১২:পূর্বাহ্ণ, জুন ২২, ২০১৯
Woman on pink bra waiting nervously doctor examine xray result in background

কিমানিয়ানো নামের এক অপরাধী এমনই কথা বলেছেন। যৌনকর্মীদের টার্গেট করে সম্পর্কের একপর্যায় তাদের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক শেষে স্তন কাটতাম। তারপর সেগুলো বিক্রি করে অর্থ উপার্জন করতাম।

কেটিএন নিউজ কেনিয়া টিভির বিশেষ এক অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে বোনিফেস কিমানিয়ানো নামের ওই ব্যক্তি বলেন, নারীদের স্তন কেটে বিক্রি করতেন তিনি। দুই বছর ধরে এমন নৃশংস অপরাধযজ্ঞ চালিয়েছেন তিনি।

কুখ্যাত এই অপরাধী বলেন, তাদের পাতানো ফাঁদে পা দিলেই তাকে নিয়ে যাওয়া হতো গোপন আস্তানায়। এক ধরনের রাসায়নিকের মাধ্যমে তাকে অবচেতন করা হতো। সাধারণত ব্যথা উপশমের জন্য এই রাসায়নিক ব্যবহৃত হয়।

কিন্তু এর অতিরিক্ত প্রয়োগেই জ্ঞান হারাতেন যৌনকর্মীরা। আর সেই সুযোগকে কাজে লাগিয়েই তাদের স্তন কেটে ফেলতো কিমানিয়ানো এবং তার সঙ্গীরা। স্তনের বিনিময়ে মিলত ১ লাখ থেকে ১ লাখ ২০ হাজার কেনিয়ান শিলিং। বাংলাদেশি মুদ্রায় যা অন্তত ৬৬ হাজার থেকে ৮৩ হাজার টাকা। যে স্তনের আকার যত বড় তার মূল্য তত বেশি।

২০১৬ সালে নাইরোবির হাসপাতালে নারীদের স্তন বিক্রির কথা জানতে পারে পুলিশ। তারপর ওই দলের সদস্যদের গ্রেফতার করা হয়। তিনজন নারীর স্তন কাটার পর বিবেকে ধাক্কা লাগে কিমানিয়ানোর। তারপরই এমন ঘৃণ্য অপরাধে ইতি টানেন তিনি