তরুণীকে হত্যার পর ধর্ষণ

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৪:১৫ অপরাহ্ণ, জুন ১২, ২০১৯ | আপডেট: ৪:১৫:অপরাহ্ণ, জুন ১২, ২০১৯

নরসিংদীর শিবপুর উপজেলায় প্রতিবন্ধী তরুণীকে হত্যার পর ধর্ষণ করা হয়েছে। বিয়ের আগে শারীরিক সম্পর্কে জড়াতে রাজি হয়নি সাবিনা তাই তাকে হত্যার পর ধর্ষণ করা হয়েছে।এ ঘটনায় জড়িত ধর্ষক সাইফুল ইসলামকে (২৮) গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১১-এর সদস্যরা।
একই সঙ্গে ধর্ষক সাইফুল ইসলামের দেয়া তথ্য অনুযায়ী প্রতিবন্ধী তরুণীর মোবাইল ও ব্যাগসহ বিভিন্ন জিনিসপত্র উদ্ধার করা হয়েছে। বুধবার দুপুরে নরসিংদী প্রেস ক্লাবে প্রেস কনফারেন্স ডেকে এসব তথ্য জানায় র‌্যাব-১১।

সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব-১১-এর অধিনায়ক শমসের উদ্দিন বলেন, চলতি বছরের মার্চ মাসে শিবপুর উপজেলার মাছিমপুর গ্রামের প্রতিবন্ধী সাবিনা আক্তারের (২১) সঙ্গে একই উপজেলার দুলালপুর গ্রামের হানিফ ফকিরের ছেলে সাইফুল ইসলামের পরিচয় হয়। এরপর বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে সাবিনার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে সাইফুল ইসলাম। ৮ জুন বিয়ে করার কথা বলে সাবিনাকে বাড়ি থেকে নিয়ে যায় সাইফুল। পরে কাজিরচর গ্রামের একটি কলাবাগানে সাবিনাকে নিয়ে যায়। সেখানে সাবিনার সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক করার চেষ্টা চালায় সাইফুল। কিন্তু বিয়ের আগে শারীরিক সম্পর্কে জড়াতে রাজি হয়নি সাবিনা। পরে সাবিনাকে শ্বাসরোধে হত্যা করে সাইফুল। হত্যার পর সাবিনার মরদেহ ধর্ষণ করে সাইফুল ইসলাম। পরে সাবিনার মরদেহ কলাবাগানে ফেলে চলে যায়।

হত্যার পর মরদেহ কলাবাগানে ফেলে চলে যাওয়ার সময় সাবিনার ব্যবহৃত মোবাইল ও ভ্যানিটি ব্যাগ নিয়ে নিজ বাড়িতে চলে যায় সাইফুল। ঘটনার পর সাইফুল আত্মগোপনে চলে যায়। ৮ জুন স্থানীয় লোকজন কলাবাগানে মরদেহ দেখে শিবপুর থানা পুলিশে খবর দেয়। ঘটনাস্থল থেকে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায় পুলিশ।
এরই প্রেক্ষিতে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে মঙ্গলবার রাতে শিবপুর কলেজ গেট এলাকা থেকে ধর্ষক সাইফুল ইসলামকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে সাবিনাকে হত্যা ও মরদেহ ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে সাইফুল ইসলাম।
তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানান র‌্যাব-১১-এর অধিনায়ক শমসের উদ্দিন।