নলছিটিতে মামলা করায় বাদীর ঘরে তালা দিয়েছে আসামিরা

প্রকাশিত: ১০:৪৩ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ৭, ২০১৭ | আপডেট: ১০:৪৩:পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ৭, ২০১৭
নলছিটিতে মামলা করায়  বাদীর ঘরে তালা দিয়েছে আসামিরা

ঝালকাঠির নলছিটিতে এসকেন্দার আলী হাওলাদার (৬০) নামে এক বৃদ্ধকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগে ছেলে বাদী হয়ে আদালতে মামলা করায় আসামিরা তার ঘরে তালা লাগিয়ে দিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বুধবার বেলা ১২ টায় ঝালকাঠি প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সাংবাদিক সম্মেলনে এ অভিযোগ করা হয়। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন নিহতের বড় ছেলে এবং হত্যা মামলার বাদী মো. লাল মিয়া হাওলাদার।
অভিযোগে জানাযায়, নলছিটি উপজেলার ফয়রা গ্রামে এসকেন্দার আলী হাওলাদারের সঙ্গে প্রতিবেশী মাহাতাব উদ্দিনের জমি নিয়ে বিরোধ চলে আসছিল। গত ১ সেপ্টেম্বর সকাল ১১ টায় বিরোধীয় জমিতে বাঁশ কাটতে যায় এসকেন্দার আলী হাওলাদার। এসময় প্রতিপক্ষ মাহাতাব উদ্দিন, তাঁর স্ত্রী রাশিদা বেগম এবং দুই মেয়ে ইভা বেগম ও ফাতেমা বেগম হাতুড়ি ও লাঠি দিয়ে পিটিয়ে আহত করে বৃদ্ধ এসকেন্দার আলী হাওলাদারকে। গুরতর অবস্থায় তাকে কুশংগল ইউনিয়ন স্বাস্থ্যকেন্দ্রে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক উপসহকারী কমিউনিটি মেডিক্যাল অফিসার আতিউর রহমান তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য নলছিটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠান। চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত ২১ নভেম্বর তাঁর মৃত্যু হয়। ওই দিনই তার ছোট ছেলে রিপন হাওলাদার নলছিটি থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। নলছিটি থানার এসএসআই সোহাগ ওই ঘটনা তদন্তের জন্য একাধিকবার ফয়রা গ্রামে যান। গত ২১ নভেম্বর এসকেন্দার হাওলাদার মারা যাওয়ার পর বিষয়টি এএসআই সোহাগকে জানালে তিনি রিপনকে বলেন, তোর বাবার ঘটনায় থানায় কোন মামলা হয়নি। আর এ বিষয় নিয়ে থানায় আসবি না। পিতার হত্যার বিচার চেয়ে গত ২৯ নভেম্বর ঝালকাঠির সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে মাহাতাব উদ্দিন, তাঁর স্ত্রী রাশিদা বেগম এবং দুই মেয়ে ইভা বেগম ও ফাতেমা বেগম এর নামে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। এ খবর জানতে পেরে মাহতাব ও তার দলবল এসকেন্দার হাওলাদারের ছোট ছেলে রিপনের ঘরে তালা লাগিয়ে দেয় এবং ঘরের পোতা কোদাল দিয়ে কুপিয়ে চটিয়ে দেয়। এ ব্যাপারে রিপন হাওলাদার নলছিটি থানায় ৩০ নভেম্বর ১০৬০নং জিডি দায়ের করে।
মামলার বাদী নিহতের ছেলে লাল মিয়া হাওলাদার বলেন, আমার বাবা একজন নিরীহ মানুষ। আমাদের জমিজমা প্রতিপক্ষরা দখল করে আছেন। আমাদের জমিতে লাগানো বাঁশ কাটার সময় বাধা দিলে আসামিরা বাবাকে হাতুড়ি ও লাঠি দিয়ে পিটিয়ে হত্যা আহত করে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়। আসামিরা প্রভাবশালী বিধায় তাদের বিরুদ্ধে কেউ কথা বলতে সাহস পায় না। হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে মামলা করে এখন আমরা বাড়িঘর ছাড়া। আমাদের ঘরেও তালা লাগিয়ে দিয়েছে তারা। আসামিদের গ্রেপ্তারে আমরা ঝালকাঠির পুলিশ সুপারের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।