কুয়াকাটায় পর্যটকদের বিনোদন দিতে যোগ হয়েছে ম্যাজিক বোট

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১২:০৭ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ৭, ২০১৭ | আপডেট: ১২:০৭:পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ৭, ২০১৭
কুয়াকাটায় পর্যটকদের বিনোদন দিতে যোগ হয়েছে ম্যাজিক বোট

পর্যটকদের বিনোদন দিতে কুয়াকাটায় নতুন মাত্রা যোগ হলো ম্যাজিক বোট। প্রতিদিন সকাল থেকে শেষ বিকেল পর্যন্ত এ বোট’টিকে ঘিরে ভীড় করেছেন স্থানীয়সহ শত শত পর্যটক। বিশেষ করে এটি শিশুদের কাছে বেশ আকর্ষনীয় হয়ে উঠেছে। ব্যক্তিগত উদ্যোগে সৈকতের জিরো পয়েন্ট থেকে একটু পূর্বদিকে এটিকে স্থাপন করা হয়। এর ফলে কুয়াকাটা সৈকতের সৌন্দর্য বৃদ্ধিসহ আগত ভ্রমণ পিপাসুদের বিনোদনের মাত্রা বাড়িয়ে তুলবে বলে স্থানীয়রা জানিয়েছেন।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সৈকত সংলগ্ন ইকোপার্ক, গঙ্গামতির লেক ও ম্যানগ্রোভ ফরেষ্ট, ছায়া ঘেরা নারিকেল কুঞ্জ, মিশ্রী পাড়ায় অবস্থিত এশিয়ার সর্ব বৃহৎ বৌদ্ধ বিহার, সুন্দরবনের পূর্বাঞ্চাল খ্যাত ফাতরার সবুজ বন, মম্বীপাড়ার সৎ সঙ্গের মন্দির ও লেম্বুর চরের শুঁটকি পল্লীতে দেশ-বিদেশী পর্যটকদের ভীড় থাকে। সৈকতে বিনোদনের তেমন কোন ব্যবস্থা না থাকলেও এখন সৈকতে পর্যটকদের বিনোদনের জন্য ওয়াটার বাইক, বিচ বাইকসহ ম্যাজিক বোট রয়েছে।
কুয়াকাটায় ভ্রমনে আসা সালমা আক্তার সাগরকন্যাকে বলেন, পরিবার পরিজন নিয়ে আমি বেশ কয়েক বার এখানে এসেছি। সৈকতে বিনোদনের তেমন কোন ব্যবস্থা ছিলোনা। তবে এ ম্যাজিক বোটটি স্থাপন করায় শিশুদের বিনোদনে নতুন মাত্র যোগ হয়েছে।
ওয়াটার বাইক মালিক লিটন খান সাগরকন্যাকে বলেন, পর্যটক না থাকলে আমাদের বসে বসে খেতে হয়। এছাড়া পর্যটকদের বিনোদনের পাশাপাশি আমাদের আয়ও হচ্ছে। তবে এ সৈকতকে আরো সাজানো হলে পর্যটকরা এখানে এসে বিনোদন পাবে।
ম্যাজিক বোট মালিক জাকির চৌধুরী বলেন, দেশের বিভিন্ন পার্কে এ ম্যাজিক বোট রয়েছে। কুয়াকাটার সৈকতে তেমন কোন বিনোদনের ব্যবস্থা নেই। তাই প্রায় ৮ লাখ টাকা ব্যয় করে এটিকে স্থাপন করা হয়। প্রতিদিন এ থেকে হাজার টাকা আয় হয় বলে তিনি জানিয়েছেন।
কুয়াকাটা পৌর মেয়র আঃ বারেক মোল্লা জানান, এ ম্যাজিক বোটটি স্থাপনা করায় সৈকতের শোভা বৃদ্ধি পেয়েছে। এ ধরনের উদ্যোক্তাদের সাধুবাদ জানাই।
ট্যুরিস্ট পুলিশ কুয়াকাটা জোন’র ওসি মো. মনিরুজ্জামান বলেন, কুয়াকাটার সৈকত সহ বিভিন্ন বিনোদন স্পটে আমাদের ট্যুরিস্ট পুলিশের টহল রয়েছে।