গাজীপুর জেলায় এত উন্নয়ন হয়েছে, যার কথা বললে অন্য জেলা হিংসে করবে: শেখ হাসিনা

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১০:০৬ পূর্বাহ্ণ, মে ২৬, ২০১৯ | আপডেট: ৪:২০:অপরাহ্ণ, মে ২৬, ২০১৯

গতকাল শনিবার প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে (সাসেক) সড়ক সংযোগ প্রকল্পের আওতায় জয়দেবপুর-চন্দ্রা-টাঙ্গাইল-এলেংগা মহাসড়কে নির্মিত কোনাবাড়ি ও চন্দ্রা ফ্লাইওভার, ৪ টি আন্ডারপাস এবং ২ টি সেতু উদ্বোধন করেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের”মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা”গাজীপুর জেলার এ প্রকল্প সমূহের মোট ব্যয় ৩০০ কোটি টাকা এবং এর মাধ্যমে গাজীপুরবাসী যানজট থেকে অনেকাংশে মুক্তি পাবে।

মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মন্ত্রী চলমান আওয়ামীলীগ সরকারের আমলে দেশের যোগাযোগ খাতে উন্নয়ন চিত্র তুলে ধরেন। বক্তব্যের শেষ পর্যায়ে তিনি বলেন,গাজীপুর জেলার উন্নয়নের কথা আমি বলতে চাই না, তাহলে অন্য জেলা হিংসে করবে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের ও জাপানের রাষ্ট্রদূত হিরোয়াসু ইজুমি। এসময় মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক ও কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক সহ মন্ত্রনালয়ের সিনিয়র কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এসময় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, গাজীপুর থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে উন্নয়ন প্রকল্প সমূহ নিয়ে সরাসরি কথা বলেন জেলা প্রশাসক, গাজীপুর ড. দেওয়ান মুহাম্মদ হুমায়ূন কবীর। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এসময় একজন উপকারভোগী হাজেরা বেগমের সাথে কথা বলেন।

গাজীপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে ভিডিও কনফারেন্সিং এর সময় আরো উপস্থিত ছিলেন গাজীপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আখতারুজ্জামান, গাজীপুর -৩ আসনের সংসদ সদস্য মুহাম্মদ ইকবাল হোসেন সবুজ, গাজীপুর মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি এ্যাড. আজমতউল্লা খান, সাধারন সম্পাদক এবং গাজীপুর সিটি মেয়র এ্যাড. মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোঃ আনোয়ার হোসেন, জেলা পুলিশ সুপার শামসুন্নাহার, কাপাসিয়া, শ্রীপুর ও কালিয়াকৈর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ আমানত হোসেন খান, এ্যাড. শামসুল আলম প্রধান ও মোঃ কামাল উদ্দিন সিকদার, জেলা পরিষদের সদস্য মোঃ নুরুল ইসলাম শিমুল, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মোঃ দেলোয়ার হোসেন, গাজীপুর জেলার সকল সরকারি অফিসের কর্মকর্তাবৃন্দ, স্থানীয় আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ, মুক্তিযোদ্ধাবৃন্দ, ছাত্র-ছাত্রী ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিবৃন্দ।