“কেউ কিছু দিতে চাইলে প্রত্যাখান না করে গ্রহণ করাটাই শিষ্টাচার” – আবিদ আজম

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৯:১৩ অপরাহ্ণ, মে ১৯, ২০১৯ | আপডেট: ৯:১৩:অপরাহ্ণ, মে ১৯, ২০১৯

তানজিদ শুভ্রঃ গত শনিবার, ১৮ মে রাজধানীর পুরানা পল্টনে বাংলাদেশ ফটোজার্নালিষ্ট এসোসিয়েশন মিলনায়তনে দেশগ্রাম – বাংলাদেশ সাংস্কৃতিক সোসাইটি মাহে রমজানের তাৎপর্য শীর্ষক আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিলের আয়োজন করে। অনুষ্ঠানে কবি, ছড়াকার, সাংবাদিক আবিদ আজমকে দেশগ্রাম অ্যাওয়ার্ড – ২০১৯ প্রদান করা হয়। আবিদের হাতে অ্যাওয়ার্ড তুলে দেন প্রখ্যাত আইনজীবী ও সংবিধান বিশেষজ্ঞ এবং জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য আলহাজ্ব শেখ মুহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম, গবেষক ও জ্ঞানতাপস প্রাকৃতজ শামিম রুমি টিটন, প্রখ্যাত ইসলামী চিন্তাবীদ মাওলানা খন্দকার শহীদুল হক, প্রখ্যাত কবি সৈয়দ নাজমুল আহসান, সংগীতজ্ঞ সুফী হাবিব মোস্তফা, সংগঠক মাইস মন এবং সাথে ছিলেন আয়োজক মোস্তফা কামাল মাহদী।

কবি আবিদ আজম সম্পাদিত মুক্তিযুদ্ধের সেরা কিশোর গল্প বইটির জন্য তিনি দেশগ্রাম এ্যাওয়ার্ড পেলেন বলে জানিয়েছেন আয়োজকরা।

বিজয়ের ৪৮ বছরে দেশসেরা ৪৮ লেখকের মুক্তিযুদ্ধের গল্প নিয়ে এবছর বইমেলায় প্রকাশিত হয়েছে মুক্তিযুদ্ধের সেরা কিশোর গল্প। বইটি প্রকাশের পর বেশ সাড়া জাগিয়েছিল পাঠকমহলে।

Award.png

দেশগ্রাম সম্মাননা নিয়ে কবির অনুভূতি জানতে চাইলে তানজিদ শুভ্র কে তিনি জানায়, ‘বিষয়টা অবশ্য আমি আপনার মাধ্যমে জেনেছি, পরবর্তীতে আমি একটি চিঠিও পেয়েছি এ বিষয়ে। আনন্দের চেয়ে আমি বিস্মিত বেশি, আমি কিছুই জানতাম না। কেউ কিছু দিতে চাইলে প্রত্যাখান না করে গ্রহণ করাটাই শিষ্টাচার।’ সম্মাননাটি পিতা মরহুম আলহাজ্ব মফিজুর রহমান আবু তাহেরকে উতসর্গ করে বলেন- ‘মুক্তিযুদ্ধের সেরা কিশোর গল্প’ সম্পাদনার জন্য এই সম্মাননা দেওয়া হচ্ছে, যেটা আমি আমার স্মৃতি হয়ে যাওয়া আব্বাকে উৎসর্গ করেছিলাম। এই মুহুর্তে তাঁকে খুব মনে পড়ছে। আর কিছুই বলার নেই।” সত্যিকারের মানুষ আর ভালো কিছু করার প্রত্যাশায় সকল শুভানুধ্যায়ীর কাছে দোয়া চায় আবিদ।

উল্লেখ্য, সম্প্রচার সাংবাদিকতায় বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ ‘বিবিএফ-ইয়ূথ ইনোভেশন এ্যাওয়ার্ড-২০১৮ ছাড়াও আবিদ আজমের ঝুঁলিতে রয়েছে লাটাই ছড়া পুরস্কার, সাহিত্য প্রণোদনা পুরস্কার, ষ্টার ভয়েজ সম্মাননা, খেলাঘর সম্মাননা, প্রথম আলো কৃতি ছাত্র সংবর্ধনা ইত্যাদী।