মাথা ব্যাথা থেকে মুক্তির উপায়

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১২:০৭ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৮, ২০১৯ | আপডেট: ১২:০৭:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৮, ২০১৯

জীবনে কখনো মাথা ব্যথায় ভোগেননি এমন লোক হয়তো খুঁজে পাওয়া মুশকিল। বিভিন্ন কারণে মাথা ব্যথা হয়। এর মধ্যে রয়েছে, দুশ্চিন্তা, মাইগ্রেন, অতিরিক্ত ধূমপান, ব্যথানাশক ওষুধের বেশি ব্যবহার, শরীরের পানি শূন্যতা ইত্যাদি।

মাথা ব্যথা থেকে মুক্তি পেতে অনেকেই ওষুধ সেবন করেন। তবে ওষুধ সেবনের আগে কিছু ঘরোয়া পদ্ধতি আছে, যেগুলো পালন করলে মাথা ব্যথা থেকে কিছুটা মুক্তি পাওয়া যাবে।

মাথা ব্যাথা বনাম মাইগ্রেইনঃ

মাথায় চাপ সহ ব্যাথা ও অস্বস্তিকর অনুভুতিকেই মাথা ব্যাথা বলা হয়। এ ব্যাথা হালকা থেকে তীব্র ধরনের হয়ে থাকে। সাধারণত মাথার ব্যাথা কপালে, মাথার দুপাশে, তালুতে, মাথার পেছনে ও ঘাড়ে হয়ে থাকে। এ ব্যাথা কয়েক ঘণ্টা হতে কয়েকদিন পর্যন্ত স্থায়ী হয়। মাথা ব্যাথা নানা ধরনের হয়ে থাকে তার একটি হচ্ছে মাইগ্রেইন।

মাথা ব্যাথা প্রকারঃ

সাইনাস জনিত মাথা ব্যাথাঃ
সাইনাসের কারণে মাথাব্যাথায়, ব্যথা দু গালের হাড়ের উপর, নাকের গোঁড়া সহ চোখের উপরে দু ভুরূর উপর বিস্তার করে।

ক্লাস্টার মাথা ব্যাথাঃ
এ ধরনের ব্যাথা যে কোন একটি চোখ জুড়ে ব্যাথা হয়। চোখের ভিতর ও চারধার জুড়ে ব্যাথা হয়।

টেনশন মাথা ব্যাথাঃ
মাথার ব্যাথা এমন যে মনে হয় কপাল হতে মাথার পেছন পর্যন্ত প্রচণ্ড চাপ দিয়ে আছে এমন ব্যাথা। মাথার চারিদিকে কিছু দিয়ে বেঁধে রাখলে ভাল লাগে।

মাইগ্রেইনঃ
মাথা ব্যাথা সাথে বমি বমি ভাব, শব্দ অসহ্য, মাথা ব্যাথাকালিন দৃষ্টি ঝাপসা বা ঘোলা হয় বা চোখের সামনে উজ্জল ফুলকি মত বা কালো কালো বিন্দু দেখা যায়। কখনো দৃষ্টি বিভ্রম হয়।

মাথার যে কোন অর্ধেক অংশের ব্যাথাকে মাইগ্রেইন বলা হয়। সাধারণত মাইগ্রেইনের ব্যাথা, দপদপানি ব্যাথা বা বিট বিশিষ্ট ব্যাথা। মাথা ব্যাথা যে সব সময় কিছু অংশ জুড়ে বা অর্ধেক অংশ জুড়ে থাকে তা নয়। কোন কোন ক্ষেত্রে প্রথমে মাথার অর্ধেক অংশ জুড়ে ব্যাথা থাকে পরে তা সমস্ত মাথা জুড়ে হয়। মাথা ব্যাথা কয়েক ঘণ্টা হতে কয়েক দিন পর্যন্ত স্থায়ী হয়।বেশীর ভাগ ক্ষেত্রে মাথা ব্যাথা সকালে ঘুম ভাঙ্গার পর হতে শুরু হয় এবং দিন বাড়ার সাথে সাথে ব্যাথাও বাড়তে থাকে।এ সময় শব্দ, আলো অসহ্য মনে হয়। তবে অল্প কিছু মাইগ্রেইনের রোগীর ব্যথা চলাকালে চোখের সামনে আলোর স্ফুরণ বা ফুলকি মত দেখা যায়, কারোবা মাইগ্রেইনেরসময় দৃষ্টি ঝাপসা দেখা যায়।কিছু না খেলে ভাল বোধ হয়। বমি বমি ভাব, মুখে তিতা স্বাদ ও কোষ্ঠকাঠিন্যও থাকে।কারো কারো কয়েক সপ্তাহ পর পর কয়েক দিন মাইগ্রেইন হয়, কারো কয়েক মাস পর পর হয়।

মাথা ব্যাথা থেকে মুক্তির জন্য অনেকেই ব্যাথানাশক ঔষধ খেয়ে থাকেন। কেউবা শরণাপন্ন হন চিকিৎসকের কাছে। কিন্তু অতিরিক্ত ব্যাথা নাশক ঔষধ স্বাস্থ্যের পক্ষে ভালো নয়। এই ঔষধে রয়েছে মারাত্মক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া। তাই এ সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে আপনাদের সুবিধার্থে ৭ টি প্রাকৃতিক উপায় উল্লেখ করা হলো।

১)পানি

বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই শরীরে পানির অভাবে মাথা ব্যাথা করে থাকে। মাথা ব্যাথা শুরু হলে প্রথমেই ১ গ্লাস পানি পান করুন। এরপর ধীরে ধীরে, অল্প অল্প করে পানি পান করতে থাকুন। এই সময়ে অন্য কোনো পানীয় পান করবেন না।

২) আইস প্যাক

মাথা ব্যাথা শুরু হলে মাথার উপর আইস প্যাক ধরে রাখুন। তবে যাদের অল্পতেই ঠান্ডা লাগার প্রবণতা রয়েছে তাদের জন্য এ পদ্ধতিটি নয়।

৩) লেবু

লেবু শরীরের অ্যাসিড-অ্যালকালির মাত্রা ঠিক রাখে। মাথা ব্যথা করলে, হালকা গরম পানিতে পাতি লেবুর রস মিশিয়ে খেয়ে নিন। এতে আপনার মাথা ব্যাথা কমে যাবে।

৪) আপেল

অল্প পরিমাণ লবণ ছিটিয়ে এক টুকরো আপেল খেয়ে নিন। এতে আপনার মাথা ব্যাথা অনেকাংশই কমে যাবে।

৫) মেন্থল

মাইগ্রেনের ব্যথা দূর করতে আদর্শ হচ্ছে মেন্থল। মাথা ব্যাথা দূর করতে অনেক আগে থেকেই মেন্থল ব্যবহার করা হয়।

৬) লেবুর খোসা

২ থেকে ৩ টি লেবুর খোসা কেটে আলাদা করে নিন। তারপর লেবুর খোসা বেটে ঘন পেস্টের মতো তৈরি করে বামের মতো কপালে লাগান। এতে আপনার ব্যাথা দূর হয়ে যাবে।

৭) গ্রিন টি

গ্রিন টী এর অ্যান্টিইনফ্লেমেশন এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান খুব দ্রুত মাথাব্যথার হাত থেকে মুক্তি দেয়। এই চা পান করার মাধ্যমে অল্প সময়ের মাধ্যে আপনার মাথা ব্যাথা দূর হয়ে যাবে।

 

স্বাস্থ্যবিষয়ক ওয়েবসাইট টপটেন হোম রেমিডি জানিয়েছে দ্রুত মাথা ব্যথা থেকে রেহাই পাওয়ার কিছু ঘরোয়া উপায়।

আদা

  • আদা মাথার রক্তনালির প্রদাহ কমাতে সাহায্য করবে। এতে মাথা ব্যথা কমবে।
  • সমপরিমাণ আদার রস ও লেবুর রস মিশিয়ে খান।  মাথা ব্যথা থাকলে দিনে দুই থেকে তিনবার এটি খেতে পারেন।
  • এক চা চামচ শুকনো আদা গুঁড়ো, দুই টেবিল চামচ পানির মধ্যে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এটি কয়েক মিনিটের জন্য কপালে লাগিয়ে রাখুন। এতে ব্যথা কমবে।
  • এ ছাড়া আদা গুঁড়ো বা  কাঁচা আদা সিদ্ধ করতে পারেন। এবার এই সিদ্ধ পানিতে ভাপ নিন।
  • এ ছাড়া ম্যথা ব্যথা দূর করতে দুই টুকরো আদার ক্যান্ডিও চিবুতে পারেন।

পুদিনা পাতার রস

  • পুদিনা পাতায় রয়েছে ম্যানথল ও ম্যানথন। এই উপাদানগুলো মাথা ব্যথা দূর করার জন্য খুব উপকারী।
  • এক মুঠো পুদিনা পাতা নিন। পাতা থেকে রস বের করুন। এই রস কপালে মাখুন।
  • এ ছাড়া পুদিনার চাও খেতে পারেন।

বরফের প্যাক

  • বরফ প্রদাহ দূর করতে সাহায্য করবে। পাশাপাশি এটি ব্যথা উপশম করবে।
  • বরফের প্যাক ঘাড়ে দিন। এতে মাইগ্রেনের ব্যথা অনেকটা উপশম হবে।
  • এ ছাড়া একটি ধোয়া তোয়ালে বা কাপড়ের টুকরো বরফঠান্ডা পানিতে ভেজান। এটি মাথায় পাঁচ মিনিট রাখুন। দিনে কয়েকবার এটি করতে পারেন। তবে যাদের ঠান্ডার সমস্যার রয়েছে তারা এটি না করলেই ভালো।
[sharethis-inline-buttons]