জমকালো আয়োজনে অনুষ্ঠিত হলো ’সুবর্ণচর উপজেলা সমিতি’র বার্ষিক বনভোজন ২০১৯

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৬:৩৬ অপরাহ্ণ, মার্চ ২৩, ২০১৯ | আপডেট: ৬:৪৩:অপরাহ্ণ, মার্চ ২৩, ২০১৯

মো: আলাউদ্দিন: ২২ মার্চ সকাল ১০ টায় বন্দর নগরী চট্রগ্রামে অবস্থিত ফয়েস’লেক“ সী ওয়ার্ল্ডে’ সকল সদস্য, আমন্ত্রিত অতিথিদের পারিবারিক আড্ডা ও ছোটদের নাচ,গান, কবিতা আবৃত্তিসহ র‌্যফেল ড্র,পুরস্কার বিতরণ ও জমকালো সাংস্কৃতিক সন্ধ্যার মধ্যদিয়ে পালিত হলো চতুর্থ প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষ্যে সুবর্ণচর উপজেলা সমিতি,চট্টগ্রাম এর বার্ষিক বনভোজন-২০১৯।
সকাল থেকে আমন্ত্রিত ছোট বড় সকলে সী ওয়ার্ল্ডে বিভিন্ন রাইডে আনন্দে মেতে উঠেন, কেউবা হারিয়ে যান প্রকৃতির অপরুপ সৌন্দর্য্যে দৃশ্য সেলফি তোলা, আড্ডা দেয়া সাথে উচ্চ আওয়াজে মিউজিক এবং গান যেন তাদের বনভোজনকে করেছে আরো মনোমুগ্ধকর।

 

দুপুরের পূর্বেই একে একে অনুষ্ঠান স্থলে আসেন অতিথিরা, কুশল বিনিময়, বিভিন্ন টেলিভিশনে সাক্ষাতকার সহ আলাপ চারিতায় মেতে উঠেন সবাই, সব রাজৈনতিক হিংসা বিবেধ ভুলে যেন সবাই মিলে মিশে একাকার। কিছুক্ষন পরেই শুরু হলো দুপুরের খাওয়ার প্রস্ততি, বিরিয়ানির ঘ্রানে আর রোষ্টের গন্ধে যেন মাতোয়ারা সবাই। যে যার মত করে নিজ ঘরের আপন মানুষের মত একে অন্যকে আপ্যায়ন দেখেই বুঝা যায় সুবর্ণচরবাসী একে অন্যর কতটা আপন। খাওয়ার মাঝে মাঝে খোশগল্পও ছিল দারুন উপভোগ্য। খাওয়া শেষে তৃপ্তির ডেকুর যেন এখনো স্মরণ করছে সবাই।

 

সবার মুখে হাঁসি ফোটাতে নিজের নাওয়া খাওয়া ভুলে নিজেই দাঁড়িয়ে সবার খেদমতে নিয়োজিত ছিলেন সুবর্ণচর উপজেলা সমিতির কর্ণধার আবু জাফর মোহাম্মদ ওমর ফারুক এবং সমিতির সিনিয়র সহ-সভাপতি অহিদের রহমান নয়ন, কিছুক্ষন পরপর তাদের অসাধারণ হাঁসিতেই প্রমাণ করলেন নিজ দায়িত্বের প্রতি কতটা শ্রদ্ধাশীল। খাওয়া শেষে শুরু হলো তৃতীয় পর্ব, স্বেচ্চায় শিশু কিশোরের অংশ গ্রহণে নাচ,গান কবিতা আবৃত্তি, নৃত্য যেন মাতোয়ারা সবাই, এক পাশে দেখা গেলো লাকি কুপন বিক্রির ধুম। চারিদিকে লক্ষ্য করলে মনে হবে সবাই যেন ঈদের আনন্দ উপভোগ করছে।

 

দুপুরের খাওয়া পর পরই “সুবর্ণচর উপজেলা সমিতি চট্রগ্রাম” এর সভাপতি আবু জাফর মোঃ ওমর ফারুক সভাপতিত্বে এবং সমিতির সিনিয়র সহ-সভাপতি অহিদের রহমান নয়ন ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মো: সোহরাব হোসেন এর সঞ্চালনায় আমন্ত্রিত অতিথি, জীবন সদস্য ও কার্যনির্বাহী সদস্যদের পরিচয়পর্ব শেষে শুভেচছা বক্তব্য রাখেন-সুবর্ণচর উপজেলা চেয়ারম্যান ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ, নোয়াখালী জেলা সভাপতি অধ্যক্ষ এ.এইচ.এম খায়রুল আনম চৌধুরী (সেলিম), বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)’র নির্বাহী কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীম, সুবর্ণচর উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও নোয়াখালী জেলা বারের সভাপতি এডভোকেট এবিএম জাকারিয়া, সুবর্ণচর উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি, এডভোকেট ওমর ফারুক, চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের চেয়ারম্যান ড. কামাল উদ্দিন। তাঁরা তাদের বক্তব্যে সুবর্ণচর উপজেলার বিভিন্ন সমস্যা ও সম্ভাবনা তুলে ধরে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রাখেন এবং নিজ গ্রামের মানুষদের এক সাথে হতে পেরে সবাই খুশিতে মেতে ওঠেন । এ সুযোগে একে অন্যের সুখ-দুঃখের খোঁজ খবর নিচ্ছেন। পুরো সী ওয়ার্ল্ড জুড়ে যেন শুধু সুবর্ণচরের গুঞ্জন। এ যেন ব্যস্ততম চট্টগ্রাম শহরের বুকে একখন্ড প্রিয় সুবর্ণচর।

 

এছাড়াও আমন্ত্রিত অতিথিদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন-২ নং চরবাটা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান মোজাম্মেল হোসেন মোজাম, ৩ নং চরক্লার্ক ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আবুল বাসার ডিপটি, ৮ নং মোহাম্মদপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কালাম আযাদ, সুবর্ণচর উপজেলা যুবদলের সভাপতি মীর নিজাম উদ্দিন ফারুক, সাধারন সম্পাদক বেলাল উদ্দিন সুমন, নোয়াখালী জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আজগর উদ্দিন দুখু।

 

বার্ষিক বনভোজনে সুবর্ণচর উপজেলা সমিতি চট্রগ্রাম উপদেষ্টা নুরুল আনোয়ার বকুল, কায়সার মালিক, সহ সভাপতি ফিরোজ মাহমুদ, নাজিম উদ্দিন ফারুক, সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল গণি, অর্থ সম্পাদক এনামুল হক ভুঁইয়া, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক মো: মাহফুজুর রহমান, দপ্তর সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেন,ছাত্র বিষয়ক সম্পাদক সফিকুল ইসলাম সাজু, কার্যনির্বাহী সদস্য মো: আশরাফ উদ্দিন, জীবন সদস্য রাউজান থানার সেকেন্ড অফিসার মো: নুর নবী, পিবিআই ইন্সপ্টের নুর আহ্মদ বাবুল,আজিম গ্রুপের মার্কেটিং এক্সিকিউটিভ মো: মনির উদ্দিন, ইব্রাহীম খলিল, হারুনুর রশিদ, আবদুল্যাহ আল ফারুক, মো: ইকবাল হোসেন রুবেল, আনোয়ার হোসেন, আবদুল্লাহ আল মামুন কচি, হেলাল উদ্দিন, বাকের উল্যাহ, সানাউল্যাহ, জাবেদ রহিম,এনামুল হক প্রমূখ ।
সন্ধ্যা নামতেই বিশাল পরিসরে সাজানো স্টেজে উঠে পড়লেন দেশ সেরা একাধিক কণ্ঠশিল্পিরা হিট হিট সব জনপ্রিয় গান গেয়ে পুরো অনুষ্ঠানকে জমিয়ে তুলেছেন, গানের চন্দে নাচতে ভুলেননি সমিতির দায়ীত্বরতরাও, একঝাঁক শিশু কিশোরের সাথে বড়দের উন্মাদনায় মেতে উঠলো সবাই।

 

রাত ৮টায় শুরু হলো বুক ধড়পড় করা সেইক্ষন, র‌্যাফেল ড্রয়ের কুপন তোলার কাজ, একে একে নানা ভঙ্গিতে ঘোষকের দায়িত্বে থাকা সমিতির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মো: সোহরাব হোসেন বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করে একে একে পুরস্কার তুলে দেন সবার মাঝে । বিভিন্ন ইভেন্টে অংশ গ্রহনকারীরাও পান পুরস্কার জেতার স্বাদ।