আজ ‘জাতীয় স্কার্ফ দিবস’ উদযাপন করবে নিউজিল্যান্ড

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১:০৬ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ২২, ২০১৯ | আপডেট: ১:০৬:পূর্বাহ্ণ, মার্চ ২২, ২০১৯

নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে দুটি মসজিদে জুমার নামাজরত মুসলিমদের ওপর হামলায় হতাহতদের প্রতি সংহতি জানিয়ে আজ শুক্রবার ‘জাতীয় স্কার্ফ দিবস’ উদযাপন করবে দেশটির জনগণ।

পাকিস্তানের শীর্ষস্থানীয় গণমাধ্যম দ্য নিউজ বৃহস্পতিবার প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে এই তথ্য জানায়।

দেশটির মুসলিমদের পাশে দাঁড়াতে কিউই নারীদেরকে এদিন স্কার্ফ পরার আহ্বান জানিয়েছে ‘স্কার্ভস ইন সলিডারিটি’ নামের একটি সংগঠন।
দেশব্যাপী এই আয়োজনের অন্যতম সংগঠক হলেন অ্যানা থমাস নামের এক নারী। ইতোমধ্যে অনলাইনে কয়েকশ’ মানুষ এই উদ্যোগকে সমর্থন জানিয়ে কমেন্ট করেছে।

স্থানীয় এক টেলিভিশন চ্যানেলে প্রচারিত ম্যাজিক টক নামের একটি অনুষ্ঠানের উপস্থাপক সিয়ান প্লানকেটকে অ্যানা থমাস জানান, তারা বোঝাতে চান যে এদেশের মুসলিমরা একা নয়।

তিনি বলেন, নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে শুক্রবার আমরা স্কার্ফ পরবো। যে নারীরা হিজাব পরে নিউজিল্যান্ডের রাস্তায় বের হয়, তারা বর্ণবাদী হামলার আশঙ্কায় থাকে। তাই এদেশের সব নারী হিজাব পরলে তাদের এই আশঙ্কা অনেকাংশে দূর হয়ে যাবে। তারা মনে করবে আমরা সবসময় তাদের পাশে আছি।

ইসলামিক উইমেন’স কাউন্সিলের সদস্য নাসরিন হানিফের সঙ্গে এই বিষয়ে কথা বলেছেন তিনি। নাসরিন হানিফ এই বিষয়ে তার সঙ্গে একমত পোষণ করেছেন।

নাসরিন হানিফ তাকে বলেন, এতে মনে হবে নিউজিল্যান্ডের সব মানুষ আমাদের কষ্টে পাশে আছে। আপনার এই চিন্তাভাবনার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ জানাই। এদেশের মুসলিম সম্প্রদায়ের প্রতি সংহতি জানানোর সবচেয়ে ভালো উপায় হবে এটি।

এর আগে গত শুক্রবার দেশটির ক্রাইস্টচার্চ শহরের আল নূর এবং লিনউড মসজিদে পরপর হামলা করে ৫০ জনকে নিহত এবং ৫০ জনকে আহত করেছেন ব্রেনটন ট্যারেন্ট নামের এক ২৮ বছর বয়সী অস্ট্রেলীয় নাগরিক। হামলার ৩৬ মিনিট পর তাকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয় স্থানীয় পুলিশ।

নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জাসিন্ডা আরডার্ন এটাকে সন্ত্রাসী হামলা বলে উল্লেখ করেন। পরে তিনি দেশটির সংসদের একটি বিশেষ অধিবেশনে বলেন, মসজিদে হামলাকারীকে সর্বোচ্চ শাস্তি ভোগ করতে হবে। তিনি নিজে অনেক কিছু ভাবতে পারেন কিন্তু কুখ্যাতি ছাড়া আর কিছুই পাননি। তার এই ঘৃণ্য কাজের জন্য আমি কখনোই তার নাম মুখে নেবো না।