৭০ ভাগ চলচ্চিত্র ধ্বংশের মূল নায়ক শাকিবঃ রুবেল

এ আল মামুন এ আল মামুন

বিনোদন প্রতিবেদক

প্রকাশিত: ৬:৪৩ অপরাহ্ণ, মার্চ ১০, ২০১৯ | আপডেট: ৬:৪৩:অপরাহ্ণ, মার্চ ১০, ২০১৯

ঢাকাই সিনেমার বর্তমান সময় সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। বছরের প্রথম তিন মাসে ছবি মুক্তির সংখ্যা যেমন কমেছে সেই সাথে নির্মাণও কমে গেছে। পুরো তিনি মাসে এখন পর্যন্ত সিনেমার মুক্তির তালিকাটা খুব একটা দীর্ঘ নয়। বর্তমান প্রেক্ষাপট বিবেচনা করে সিনেমার এমন অবস্থা নিয়ে অনেকে অনেক কিছু দায়ি করছেন। তারপরও চলচ্চিত্র শিল্পের প্রতি অনেকে এখনও আস্থা রেখেছেন, আবার সর্ণালী দিন ফিরে আসবে।

চলচ্চিত্র বোদ্ধারা বলছেন, ক্ষমতার কাছে আজ চলচ্চিত্রের এমন দশা হয়েছে। নিজেদের মধ্যে রেশারেশি করে কয়েক দলে বিভক্ত হয়ে গেছে। যার ফলে চলচ্চিত্রের দিনদিন অবস্থা ঘুনে ধরা কাঠের মতো হয়ে ভেঙে যাচ্ছে। আসলে চলচ্চিত্রের প্রতি তাদের কোনও ভালোবাসা নেই। তারা নিজেদের সার্থে এসে চলচ্চিত্রের লেবাস কাধে নিয়ে নিজেদের পরিচয় ও আর্থিক লাভবান হয়। অন্যদিকে ক্ষমতা নামের বিষধর সাপ দিয়ে চলচ্চিত্র শিল্পটা ধ্বংস করে দিচ্ছে।

রুবেল জানান, চলচ্চিত্রে কাজের পরিবেশ সংকীর্ণ হয়ে এসেছে। এখানে ভিনদেশি শিল্পী ও ব্যবসায়ীদের দৌড়াত্ম বেড়েছে। সবশেষ শাকিবের হাত ধরে ভারতীয় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ভেঙ্কটেশ ফিল্মস বাংলাদেশে অনুপ্রবেশ করেছে।

বাংলা সিনেমার বর্তমান অবস্থা নিয়ে ‘লড়াকু’ খ্যাত চিত্রনায়ক রুবেল বলেন, ‘আমি বাংলা চলচ্চিত্র নিয়ে বলতে গেলে অনেক কিছু ওঠে আসবে। বাংলা সিনেমা অব্যশই ভালো একটা জায়গায় যেতো। যদি আমাদের মধ্যে সমন্বয় থাকতো। আর এই সমন্বয়হীনতা তৈরি করেছেন শাকিব খান। তাই বলবো চলচ্চিত্র শিল্পের বর্তমান অবস্থার জন্য আমি শাকিব খানকে দায়ি করবো। ৭০ ভাগ চলচ্চিত্র ধ্বংশের মূল নায়ক শাকিব।

কেনও শাকিব খানকে দায়ি করছেন? জানতে চাইলে তিনি জানান, শাকিব খান যদি এই চলচ্চিত্র শিল্পকে ভালো বাসতো তাহলে আজ এমন দশা হতো না। শাকিবের জন্য চলচ্চিত্রে বিভিন্ন পরিচালকের সাথে দ্বন্দ্ব, সিনিয়র শিল্পীদের মধ্যে দ্বন্দ্ব সব ক্ষেত্রে শাকিবের সার্থলোভী এন্ট্রি চলচ্চিত্রের ক্ষতির কারণ হয়ে যাচ্ছে। শাকিব যদি সিনিয়র জুনিয়র শিল্পীদের মধ্যে সমস্বয় রাখতো তাহলে এমন হতো না।

মাসুম পারভেজ রুবেল সবশেষে বলেন, দেশের চলচ্চিত্র রক্ষার ক্ষেত্রে সরকারই পারে মুখ্য ভূমিকা রাখতে। ‘সরকার চাইলে তিন মাসের মধ্যে পরিস্থিতি আমাদের অনুকূলে নিয়ে আসবে। আমি সব সময় চলচ্চিত্রের স্বার্থে কাজে করেছি, ভবিষ্যতেও করবো। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত দেশের জন্য লড়াই করবো।’