বরিশালে পাসপোর্ট অফিসে ৭১ ভাগ সেবাগ্রহীতা অনিয়ম-দুর্নীতি-হয়রানীর শিকার

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৯:৪৫ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৩০, ২০১৭ | আপডেট: ৯:৪৫:অপরাহ্ণ, নভেম্বর ৩০, ২০১৭
বরিশালে পাসপোর্ট অফিসে ৭১ ভাগ সেবাগ্রহীতা অনিয়ম-দুর্নীতি-হয়রানীর শিকার

বরিশাল : বরিশাল পাসপোর্ট অফিসের সেবায় বিদ্যমান অনিয়ম, হয়রানি ও দুর্নীতি চিহ্নিত করে গবেষণা প্রতিবেদনে বলা হয় যে, জরিপের অন্তর্ভুক্ত সেবাগ্রহীতাদের ৭১.১% পাসপোর্ট সেবায় অনিয়ম, হয়রানি ও দুর্নীতির শিকার হয়েছে। পাসপোর্ট অফিসের সেবায় নির্ধারিত ফি’র বাইরে ঘুষ বা নিয়ম-বর্হিভূত অর্থ দেওয়ার গড় পরিমান ১৮৫৪ টাকা। নতুন পাসপোর্ট আবেদনে সেবাগ্রহীতাদের ৮৯.৪% পুলিশী তদন্তে অনিয়ম ও দুর্নীতির শিকার এবং তাদের সকলকে ঘুষ বা নিয়ম-বর্হিভূত অর্থ হিসেবে গড়ে ৮৯৬ টাকা দিতে হয়েছে। বরিশাল বিভাগীয় পাসপোর্ট ও ভিসা অফিসের পাসপোর্ট সেবায় সুশানের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায় শীর্ষক ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) গবেষনা প্রতিবেদনের ওপর এক সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য তুলে ধরা হয়। পাশাপাশি পুলিশ প্রতিবেদন প্রণয়নে পুলিশের স্পেশাল ব্রাঞ্চ (এসবি) কর্তৃক আবেদনপত্রে অযথা ত্রুটি খুঁজে বের করার চেষ্টা, জঙ্গি কার্যক্রম বা অন্য রাজনৈতিক দলের সাথে সম্পৃক্ততার ভয় দেখানো, বাড়িতে না এসে চায়ের দোকান বা থানায় ডেকে পাঠানো, নিয়ম-বর্হিভূত অর্থ বা ঘুষ দাবি করার বিভিন্ন অভিযোগ উঠে এসেছে গবেষণা প্রতিবেদনে। এছাড়া, পাসপোর্ট বিতরণে ৩২.৩% সেবাগ্রহীতার নির্ধারিত দিনে পাসপোর্ট পেতে বিলম্ব হয়েছে। বিলম্বের গড় মাত্রা ছিল ৮ দিন। বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১ টায় নগরের সদর রোডের বিডিএস মিলনায়তনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন টিআইবি’র রিসার্চ অ্যান্ড পলিসি অ্যাসিট্যান্ট মো. আলী হোসেন। গবেষণা অনুযায়ী জরিপের আওতাভুক্ত বরিশাল পাসপোর্ট অফিসের সেবাগ্রহীতাদের ৫৬.৩% দালাল বা অন্যের সহযোগিতা নিয়েছে। দালালদের একাংশ পাসপোর্ট অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও এসবি পুলিশের একাংশের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করে। পাসপোর্ট প্রার্থীদের কাছ থেকে দালালরা যে অতিরিক্ত অর্থ গ্রহণ করে তার একটি অংশ পাসপোর্ট অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও এসবি পুলিশের একাংশকে প্রদান করে থাকে। বরিশাল পাসপোর্ট অফিসের দালালির সাথে স্থানীয় নামধারী সাংবাদিক, পুলিশের একাংশ ও স্থানীয় প্রভাবশালী মহলের একাংশ জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। যারা দালালের সহযোগিতা নিয়েছে তাদের ৭২.১% বিভিন্ন ঝামেলা ও ভোগান্তি (যেমন-দীর্ঘ লাইন, একাধিকবার আসা ইত্যাদি) এড়িয়ে চলা, ৬২.৯% দালালের সহযোগিতা ছাড়া আবেদনপত্র জমা দিলে কর্তৃপক্ষ জমা নেয় না, ৩৬.৫% নিয়মকানুন সম্পর্কে না জানার কারণে সহযোগিতা গ্রহণ, ১১.৭% নির্ধারিত সময়ের পূর্বে পাসপোর্ট পাওয়ার জন্য, ৬.১% পুলিশী তদন্তে হয়রানি এড়ানোর জন্য এবং ৪.৬% সময়ের অভবে দালালের সহায়তা নেওয়ার কারণ হিসেবে উল্লেখ্য করেছেন। সংবাদ সম্মেলনে উপরোক্ত গবেষনার প্রেক্ষিতে বরিশাল পাসপোর্ট অফিসের অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারী ও দালাল চক্রকে শাস্তির আওতায় আনা, সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা, পুলিশের সাথে নিয়মিত সমন্বয় করা সহ ১৩ দফা সুপারিশ উপস্থাপন করেন টিআইবি’র অনুপ্রেরনায় গঠিত বরিশাল সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক)। বিভাগীয় পাসপোর্ট ও ভিসা অফিস বরিশালের পাসপোর্ট সেবার বিভিন্ন ধাপে বিদ্যমান অনিয়ম ও দুর্নীতিসমূহ চিহ্নিতকরণের পাশাপাশি পাসপোর্ট সেবায় সুশাসন নিশ্চিতে বরিশাল পাসপোর্ট অফিসে প্রয়োজনীয় জনবল, অবকাঠামো ও লজিস্টিকসের সরবরাহ নিশ্চিতকরণ, আবেদনপত্র সত্যায়ন, প্রত্যয়ন ও পুলিশ প্রতিবেদনের বিধান বাতিল এবং দালালের দৌরাত্ম্য নিমূর্লসহ ১৩ দফা সুপারিশ উত্থাপন করেছে সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাক)। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বরিশাল সনাক সভাপতি অধ্যক্ষ গাজী জাহিদ হোসেন, সনাক সদস্য প্রফেসর এম মোয়াজ্জেম হোসেন (যুগ্ম সচিব-অব:), অ্যাড. মানবেন্দ্র বটব্যাল, প্রফেসর শাহ সাজেদা, নূরজাহান বেগম, সাইফুর রহমান মিরণ, শুভংকর চক্রবর্তী এবং টিআইবি’র গবেষণা ও পলিসি বিভাগের প্রোগ্রাম ম্যানেজার মো. শাহ্নূর রহমান।