নতুন তিন ব্যাংক সম্পর্কে জানেন না অর্থমন্ত্রী

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৩:০৯ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০১৯ | আপডেট: ৩:০৯:অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০১৯

সদ্য অনুমোদন পাওয়া বেসরকারি তিনটি ব্যাংক (পিপলস, সিটিজেন, বেঙ্গল) সর্ম্পকে জানেন না অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল। সোমবার সচিবালয়ে ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকের আগে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল বলেন, এই মুহূর্তে আমি নতুন তিন ব্যাংক নিয়ে পুরোপুরি অবহিত নই। তাই কোনো কথা বলবো না। তিনটি ব্যাংক সম্পর্কে আগে আমাকে জানতে হবে। আমি এখনও ভালো জানি না। সংশ্লিষ্ট অফিসারদের সঙ্গে আলাপ করে বিস্তারিত তথ্য জেনে নেবো। তারপর আপনাদের জানাবো। তবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক যেহেতু অনুমোদন দিয়েছে তাদের প্রয়োজন না থাকলে এ কাজ করতো না। কেন্দ্রীয় ব্যাংক হয়তো প্রয়োজন অনুভব করেই অনুমোদন দিয়েছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক এবং সংশ্লিষ্ট যারা আছেন তারা সম্পূর্ণ বিচার বিশ্লেষণের ভিত্তিতেই নতুন ব্যাংকগুলোর অনুমোদন দিয়েছে বলেও দাবি করেন অর্থমন্ত্রী।

আগের অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত জানিয়েছিলেন, দেশে যে ব্যাংক আছে আমাদের আর নতুন কোনো ব্যাংকের দরকার হবে না। সাংবাদিকরা এ বিষয়টি উল্লেখ করলে আ হ ম মোস্তফা কামাল বলেন, বাংলাদেশে কতগুলো ব্যাংক আছে এটি বড় বিষয় নয়। ব্যাংকগুলো যদি নিয়ম মেনে হলে, যে উদ্দেশ্যে ব্যাংক সেভাবে যদি চলে তাহলে তো সংখ্যা নিয়ে আমি চিন্তিত নয়।

তিনি আরো বলেন, ব্যাংকগুলোর সঙ্গে আমরা কথাবার্তা বলছি, তাদের কিছু শর্ত দেওয়া হবে। আমাদের প্রধান বিষয় ক্লাসিফায়েড লোন। এই ক্লাসিফায়েড লোন থেকে আমরা কীভাবে অব্যাহতি পেতে পারি সে বিষয়ে কথা বলব। ব্যাংকগুলোতে ইন্টারেস্ট কমাতে হবে। ক্লাসিফায়েড লোনগুলোয় হাত দিতে হবে।

ব্যাংকের আমানত ৪০০ কোটি টাকার পরিবর্তে ৫০০ কোটি টাকা হয়েছে সে বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, সেফটি রেট বড় হয়েছে। সেটি আরও ভাল খবর।

খেলাপিঋণের বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, খেলাপিঋণ দীর্ঘদিন ধরেই হয়ে আসছে। এসব খেলাপিঋণ থেকে কিভাবে অব্যহতি পেতে পারি সে বিষয়ে আমরা কথা বলছি। আমার মনে হয়, আমরা একটি সমাধানে আসতে পারবো। খেলাপিঋণ যতই বেড়ে যায় ততই ব্যাংকের খরচ বেড়ে যায়, ব্যাংক সুদ হার বেড়ে যায়। এটা আমাদের কমাতে হবে। এটা কমাতে শিগগিরই বিশেষ অডিটের ব্যবস্থা করা হবে বলেও জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, গতকাল রোববার বেসরকারি খাতে নতুন করে আরো তিনটি ব্যাংকের অনুমোদন দেওয়ার নীতিগত সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। ব্যাংক তিনটি হলো- বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংক, সিটিজেন ব্যাংক ও পিপলস ব্যাংক।

নতুন অনুমোদন পাওয়া বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংকের প্রস্তাবিত চেয়ারম্যান হিসাবে রয়েছেন এফবিসিসিআইয়ের সাবেক জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি জসীম উদ্দিন। তিনি বেঙ্গল গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান। এছাড়া ব্যাংকটির পরিচালক হিসেবে রয়েছেন জসীম উদ্দিনে ভাই আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য মোরশেদ আলম।

সিটিজেন ব্যাংকের প্রস্তাবিত চেয়ারম্যান আইনমন্ত্রী আনিসুল হকের মা জাহানারা হক। আর পিপলস ব্যাংকের চেয়ারম্যান হিসেবে নাম প্রস্তাব করা হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী আওয়ামী লীগ নেতা এম এ কাশেমকে।

বর্তমানে দেশে ব্যাংকের সংখ্যা ৫৯। এর মধ্যে ৪১টি বেসরকারি খাতের, ৯টি রাষ্ট্রায়ত্ত ও ৯টি বিদেশি মালিকানার ব্যাংক ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালনা করছে। নতুন তিনটি ক্যাংক যথাক্রমে বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংক, সিটিজেন ব্যাংক ও পিপলস ব্যাংক এই তিনটি ব্যাংক অনুমোদন দেওয়ার ফলে বর্তমানে দেশে মোট ব্যাংকের সংখ্যা দাঁড়াল ৬২টি।

টানা তিন মেয়াদ ক্ষমতায় থাকা আওয়ামী লীগ সরকার প্রথম মেয়াদে ২০০৯ সালে নয়টি নতুন ব্যাংকের অনুমোদন দেয়। পরবর্তী সময়ে ‘সীমান্ত ব্যাংক’ নামের আরেকটি ব্যাংকের অনুমোদন দেওয়া হয়।

সর্বশেষ গত জুলাই মাসে বিশেষায়িত প্রবাসী কল্যাণ ব্যাংককে বাণিজ্যিক লেনদেনের অনুমোদন দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। নতুন ব্যাংকগুলোর মধ্যে ফারমার্স ব্যাংকসহ বেশ কয়েকটি ব্যাংকের অবস্থা খুবই নাজুক।