১০ মার্চ যে ৮৭ উপজেলায় ভোট

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১০:০৫ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৪, ২০১৯ | আপডেট: ১০:০৫:পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৪, ২০১৯

প্রথম ধাপে দেশের ৮৭টি উপজেলায় আগামী ১০ মার্চ ভোট গ্রহণের দিন নির্ধারণ করে তফসিল ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন ১১ ফেব্রুয়ারি, যাচাই-বাছাই ১২ ফেব্রুয়ারি ও মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ১৯ ফেব্রুয়ারি নির্ধারণ করা হয়েছে। রোববার কমিশন সভায় এ তফসিল অনুমোদন করা হয়।
সভা শেষে এসব তথ্য সাংবাদিকদের জানান ইসি সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ। তিনি বলেন, পাঁচ ধাপে সারা দেশের উপজেলাগুলোতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। উপজেলা পরিষদ নির্বাচন সুষ্ঠু করতে সব ধরনের পদক্ষেপ নেবে ইসি। এ নির্বাচনে সব রাজনৈতিক দল অংশ নেবে এমনটাই প্রত্যাশা করেন তিনি। উপজেলা পরিষদ প্রতিষ্ঠার পর এবার পঞ্চমবারের মতো নির্বাচন হতে যাচ্ছে।

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রতীকে ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। যদিও বিএনপি, জাতীয় ঐক্যফ্রন্টসহ কয়েকটি রাজনৈতিক দল এ নির্বাচনে অংশ নেবে না বলে আগেই জানিয়েছে। অপরদিকে আওয়ামী লীগ চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনোনয়ন দিলেও ভাইস চেয়ারম্যান ও সংরক্ষিত মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে কাউকে মনোনয়ন দেয়া হবে না। এ দুটি পদ ‘উন্মুক্ত’ রাখার কথা জানিয়েছে দলটি।

 

এ বিষয়ে নির্বাচন কমিশন সচিব বলেছেন, আইন অনুযায়ী, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রতীকে ভোট হবে। আমরা যতটুকু জেনেছি, আওয়ামী লীগ ভাইস চেয়ারম্যান পদে কাউকে মনোনয়ন দেবে না। এটা উন্মুক্ত রাখবে। অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, এ নির্বাচনে অংশ না নেয়ার বিষয়ে বিএনপি ইসিকে কিছুই জানায়নি।

পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে রোববার বিকাল ৩টা থেকে প্রায় ৫টা পর্যন্ত চলে কমিশন সভা। প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নুরুল হুদার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সভায় অন্যান্য কমিশনার ও ইসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা অংশ নেন।

 

ইসি সচিব জানিয়েছেন, প্রথম ধাপে রংপুর, ময়মনসিংহ, সিলেট ও রাজশাহী বিভাগের ১২টি জেলার ৮৭টি উপজেলায় ভোট হবে। পঞ্চগড়, কুড়িগ্রাম, নীলফামারী, লালমনিরহাট, জামালপুর, জয়পুরহাট ও রাজশাহী জেলার সব কটি উপজেলায় ১০ মার্চ ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। বাকি জেলাগুলোর মধ্যে আটপাড়া উপজেলা বাদে নেত্রকোনা, জগন্নাথপুর বাদে সুনামগঞ্জ, শায়েস্তাগঞ্জ বাদে হবিগঞ্জ, কামারখন্দ বাদে সিরাজগঞ্জ ও নলডাঙ্গা বাদে নাটোর জেলার সব কটি উপজেলায় ওইদিন ভোট হবে।

এসব জেলার যে ৫টি উপজেলা বাদ পড়েছে সেগুলো নির্বাচনযোগ্য হয়নি।

 

তিনি আরও জানান, উপজেলা পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানরা এ নির্বাচনে প্রার্থী হতে চাইলে তাদেরকে পদত্যাগ করতে হবে। এমনকি স্থানীয় সরকারের অন্যান্য প্রতিষ্ঠান যেমন সিটি কর্পোরেশন, পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদের জনপ্রতিনিধিরা উপজেলা নির্বাচনের যে কোনো পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে হলে তাদেরও পদত্যাগ করে মনোনয়নপত্র দাখিল করতে হবে। এ সময় সচিবের পাশে থাকা অতিরিক্ত সচিব মো. মোখলেসুর রহমান উপজেলা পরিষদ আইন, ১৯৯৮-এর ৮(২) ধারা উদ্ধৃত করে বলেন, এ ধারামতে জাতীয় সংসদ সদস্য ও অন্য কোনো স্থানীয় কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান বা সদস্য হলে পদত্যাগ না করে উপজেলা নির্বাচনের চেয়ারম্যানসহ তিনটি পদেরই যোগ্য হবেন না।

 

ইসি সূত্রে জানা গেছে, প্রথম ধাপের তফসিল ঘোষণা করা হলেও বাকি চার ধাপের খসড়া তফসিল খসড়া প্রস্তুত করেছে কমিশন সচিবালয়। এতে দ্বিতীয় ধাপে তফসিল ১০ ফেব্রুয়ারি ঘোষণা, মনোয়নপত্র দাখিল ১৯ ফেব্রুয়ারি, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ২৮ ফেব্রুয়ারি এবং ভোট গ্রহণ ১৮ মার্চ নির্ধারণ করা হয়েছে। তৃতীয় ধাপে তফসিল ১৬ ফেব্রুয়ারি ঘোষণা, মনোনয়নপত্র দাখিল ২৬ ফেব্রুয়ারি, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ৫ মার্চ ও ভোট গ্রহণ ২৪ মার্চ। চতুর্থ ধাপে তফসিল ২০ ফেব্রুয়ারি ঘোষণা, মনোনয়নপত্র দাখিল ৪ মার্চ, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ১২ মার্চ ও ভোট গ্রহণ ৩১ মার্চ। সর্বশেষ পঞ্চম ধাপের তফসিল ১২ মে ঘোষণা, মনোনয়নপত্র দাখিল ২১ মে, প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন ২৯ মে ও ভোট গ্রহণ ১৮ জুন নির্ধারণ করা হয়েছে।

 

আরও জানা গেছে, সভায় জানানো হয়- রোববার উপজেলা নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার সংক্রান্ত বিধিমালা আইন মন্ত্রণালয়ে ভেটিংয়ের জন্য পাঠানো হয়েছে। এটির এসআরও জারি না হওয়া পর্যন্ত উপজেলা নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করে ভোট গ্রহণ সম্ভব হচ্ছে না। এ ছাড়া নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারের প্রস্তুতিরও বিষয় রয়েছে। এসব বিবেচনায় প্রথম ধাপের নির্বাচনে এ মেশিনে ভোট গ্রহণ নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়েছে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর অনুষ্ঠেয় উপজেলা নির্বাচনে কয়েকটি রাজনৈতিক দলের অংশ না নেয়ার বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে ইসি সচিব বলেন, দলীয় প্রতীকে ভোট হলেও এটা স্থানীয় সরকার নির্বাচন। আমরা আশা করব, সব দল নির্বাচনে অংশ নেবে। তবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা বা না-করা রাজনৈতিক দলের অভিপ্রায়ের মধ্যে পড়ে।

 

প্রথম ধাপে যেসব উপজেলায় ভোট

প্রথম ধাপে আগামী ১০ মার্চ যেসব উপজেলায় ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে সেগুলোর মধ্যে রয়েছে- পঞ্চগড় জেলার সদর, আটোয়ারী, বোদা, দেবীগঞ্জ ও তেঁতুলিয়া। কুড়িগ্রাম জেলার সদর, ভুরুঙ্গামারী, ফুলবাড়ী, উলিপুর, নাগেশ্বরী, রাজারহাট, রাজিবপুর, চিলমারী ও রৌমারী। নীলফামারী জেলার সদর, ডোমার, ডিমলা, জলঢাকা, সৈয়দপুর ও কিশোরগঞ্জ। লালমনিরহাট জেলার সদর, পাটগ্রাম, হাতীবান্ধা, কালীগঞ্জ ও আদিতমারী।

 

জামালপুর সদর, সরিষাবাড়ী, মেলান্দহ, ইসলামপুর, বকশীগঞ্জ, দেওয়ানগঞ্জ ও মাদারগঞ্জ। নেত্রকোনা সদর বারহাট্টা, দুর্গাপুর, খালিয়াজুরী, কলমাকান্দা, কেন্দুয়া, মদন, মোহনগঞ্জ, পূর্বধলা। সুনামগঞ্জ সদর, ছাতক, দোয়ারাবাজার, জামালগঞ্জ, শাল্লা, ধর্মপাশা, বিশ্বম্ভবপুর ও তাহিরপুর। হবিগঞ্জ সদর, বাহুবল, মাধবপুর, চুনারুঘাট, নবীগঞ্জ, আজমিরীগঞ্জ, বানিয়াচং ও লাখাই। সিরাজগঞ্জ সদর, বেলকুচি, চৌহালী কাজিপুর, রায়গঞ্জ, শাহজাদপুর, তাড়াশ ও উল্লাপাড়া। জয়পুরহাট জেলার সদর, পাঁচবিবি, আক্কেলপুর, কালাই ও ক্ষেতলাল। নাটোর সদর, বাগাতিপাড়া, গুরুদাসপুর, বড়াইগ্রাম, লালপুর ও সিংড়া। রাজশাহীর তানোর, গোদাগাড়ী, পবা, মোহনপুর, বাগমারা, পুঠিয়া, দুর্গাপুর, চারঘাট ও বাঘা।