টক্সিনমুক্ত শরীর পেতে…

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৭:৫১ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৩, ২০১৯ | আপডেট: ৭:৫১:অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৩, ২০১৯

ফল বা সবজি কেটে ধোয়া উচিত নয়। পুষ্টির পরিমাণ কমে যায়। কিন্তু এখনকার দিনে সবজি বা ফল প্রচুর পরিমাণে রাসায়নিক উপাদান দিয়ে চাষ করা হয়। এ রাসায়নিক উপাদানগুলো খাওয়ার মাধ্যমে আমাদের শরীরের ভেতর ঢুকে যায়। ফলে শরীরে নানা রকম রোগ দেখা দেয়। তাই সবজি কাটার আগে ভালো করে ধুয়ে নিতে হবে। এরপর সবজি কেটেও পানিতে কিছু সময় ভিজিয়ে রাখতে হবে। তবে সবজির মধ্যে থাকা টক্সিন বের হয়ে যাবে। আর এতে শরীরে ক্ষতি হওয়ার পরিমাণও অনেকটা কমে যাবে। শুধু তাই নয়, রান্নার সময় ব্যবহৃত বাসনপত্রগুলো যেন টক্সিনমুক্ত হয় সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে।

আমরা অনেকেই এয়ার ফ্রেসনার বা পারফিউম ব্যবহার করে থাকি। কিন্তু এগুলোতে প্রচুর পরিমাণে টক্সিন উপাদান থাকে। এগুলো কেনার সময় অ্যাশেনসিয়াল অয়েল আছে কি না দেখে নিতে হবে। তবে সুগন্ধও পাবেন আর কোনো রকম ক্ষতিও হবে না। কারণ অ্যাশেনসিয়াল অয়েল থাকলে তাতে টক্সিন থাকে না। এটা লক্ষ্য করে কিনতে পারলে শরীর টক্সিনমুক্ত থাকবে।

অনেকেই ঘরের মধ্যে বিভিন্ন রকম গাছ লাগিয়ে থাকি। এতে ঘরের মধ্যে পরিবেশ অনেক ভালো থাকে। কিন্তু এমন গাছ রাখতে হবে যেগুলোতে টক্সিন উপাদানের পরিমাণ কম থাকে। তবে ঘর টক্সিনমুক্ত থাকবে। আর শরীরও ভালো থাকবে।

অনেকের বাড়িতেই মাইক্রোওয়েভ ওভেন থাকে। জানেন কি? মাইক্রোওয়েভ ওভেনে খাবার গরম করলে পুষ্টিগুণ নষ্ট হয়। শুধু তাই নয়, প্লাস্টিকের পাত্রে গরম করার ফলে খাদ্যের মধ্যে প্রচুর পরিমাণে জীবাণু প্রবেশ করে। ফলে ওভেন ব্যবহার করলে শরীরে নানাভাবে টক্সিন উপাদানগুলো প্রবেশ করে থাকে। তাই টক্সিনমুক্ত শরীর পেতে টাটকা খাবার খেতে হবে।

রান্নার সময় তেল বেশি দিয়ে ফেললে সেটা বাঁচিয়ে পরের দিন কিছু না কিছু তৈরি করা হয়। এটা করা ঠিক নয়। কারণ দ্বিতীয় বার তেল ব্যবহার করলে সেটা অক্সিডাইস হয়ে টক্সিনে পরিণত হয়। যা শরীরের জন্য খুবই ক্ষতিকারক। তাই অতিরিক্ত তেল ফেলে দিতে হবে। এটা সংরক্ষণ করে ব্যবহার করা ঠিক নয়।

ব্যায়াম করলে শরীরে অনেক ঘাম হয়ে থাকে। এতে আমাদের শরীর থেকে টক্সিন উপাদান অনেকটাই বের হয়ে যায়। তাই শরীর সুস্থ রাখার সব থেকে ভালো উপায় হলো প্রতিদিন সকাল বেলা শরীরচর্চা করা।

গ্রিন টি স্বাস্থ্যের জন্য ভালো তা আমরা সকলেই জানি। গ্রিন টি শরীর থেকে ফ্রি রেডিকেলস দূর করে দেয়। লিভার সুস্থ রাখে গ্রিন টি। তাই প্রতিদিন দুই থেকে তিন কাপ গ্রিন টি খেতে পারেন নিজেকে টক্সিনমুক্ত রাখার জন্য।

একটি পাতি লেবু ও শসা গোল গোল করে কেটে নিতে হবে। এগুলো এক লিটার পানির মধ্যে ভিজাতে হবে। এর সঙ্গে পুদিনা পাতাও দিতে হবে। তারপর এগুলো ফ্রিজের মধ্যে রাখতে হবে। পরের দিন সকাল বেলা একটু একটু করে এ পানি পান করতে হবে। তবে শরীর থেকে টক্সিন উপাদান বের হয়ে টক্সিনমুক্ত হবে।

এক লিটার পানিতে আপেল কুচি ও দারুচিনি গুঁড়ো দিতে হবে। এগুলো একসঙ্গে রাতের বেলা ফ্রিজের মধ্যে ভিজিয়ে রাখতে হবে। পরের দিন সকাল বেলা এ পানি পান করলে শরীর টক্সিনমুক্ত হবে।