প্রজনন স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণে পিছিয়ে যুব ও কিশোর-কিশোরীরা

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৬:০৭ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৮, ২০১৮ | আপডেট: ৬:০৭:অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৮, ২০১৮

প্রজনন ও যৌন স্বাস্থ্যসেবা পাওয়া কিশোর-কিশোরী বা তরুণ-তরুণীদের  অধিকার। এই বয়সে স্বাস্থ্যসেবা খুবই গুরুত্বপূর্ণ হলেও সচেতনতার অভাব, গোপনীয়তার প্রবণতা ইত্যাদি কারণে তারা পর্যাপ্ত সেবা পায় না। কিশোর-কিশোরীদের যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্যসেবা নিতে এসে তারা নানাভাবে বৈষম্যের শিকার হচ্ছে।  বরিশালে যুব ও কিশোর-কিশোরীদের যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য অধিকার সুরক্ষা বিষয়ক মতবিনিময় সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টায় নগরের বিডিএস মিলনায়তনে অধিকার এখানে, এখনই (আরএইচআরএন) প্রকল্পের উদ্যোগে  এ মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সভায় বয়োঃসন্ধিকালীন প্রজনন স্বাস্থ্য অধিকার বিষয়ে সচেতনতা ও সেবা সরবারহের বিষয়টি তুলে ধরে এ সংক্রান্ত গবেষণার প্রাপ্ত তথ্য-উপাত্ত উপস্থাপন করেন আরএইচআরএন’র প্রকল্প সমন্বয়কারী সামিয়া আফরীন। তিনি জানান কৈশোর বান্ধব স্বাস্থ্য সেবা বিষয়ক গবেষনার তথ্য-উপাত্ত চলতি বছরের মার্চ থেকে আগস্ট পর্যন্ত বরিশাল বিভাগের ৪টি জেলা থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে। বরিশাল, পটুয়াখালী, বরগুনা ও ঝালকাঠী জেলা থেকে মোট ৪২টি প্রতিষ্ঠানের সেবার মান পর্যবেক্ষন করা হয়েছে। এ গবেষনার মাধ্যমে কিশোর-কিশোরীদের সেবাদানকারী কেন্দ্রে না আসার কারনগুলো জানা গেছে। সেবাদানকারীরা জেনে যাবে বা এটা গোপন থাকবে না, নিজ এলাকার জনগনের সুষ্পষ্ট ধারনা না থাকা, কিশোরীদের তুলনায় কিশোররা কম আসা, পরিবার কল্যান সহকারীণের মাঠ পর্যায়ে যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য নিয়ে তেমন আলোচনা না করা সহ নানান প্রতিবন্ধকতা নিয়ে আলোচনা করা হয়।

মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় জেলা পরিবার পরিকল্পনা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক ডাঃ মোহাম্মদ তৈয়বুর রহমান বলেন,  প্রজনন ও যৌন স্বাস্থ্যসেবা পাওয়া কিশোর-কিশোরী বা তরুণ-তরুণীদের অধিকার। এই বয়সে স্বাস্থ্যসেবা খুবই গুরুত্বপূর্ণ হলেও সচেতনতার অভাব, গোপনীয়তার প্রবণতা ইত্যাদি কারণে তারা পর্যাপ্ত সেবা পায় না। তিনি বলেন অনেকেই মনে করেন এ ব্যাপারে কিশোর-কিশোরীদের এতো বেশি জানানোর দরকার নেই। এ ছাড়া অনেক সময় এসব বিষয়ে জানার আগ্রহকে অনৈতিক ভাবা হয়। এ ধরনের সংস্কৃতি তাদের তথ্য জানার উৎসগুলো হতে দূরে রাখে এবং এ ব্যাপারে তারা সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারে না।

বিশেষ অতিথির বক্তৃতা করেন উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা মোসাম্মত দৌলাতুন নেসা নাজমা, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা খালেদা বেগম, যুব উন্নয়ণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মুহাম্মদ শোয়েব ফারুক, বরিশাল মেট্রোপলিটন প্রেসক্লাবের সভাপতি কাজী আবুল কালাম আজাদ।  স্বাগত বক্তৃতা করেন নারীপক্ষ এর জেলার সহযোগী বরিশাল মহিলা কল্যাণ সংস্থা (বিএমকেএস) পরিচালক কাওসার পারভিন। কিশোর-কিশোরীদের পক্ষ থেকে বক্তৃতা করেন যুব প্রতিনিধি ইফরাত জাহান ইমা, সোহানুর রহমান।

মতবিনিময় সভায় বিভাগের যুব ও কিশোর-কিশোরীরা এতে অংশগ্রহন করেন। বক্তারা বলেন, প্রজনন স্বাস্থ্য সম্পর্কে কিশোর-কিশোরীদের সচেতন করতে বড় ভূমিকা রাখতে পারে পরিবার। অভিভাবকসুলভ আচরণ নয়, তাদের সঙ্গে বন্ধুর মতো আচরণ করতে হবে। বিদ্যালয়গুলোও কিশোর-কিশোরীদের যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য বিষয়ে ভূমিকা রাখতে পারে।

কিশোর-কিশোরীদের যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য অধিকার সুরক্ষায়কার্যক্রম বাস্তবায়ন করেছে নারীপক্ষসহ ১১টি সংগঠন। নারীপক্ষ’র সাথে বরিশাল জেলায় সহযোগী সংগঠন হিসেবে বরিশাল মহিলা কল্যাণ সংস্থা (বিএমকেএস) কাজ করছে।