ঝালকাঠিতে ৬ দফা দাবিতে তাবলীগের ওলামাপন্থীদের সমাবেশ ও স্মারকলিপি প্রদান

প্রকাশিত: ৩:০৬ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৪, ২০১৮ | আপডেট: ৩:০৬:অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ৪, ২০১৮

১ ডিসেম্বর টঙ্গির তুরাগ তীরে বিশ্ব ইজতেমা ময়দানে হামলার প্রতিবাদ ও বিচারের দাবীসহ ৬ দফা দাবিতে সমাবেশ ও স্মারকলিপি প্রদান করেছে তাবলীগ জামায়াতের ওলামাপন্থী মুসল্লিরা। সারাদেশের সাথে ঝালকাঠিতেও এক যোগে এ কর্মসূচী পালন করা হয়। সোমবার দুপুর ১২ টার দিকে ঝালকাঠির পুরাতন কলেজ রোডস্থ মারকাজ মসজিদে সমবেত হয়ে মারকাজ মসজিদ সংলগ্ন জেলা শিল্পকলা একাডেমীর সামনে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে মিলিত হয়। এতে বক্তব্য রাখেন মাওলানা আব্দুস সাত্তার, মুফতি জয়নুল আবেদীন, মাওলানা আব্দুল মতিন, মুফতি হানজালা, মুফতি গিয়াস উদ্দিন প্রমুখ। এসময় জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে তাবলীগ জামায়াতের ওলামাপন্থী বিপুল সংখ্যক মুসল্লীরা উপস্থিত ছিলেন। পরে জেলা প্রশাসক মোঃ হামিদুল হকের কাছে ৬ দফা দাবি সম্বলিত স্মারকলিপি প্রদান করেন মুসল্লিদের ১০ সদস্যের প্রতিনিধিদল। এসময় জেলা প্রশাসক মোঃ হামিদুল হক তাবলীগের মুসল্লিদের ধৈর্যধারনের আহŸান জানান। ৬ দফা দাবিসমূহ হলো ১. ১ ডিসেম্বর হামলার নির্দেশদাতা সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলাম, খান সাহাবুদ্দিন নাসিম গং সহ হামলার সাথে জড়িত সকলকে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আইনের আওতায় এসে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী। আহত নিহতদের ক্ষতিপূরণ ও চিকিৎসার ব্যবস্থা। টঙ্গি ময়দানে পূর্বের ন্যায় যেভাবে শুরা ভিত্তিক পরিচালিত তাবলীগের সাথী ও উলামায়ে কেরামগনের অধীনে ছিলো তাদেরই কাছে হস্তান্তর করা। অতিসত্ত¡র কাকরাইলের সকল কার্যক্রম হতে সৈয়দ ওয়াসিফুল ইসলাম, খান সাহাবুদ্দিন নাসিম গংকে বহিস্কার করতে হবে। সারাদেশে উলামায়ে কেরাম ও শুরা ভিত্তিক পরিচালিত তাবলীগের সাথীদের উপর হামলা-মামলা বন্ধ করে পূর্ণ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করতে হবে। টঙ্গির আগামীর ইজতেমা পূর্ব ঘোষিত যথা সময়ে (১৮, ১৯ ও ২০ জানুয়ারী) অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা করতে হবে।