৩ আসনে জনপ্রিয়তায় শীর্ষে বাহাউদ্দিন নাছিম! দলিয় মনোনয়ন শত ভাগ নিশ্চিত

নাজমুল হক নাজমুল হক

মাদারীপুর প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৮:২১ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ৩১, ২০১৮ | আপডেট: ৪:৪২:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ৩১, ২০১৮
নাজমুল হক: মাদারীপুর প্রতিনিধি। 01772327799
 জাতীয় নির্বাচনের হাওয়া বইছে মাদারীপুরে। সংসদীয় ২১৮, ২১৯ ও ২২০ নম্বর আসনে এরই মধ্যে সম্ভাব্য প্রার্থীরা নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেছে। তবে সবার দৃষ্টি মাদারীপুর-৩ আসনের দিকে। মাদারীপুরের-কালকিনি ৩ আসনে নির্বাচনের হাওয়া বইছে, এ আসনে কে পাচ্ছেন নৌকা প্রতীক। তবে স্থানীয় আওমীলীগ ও বেশির ভাগ সাধারন ভোটাররা বলছেন, জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছে আ.ফ.ম বাহাউদ্দিন নাসিম। এ আসনে আওয়ামী লীগের দুই হেভিওয়েট প্রার্থী ও গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন।
মাদারীপুর-৩ (সদরের একাংশ এবং কালকিনি): মাদারীপুর সদরের পাঁচটি ইউনিয়ন, কালকিনি পৌরসভাসহ উপজেলার ১৪টি ইউনিয়ন নিয়ে মাদারীপুর- ৩ আসন। আসনটি আওয়ামীলীগের দূর্গ হিসেবেই বেশি পরিচিত। এ আসনে ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ৮৩ হাজার ২২৩ জন। নব্বই ও নব্বই পরবর্তী প্রতিটি নির্বাচনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী খুব সহজেই বিপুল ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত হয়েছে। তবে নব্বই এর আগে, শুধুমাত্র’ ৭০- এর ঐতিহাসিক নির্বাচনে মরহুম মতিয়ার রহমানই একমাত্র ব্যক্তি যিনি আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য ছিলেন। এর পর ’৯১ আগ পর্যন্ত আওয়ামী লীগের কেউ সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়নি। তবে জিয়াউর রহমানের আমলে বিএনপি’র আব্দুল মান্নান শিকদার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে, প্রতিমন্ত্রী হয়েছিলেন। জাতীয় পার্টির শেখ শহিদুল ইসলাম দুইবার নির্বাচিত হন এবং তিনি প্রায় ৯ বছর মন্ত্রী ছিলেন। ১৯৯১ সালের নির্বাচনে আবুল হোসেন বিপুল ভোটে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।
মাদারীপুরের ৩ আসনের বর্তমান সংসদ সদস্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আস্থাভাযন জননেতা আ.ফ.ম বাহাউদ্দিন নাসিম, মাদারীপুরের কালকিনিতে ব্যাপক উন্নয়ন ও জনপ্রিয়তা অর্জন করে। কালকিনির প্রতিটি এলাকায় যার উন্নয়নের ছোয়া ও আইন শৃঙ্খলা বজায় রয়েছে। প্রতিটি মানুষের বিপদে আপদে রোদ, বৃস্টি, কাদা মাখা পথে ছুটে গিয়েছে সকলের দ্বারে দ্বারে। তাই কালকিনির সাধারন জনগন তাকে মাটি ও মানুষের নেতা হিসেবে আখ্যায়িত করে। একাদশ সংসদ নির্বাচনকে ঘিরে কালকিনি উপজেলার সব ইউনিয়ন ও সদর উপজেলার ৫টি ইউনিয়ন নিয়ে (মাদারীপুর-কালকিনি ০৩ নির্বাচনী এলাকা) বিভিন্ন এলাকায় এরই মধ্যে সম্ভাব্য প্রার্থীরা নির্বাচনী ব্যাপক গণসংযোগ করছেন মনোনায়ন প্রত্যাশিরা।
এদিকে বাহাউদ্দিন নাসিম এ আসনের প্রতিটি পাড়া-মহল্লাতে তার লোকজন নিয়ে জন-সংযোগ চালিয়ে যাচ্ছেন। সরকারী-বেসরকারী বিভিন্ন দিবসের অনুষ্ঠান অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে পালন করছেন,  শেখ হাসিনার আস্থাভাযন ও উন্নয়নমুখী হওয়ায় তিনি মনোনায়ন পেতে অনেক এগিয়ে আছেন।
 তবে পদ্মা সেতুর মিথ্যা অভিযোগ থেকে মু্ক্তি পাওয়ার পর সাবেক যোগাযোগ মন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনের ভাবমুর্তি ও জনপ্রিয়তা ফিরিয়ে আনার জন্য চেষ্টা করে যাচ্ছে।
জেলা ও উপজেলা আওয়ামীলীগের বেশীর ভাগ নেতারা মনে করেন,  আগামী একাদশ নির্বাচনে মনোনয়ন বাহাউদ্দিন নাছিমই পাবে, শতভাগ নিশ্চিত।
 সাবেক জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মরহুম আঃ লতিফ উকিলের ছেলে বর্তমান জেলা জজ কোটের পিপি এ্যাডঃ এমরান লতিফও একাদশ সংসদ নির্বাচনে দলিয় মনোনায়ন চাইবেন বলে জানাগেছে।
এদিকে কেন্দ্রীয় বিএনপির গণ-শিক্ষা বিষয়ক সহ-সম্পাদক আনিসুর রহমান খোকন তালুকদার এ আসনে তৃণমূল পর্যায়ে জন সমর্থন পাওয়ার জন্য মড়িয়া হয়ে উঠেছেন। তিনি কেন্দ্রীয় বিভিন্ন কর্মসুচীতে এলাকায় এসে নেতা-কর্মীদের সাথে সখ্যতা গড়ে তুলছেন। তার সাথে জেলা বিএনপির নেতাকর্মীদের রয়েছে গভীর সম্পর্ক। তাই মনোনায়ন দৌড়ে অনেকটা এগিয়ে আছেন। তবে এ আসনে রাজেন্দ্র কলেজের সাবেক ভিপি ও কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক খন্দকার মাশুকুর রহমানও ‘শক্ত’ প্রার্থী হিসেবে প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন এবং কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সহসভপিতি আসাদ উজ্জামান পলাশের নাম শোনা যাচ্ছে।এছারা জাতীয় পার্টির যুগ্ম সাংগঠনিক সম্পাদক এম.এ খালেক ও ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দলনের অধ্যাপক সৈয়দ বেলায়েত হোসেনের নামও রয়েছে।
সরেজমিন ও দলীও সুত্রে জানাগেছে, আওয়ামীলীগের বিভিন্ন অঙ্গসংগঠনের পঁচানব্বই ভাগ বর্তমান এমপি বাহাউদ্দিন নাসিম এর সাথে থেকে উন্নায়ন ও নির্বাচনী প্রচারনা চালিয়ে যাচ্ছেন। সাধারন ভোটারদের মন্তব্য, বর্তমান এমপি বাহাউদ্দিন নাসিম প্রতি মাসে ১৫দিন কালকিনিতে থেকে প্রতিদিন ৫/৬টি বিভিন্ন ধরনের উন্নায়ন মুলক ও সামাজিক কাজকর্ম করে থাকেন। বেশির ভাগ ভোটাররা মনে করনে, এবারের নির্বাচন অবাধ ও নিরপেক্ষ হলে এ আসনে বাহাউদ্দিন নাসিমই জয় লাভ করবে ।এবারের একাদশ জাতীয় নির্বাচন পরিচালনা (কোর) মুল কিমিটির সদস্য হলেন বাহাউদ্দিন নাছিম বর্তমান এমপি ।