ভয়াবহ যৌন নির্যাতনের অভিযোগ আইনজীবির বিরুদ্ধে

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৪:১২ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৯, ২০১৮ | আপডেট: ৪:১২:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৯, ২০১৮

আইনি পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ‘কাউন্সেলেজ ইন্ডিয়ার’ সুপরিচিত আইনজ্ঞ সুহেল শেঠের বিরুদ্ধে গুরুত্বর যৌনতার অভিযোগ এনেছেন কমপক্ষে চারজন নারী। এর মধ্যে রয়েছেন একজন চলচ্চিত্র নির্মাতা। তিনি হলেন নাতাশজা রাঠোর (২৭)। আরও আছেন ৩৩ বছর বয়সী সাংবাদিক মন্দাকিনি গাহলোট। এর মধ্যে নাতাশজা রাঠোর হোয়াটসঅ্যাপে তুলেছেন ভয়াবহ অভিযোগ। তিনি সুহেল শেঠকে উদ্দেশ্য করে লিখেছেন, ‘আমি বাধা দেয়া সত্ত্বেও আমার মুখের ভিতর আপনার জিহ্বা প্রবেশ করিয়ে দিয়েছিলেন। আমি আপনার মাথা ধরে ঝাঁকিয়েছিলাম এবং বলেছিলাম, নিজেকে সংযত করুন। কিন্তু আপনি আমার কুর্তার ভিতর আপনার হাত প্রবেশ করিয়ে দিলেন।

আমার বুক খামচে ধরলেন। আমি স্মরণ করতে পারি, আপনার হাতও আমি সরিয়ে দিয়েছিলাম।’

সুহেল শেঠের বিরুদ্ধে দ্বিতীয় অভিযোগকারী সাংবাদিক মন্দাকিনি গাহলোট বলেছেন, তার সঙ্গে যৌন হয়রানির ঘটনা ঘটেছিল ২০১১ সালের জুলাইয়ে গোয়াতে। তিনি টুইটারে লিখেছেন, যখন সেখানকার এক অনুষ্ঠান শেষে তিনি বেরিয়ে যাচ্ছিলেন এবং উপস্থিত সবাইকে বিদায় জানাচ্ছিলেন তখন তার কাছে এগিয়ে যান সুহেল শেঠ এবং তার মুখের ওপর চুমু দেন। এমন কি সুহেল তার জিহ্বা প্রবেশ করিয়ে দেন মন্দাকিনির মুখের ভিতর। মন্দাকিনি বলেন, এতে তিনি হতবাক হয়ে যান। তার হতাশাজনক অভিব্যক্তি দেখে সুহেল ও ওই গ্রুপের অন্যরা হাসাহাসি করেন। কিন্তু মন্দাকিনি ওই সময়ে এ নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো অভিযোগ দায়ের করেন নি। কারণ, হিসেবে তিনি বলেছেন, তখন তার বয়স ছিল অনেকটাই কম। নিজে ক্যারিয়ার গড়ার চেষ্টা করছিলেন। তা ছাড়া সুহেল শেঠ বেশ শক্তিধর।
ওদিকে এ মাসের শুরুর দিকে মডেল ও রিয়েলিটি শো বিগ বসের সাবেক প্রতিযোগী ডিয়ান্দ্রা সোরেসও অভিযোগ তোলেন সুহেল শেঠের বিরুদ্ধে। বলেন, তার সঙ্গেও যৌন অসংযত আচরণ করেন সুহেল শেঠ। তিনি বলেন, একবার একটি ফ্যাশন সপ্তাহের অনুষ্ঠানে যোগ দিয়েছিলেন সোরেস। ওই পার্টি শেষ হতেই সুহেল শেঠ তার কাছে এগিয়ে গিয়ে তার মুখের মধ্যে নিজের ঠোঁট ঢুকিয়ে দেন। সোরেস বলেন, তাৎক্ষণিকভাবে রাগ থেকে তিনি সুহেলের ঠোঁটে কামড় বসিয়ে দেন।

ভারতজুড়ে যৌনতা বিরোধী আন্দোলন #মি-টু’র প্রচারণায় তোলপাড় চলছে। সেখানকার রাজনৈতিক, সেলিব্রেটি জগত সহ সব মহলই থর থর করছে ভয়াবহ সব অভিযোগে। এরই মধ্যে আইনি পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের সুহেল শেঠের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ এলো। এই প্রতিষ্ঠানটির সেবা নেয় ‘টাটা সন্স’। তারা সাফ জানিয়ে দিয়েছে, এমন সব অভিযোগের পর তারা আর সুহেল শেঠের প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কাজ করবে না। আগামী ৩০ নভেম্বরের পর তারা ওই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে তাদের সমস্ত সম্পর্ক ছিন্ন করবে।