রাজাপুরে পুলিশের উপরে হামলা, মা ও দুই মেয়ে আটক

প্রকাশিত: ২:৪২ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৫, ২০১৮ | আপডেট: ২:৪২:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৫, ২০১৮

ঝালকাঠির রাজাপুরে বিরোধীয় জমির মাটি কাটা বন্ধ ও দুই পক্ষের উত্তেজনা থামাতে করতে গিয়ে রাজাপুর থানার এসআই ফিরোজ আলম ও কনেস্টবল সাহেব আলী আহত হয়েছে। পুলিশ এ ঘটনায় ৩ নারীকে আটক করেছে। বুধবার সন্ধ্যায় উপজেলার উত্তর পুটিয়াখালি গ্রামের সাতআনি নামক এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
আহত এসআই ফিরোজ ও কনেস্টবল সাহেব আলীকে রাজাপুর স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ভর্তি করা হয়েছে। পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
রাজাপুর থানার ওসি শামসুল আরেফিন ক্যামেরার সামনে কোন কথা বলতে রাজী হয়নি। তবে তিনি জানান, ওই গ্রামের আনোয়ার হোসেনের সাথে আব্দুল হকের জমি নিয়ে বিরোধ দেখা দেয়। বুধবার সকালে আব্দুল হক ওই জমিতে ঘর নির্মানের উদ্দেশ্যে মাটি কাটা শুরু করলে প্রতিপক্ষ আনোয়ারের স্ত্রী পাখি বেগম থানায় অভিযোগ দিলে পুলিশ গিয়ে কাজ বন্ধ করে উভয় পক্ষকে কাগজপত্র নিয়ে থানায় আসতে বলে চলে আসেন। কিন্তু কাজ বন্ধ না করা বিকেলে বাদি পক্ষ কাজ বন্ধ করতে বলে। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।
খবর পেয়ে রাজাপুর থানার এসআই ফিরোজ ও কনেস্টবল সাহেব আলী ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করার চেষ্টা করলে আব্দুল হকের ছেলে জাহিদ ও মনিরসহ তাদের পক্ষের লোকজন মিলে খোন্তা ও শাবল দিয়ে এসআই ফিরোজকে পিটিয়ে আহত এবং কনেস্টবল সাহেব আলীর মাথা ফাটিয়ে দেয়। পরে খবর পেয়ে ওসির নেতৃত্বে একদল পুলিশ গিয়ে তাদের উদ্ধার কওে এবং আব্দুল হকের স্ত্রী মারিয়া বেগম, মেয়ে হাবিবা বেগম ও আসমা আক্তারকে আটক করে। এ ঘটনায় আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে বলেও জানান ওসি।
তবে আটক হওয়া মারিয়া বেগম বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থলে তাদের সাথে দ্বন্ধে জড়িয়ে পরে। কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে এস আই ফিরোজ তাদের উপর হামলা চালিয়ে মারধর করে। এমনকি তাকে লাথি মেরে রক্তাক্ত করে ফেলে মাটিতে ফেলে দেয় পুলিশ সদস্যরা। তাকে উদ্ধার করতে গেলে তার দুই মেয়েকেও মারধর করে তাদেরকে আটক করে নিয়ে আসে।
এস আই ফিরোজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় এ ব্যাপারে কোন মন্তব্য করতে রাজী হয়নি।