জিম্বাবুয়েকে হারিয়ে সিরিজ জয়ের পর যা বললেন মাশরাফি

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১০:৫৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৪, ২০১৮ | আপডেট: ১০:৫৮:অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৪, ২০১৮

চট্টগ্রামে গিয়ে শুরুতে সিরিজ জয়ের কাজটাই সেরে রাখলো টাইগাররা। সফরকারী জিম্বাবুয়েকে উড়িয়ে দিয়েছে ৭ উইকেটে। ৩৫ বল (৫.৫ ওভার) হাতে রেখেই তাদের ছুড়ে দেয়া ২৪৭ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ছক্কা মেরেই দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়লেন মোহাম্মদ মিঠুন এবং মুশফিকুর রহীম।

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে বাংলাদেশকে ২৪৭ রানের লক্ষ্য ছুঁড়ে দিয়েছিল জিম্বাবুইয়ানরা। জবাব দিতে নেমে দুই ওপেনার লিটন দাস এবং ইমরুল কায়েস মিলে ১৪৮ রানের জুটি গড়েই জয়ের কাজটা প্রায় শেষ করে দেন। ৮৩ রান করে লিটন আউট হয়ে গেলেও পরে মুশফিকের সঙ্গে ৫৯ রানের জুটি গড়ে ইমরুল কায়েস জয়ের কাজটা আরও সহজ করে দেন। তবে ইমরুল ৯০ রান করে ফিরে গেলে বাকি কাজ শেষ করেন মুশফিক আর মিঠুন। মুশফিক ৪০ এবং মিঠুন অপরাজিত থাকেন ২৪ রানে।

সেঞ্চুরির দ্বারপ্রান্তে এসে আউট হয়ে গেলেন দু’দুজন ব্যাটসম্যান। লিটন কুমার দাসেরটা না হয় কিছুটা মেনে নেয়া গেলো, কিন্তু ইমরুলেরটা! ৯০-এর ঘরে চলে আসার পর আউট হয়ে যাওয়াটা খুবই হতাশার। ইমরুল কায়েস সেই হতাশাটাই জন্ম দিয়ে ফিরে গেলেন। আউট হয়ে গেলেন ৯০ রানে। টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরিটা আর পাওয়া হলো না তার। লিটন ফিরেছিলেন ৮৩ রান করে।

লিটন দাসের সঙ্গে ১৪৮ রানের অনবদ্য এক জুটি গড়েছিলেন ইমরুল। ৮৩ রান করে লিটন দাস আউট হয়ে গেলে ফজলে রাব্বির সঙ্গে জুটি বাধেন ইমরুল। কিন্তু এই জুটি টিকলো না ৪ রানও। রাব্বি আউট হয়ে যান কোনো রান না করেই। এরপর মুশফিকুর রহীমকে নিয়ে জুটি বাধেন ইমরুল। ৫৯ রানের জুটি গড়ার পর আবারও সিকান্দার রাজার আঘাত।

এবার সিকান্দার রাজার বলে লফটেড ড্রাইভ করতে চেয়েছিলেন ইমরুল। কিন্তু তার বল আর বাউন্ডারি লাইন খুঁজে পেলো না। তার আগেই জমা পড়লো চিগুম্বুরার হাতে। ১১১ বলে ৭টি বাউন্ডারিতে সাজানো ৯০ রানের ইনিংসটির পরিসমাপ্তি ঘটে গেলো খুব সহজেই।

শেষ পর্যন্ত মিঠুনের ২৪ ও মুশফিকের অপরাজিত ৪০ রানে ভর করে ৪৪তম ওভারে ৭ উইকেট হাতে রেখেই জয়ের বন্দরে পৌছে যায় বাংলাদেশ। এরই সাথে ২-০ ব্যবধানে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জিতে নিল টাইগাররা।

ম্যাচ শেষে টাইগার অধিনায়ক মাশরাফি বলেন, ‘আমি মনে টসে জেতাটাই সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ন ছিল আমাদের জন্য। আমরা জানতাম এই মাঠে শিশিরের প্রভাব সম্পর্কে। কিন্তু বোলাররা খুবই ভালো বল করেছে। আমরা জানতাম ২৭০-২৮০ রানও এই মাঠে চেজ করার মতো। বোলাররা তাদের কাজটা খুব ভালো ভাবে করেছে। যখনই দলের উইকেটের প্রয়োজন ছিল তখনই দলের হয়ে তারা সেই কাজটি করে দিয়েছে।’