টাঙ্গাইলে এমপি ও এমপিপুত্রের কুশপুত্তলিকা দাহ

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৮:১৫ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২০, ২০১৮ | আপডেট: ৮:১৫:পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২০, ২০১৮

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনির জনসভা আগামীকাল শনিবার। এ জনসভাকে কেন্দ্র করে টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। দলীয় নেতাকর্মীরা এমপি পুত্র এবং মনোনয়ন প্রত্যাশী খন্দকার মশিউজ্জামান রুবেলের বিরুদ্ধে আজ শুক্রবার সন্ধ্যায় পৌর শহরে জুতা মিছিল বের করে। এ সময় এমপি ও এমপিপুত্রের কুশপুত্তলিকা দাহ করা হয়।

জানা যায়, গোপালপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের নামে গত ১৩ অক্টোবর উপজেলার হেমনগর কলেজ মাঠে এক নির্বাচনী জনসভা আহবান করা হয়। এতে প্রধান অতিথি করা হয় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডা. দীপু মনিকে। কিন্তু আওয়ামী লীগের সাংসদ খন্দকার আসাদুজ্জামান নিজ পুত্র খন্দকার মশিউজ্জামান রোমেলকে ওই জনসভায় দলীয় প্রার্থী হিসাবে ঘোষণা দেবে মর্মে প্রচার থাকায় দলে কোন্দল দেখা দেয়।

পরবর্তীতে গত ১৬ অক্টোবর এবং ১৯ অক্টোবর জনসভার তারিখ দেওয়া হলেও জেলা আওয়ামী লীগ কোন্দল ফয়সালা করতে অপারগ হওয়ায় তৃতীয় দফা উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মতি ছাড়াই স্থানীয় সাংসদ খন্দকার আসাদুজ্জামানের একক সিদ্ধান্তে আগামীকাল শনিবার জনসভার দিন ঘোষণা দেওয়া হয়। এতে আওয়ামী লীগের অপর চার মনোনয়ন প্রত্যাশীর মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়।

আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী এবং উপজেলা চেয়ারম্যান ইউনুস ইসলাম তালুকদার জানান, জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগকে অন্ধকারে রেখে স্থানীয় সাংসদ খন্দকার আসাদুজ্জামান নিজপুত্র মশিউজ্জামান রুমেলকে দলীয় প্রার্থী হিসাবে ঘোষণা দেওয়ার জন্য কৌশলে এ জনসভার আয়োজন করেছে। জনগণ এ ষড়যন্ত্রকে মেনে নেবে না। তাই আগামীকালের এ জনসভাকে দলীয় নেতাকর্মীরা প্রত্যাখান করেছে।

অপর মনোনয়ন প্রত্যাশী এবং জেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক তানভীর হাসান ছোট মনি জানান, স্থানীয় সাংসদ খন্দকার আসাদুজ্জামান জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগকে পাশ কাটিয়ে নিজের অযোগ্য পুত্রকে দলের প্রার্থী হিসাবে কৌশলে ঘোষণা দেওয়ার জন্য একজন কেন্দ্রীয় নেত্রীকে মিসগাইড করে আগামীকালের জনসভার আয়োজন করেছে। জনগণ এ ষড়যন্ত্রমূলক জনসভাকে প্রত্যাখান করেছে।

অপর মনোনয়ন প্রত্যাশী এবং জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা আশরাফুজ্জামান স্মৃতি জানান, দলীয় সিদ্ধান্তের বাইরে এ জনসভা। এ জনসভায় কোন নেতাকর্মী অংশ নেবে না। জনসভার নামে নিজ পুত্রকে ঘোষণা দেওয়ার এ চক্রান্তে কেউ অংশ নেবে না।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হালিমুজ্জামান তালুকদার জানান, স্থানীয় সাংসদ এ জনসভা চাপিয়ে দিয়েছে। তাই দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে অসন্তোষ ও চাপা উত্তেজনা বিরাজ করছে। সন্ধ্যায় স্থানীয় সাংসদ এবং তার পুত্রের বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা জুতা মিছিল করে প্রতিবাদ জানায়।

ওসি হাসান আল মামুন জানান, জনসভাকে কেন্দ্র করে উত্তজেনার প্রেক্ষিতে বাড়তি নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।