বাকেরগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লোক্সে রোগীদের জীবন নিয়ে খেলা করছে ফার্মাসিষ্ট মোস্তাফিজ

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৮:৫৩ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৬, ২০১৮ | আপডেট: ৮:৫৩:অপরাহ্ণ, জুলাই ১৬, ২০১৮
বাকেরগঞ্জ স্বাস্থ্য কমপ্লোক্সে রোগীদের জীবন নিয়ে খেলা করছে ফার্মাসিষ্ট মোস্তাফিজ

বাকেরগঞ্জ প্রতিনিধি:

বাকেরগঞ্জ হাসপাতালে রোগীদের জীবন নিয়ে খেলা করছেন ফার্মাসিষ্ট মোস্তাফিজুর রহমান। গতকাল সরেজমিনে, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ল্যাব রুমে গিয়ে দেখা যায় ল্যাব টেকনোলজিষ্ট মারজান নেই। তার রুমে বসে ফাতেমা নামের একজন মহিলা রোগীর শরীর থেকে রক্ত সংরক্ষন করে পরীক্ষার জন্য নিচ্ছেন ফার্মাসিষ্ট মোস্তাফিজ। এসময় রক্ত নেয়ার ছবিটা স্থানীয় সাংবাদিকরা তাদের ক্যামেরায় ধারণ করেন।

 

সাধারণ রোগীরা অভিযোগ করে বলেন, মোস্তাফিজ একজন ফার্মাসিষ্ট হয়ে কি করে তিনি পরীক্ষার নামে রোগীদের শরীর থেকে রক্ত সংগ্রহ করছেন। এ বিষয়ে তাকে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, ল্যাব টেকনোলজিষ্ট মারজান হাসপাতালের ২১নং রুমে আছেন। তিনি তাকে রোগীদের শরীর থেকে রক্ত সংগ্রহ করে পাত্রে রাখতে বলেছেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গতকাল ল্যাব টেকনোলজিষ্ট মারজান অসুস্থতার কারনে হাসপাতালেই আসেনি।

 

ফার্মাসিষ্ট মোস্তাফিজ ও ল্যাব টেকনোলজিষ্ট মারজান উভয়ে স্বামী-স্ত্রী। তারা দীর্ঘদিন ধরে হাসপাতালে কর্মরত আছেন। যে কারনে অনেক দিন ধরেই রোগীদের রক্ত নেয়ার স্ত্রী মারজানের কাজটি ফার্মাসিষ্ট মোস্তাফিজ করে থাকেন। শুধু তাই নয় ফার্মাসিষ্ট মোস্তাফিজ ও ল্যাব টেকনোলজিষ্ট মারজান রক্ত পরীক্ষার নামে দরিদ্র রোগীদের কাছ থেকে একশত ৫০ টাকা করে নিচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। তারা দুজন স্বামী-স্ত্রী মিলে হাসপাতালের ল্যাবটিকে দূর্ণীতির আঁখড়া খানায় পরিণত করেছেন। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্মরত আর এমও ডাঃ রাজিব হাসান জানায়, রোগীদের শরীর থেকে রক্ত সংগ্রহ করা ফার্মাসিষ্ট মোস্তাফিজের কাজ নয়।

 

তাছাড়া সরকারি হাসপাতালে রক্ত পরীক্তার নামে কেউ রোগীদেও কাছ থেকে টাকা নেয়াও কাম্য নয়। তিনি ফার্মাসিষ্ট মোস্তাফিজের অভিযোগের বিষয়টি উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার সাথে আলোচনা করেছেন। তিনি তদন্ত করে ফার্মাসিষ্ট মোস্তাফিজের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিবেন বলেও জানান। সাধারণ রোগীদের জিম্মি করে রোগীদের জীবন নিয়ে খেলা বন্ধের দাবি জানিয়েছে বাকেরগঞ্জবাসী।