বেনাপোল – পেট্রাপোল দিয়ে আমদানি বানিজ্য বন্ধ

প্রকাশিত: ৮:৫৯ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৫, ২০১৮ | আপডেট: ৮:৫৯:অপরাহ্ণ, জুলাই ১৫, ২০১৮

স্থল বন্দর বেনাপোল দিয়ে বিজিবি কর্র্তৃক আমদানি পন্যর তদারকি করা নিয়ে কাস্টমস কাজ বন্ধ করায় হঠাৎ আমদানি বানিজ্য বন্ধ হয়ে যাওয়ায় ব্যবসায়িরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। রোববার ভারত থেকে মাত্র ৩০ গাড়ি আমদানি পন্য আসার পর কাস্টমস বেলা ১০ টার দিকে অফিসিয়াল কাজ বন্ধ করে দেওয়ার পর থেকে আমদানি বন্ধ হয়ে গেছে বেনাপোল Ñ পেট্রাপোল বন্দর দিয়ে।

সুত্র জানায়, বেনাপোল স্থল বন্দর দিয়ে যে সকল পন্য আমদানি হয় তার ওজন মাপা স্কেলে কাস্টমসের পাশাপাশি বিজিবি ও তদারকি করার জন্য কাস্টমস তাদের কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়।

বেনাপোল আইসিপি ক্যাম্পের সুবেদার হারাধন বলেন মন্ত্রনালয় থেকে আমদানি পন্য মাপার স্কেলে দেখার নির্দেশ পাওয়া সংক্রান্ত চিঠি পেলে আমদানি পন্য ওজন মাপার স্কেল চেকপোস্ট ও টিটিআই গেটে কাস্টমসের পাশাপাশি দেখার দায়িত্ব নিলে কাস্টমস আজ তাদের আমদানি পন্য দেখার অফিসিয়াল কার্যক্রম বন্ধ করে দেয়।

বেনাপোল কার্গোশাখার রাজস্ব সহকারি হারুনুর রশিদ বলেন রাজস্ব সংক্রান্ত কার্যক্রম নিয়ম অনুযায়ি কাস্টমসের তদারকি করার কথা। আর বিজিবির সীমান্ত দিয়ে চোরাচালানি পন্য নিয়ন্ত্রনের কথা থাকলে ও বিজিবি আমদানি পন্য দেখা শুনার ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করছে। যার ফলে কাস্টমস কাজ বন্ধ করে দিলে আমদানি বানিজ্য বন্ধ হয়ে যায়।

বেনাপোল বন্দরের ব্যবসায়িরা অভিযোগ করে বলেছেন আমদানি বানিজ্য দেখার দায়িত্বে সরকারি দুই বাহিনির টানা হেচড়ায় তারা লোকশান গুনছে।

বেনাপোল বন্দরের আমদানি রফতানি বানিজ্যের সিনিয়ার সহ সভাপতি আমিনুল ইসলাম বলেন বাংলাদেশে ঢোকার অপেক্ষায় ভারতের পেট্রাপোল শত শত গাড়ি আমদানি পন্য নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। যদি সময় মত গাড়ি বন্দরে প্রবেশ করতে না পারে তবে ট্রাক প্রতি ২/৩ হাজার টাকা প্রতিদিন ডেমারেজ দিতে হবে। তাছাড়া রোদ বৃষ্টিতে ভিজে পচনশীল মালের ক্ষতি হবে। তিনি বলেন ফল পিয়াজ মাছ সহ নানা ধরনের পচনশীল পন্য বাংলাদেশে প্রবেশের অপেক্ষায় ভারতের পেট্রাপোল বন্দরে অপেক্ষা করছে।