রংপুরে মেস মালিকের নেশায় আসক্ত ছেলের দ্বারা প্রগতিশীল ছাত্রজোট নেতার উপর হামলা

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১০:৩৭ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১৫, ২০১৮ | আপডেট: ১০:৩৭:পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১৫, ২০১৮
রংপুরে মেস মালিকের নেশায় আসক্ত ছেলের দ্বারা প্রগতিশীল ছাত্রজোট নেতার উপর হামলা

গত ১৩ জুলাই রাত ১০ টায় রংপুর নগরীর প্রাণকেন্দ্র জাহাজকোম্পানী মোড় , আগমনী কাউন্টার সংলগ্ন একটি মেসে,মেস মালিকের নেশায় আসক্ত ছেলে রোমান (৩৫) দ্বারা হাতে প্রগতিশীল ছাত্রজোট নেতা, “বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন” কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক, “বাংলার চোখ” প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক, জাতীয় কবিতা পরিষদ, রংপুর বিভাগীয় শাখার, দপ্তর সম্পাদক, সড়ক পাঠাগার এর সমন্বয়ক, বাংলাদেশ ন্যাশনাল স্টুডেন্টস অর্গ্যানাইজেশন(বিএনএসও)এর কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা, নাট্যকর্মী , ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক, তরুণ সংগঠক ও সমাজকর্মী প্রত্যয়ী মিজান এর রুম খোলা পেয়ে তার চৌকি, বই এর র‌্যাগ, টেবিল ভাংচুর করতে থাকে, পাশের রুমে থাকা মিজান শব্দ পেয়ে রুমে আসলে এসব আটকাতে গেলে তার উপর হামলা চালায় নেশায় আসক্ত থাকা রোমান(৩৫)।

 

হামলায় তার বাম হাত ফুলে যায়, কোমড়ে প্রচণ্ড আঘাত পায়, কানে ঘুষি মারাতে তার কান থেকে রক্ত ঝরতে থাকে এবং তার গোপন স্থানেও আঘাত করা হয়। সংগঠন করার সুবাদে মেসে বিভিন্ন জন মিজানের সাথে দেখা করতে আসে আর মেসে এটা আসাটাও স্বাভাবিক কিন্তু রোমানের পাশে বাসা থাকা সত্ত্বেও মেসে তার নেশা করার একটা রুম আছে যা প্রত্যয়ী মিজানের রুমের সামনে ফলে সামাজিক,সচেতন সংগঠনের লোকজন মিজানের রুমে আসলে এটা রোমান তার জন্য হুমকি মনে করে তাই বেশ কিছুদিন ধরে সে তাকে রুম ছাড়তে বলে, কিন্তু মেসের মূল মালিক রোমানের বাবা এ বিষয়ে কিছু বলেনি তাই সে মেস ছাড়েনি।

 

মেস ছাড়েনি কেনো এই অজুহাতে রোমান এই তান্ডব ও হামলা চালায়। এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ স্থানীয় বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতারা, তারা এর তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানায়।তবে মেস মালিক পরিচিত হওয়ায় এ বিষয়ে মামলা করা হয়নি। আগামীকাল ১৪ জুলাই এই ব্যাপারে কর্মসূচি দেয়া হবে। উল্লেক্ষ্য ওরিয়েন্ট ক্লিনিকে প্রাথমিক চিকিতসা শেষে প্রত্যয়ী মিজান শরীরে প্রচুর যন্ত্রণা নিয়ে এক আত্মীয়ের বাসায় আছে।