মোরেলগঞ্জ একটি বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দায়ের

প্রকাশিত: ৩:৩০ অপরাহ্ণ, জুন ২৬, ২০১৮ | আপডেট: ৩:৩০:অপরাহ্ণ, জুন ২৬, ২০১৮

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলার হরতকিতলা গ্রামে প্রতিপক্ষকে জব্দ করতে ১০১ নং এনায়েতিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম সহ তার আত্মীয় স্বজনদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে হয়রানি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

অভিযোগ জানা গেছে, প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলামের নিকট আত্মীয় চাকুরীজীবি হরতকিতলা গ্রামের মোশারেফ খলিফার পুত্র নেয়ামুল খলিফা ঘটনাদিন ২১ জুন দুপুর আড়াইটার দিকে বাড়ির সামনে দাড়িয়ে ছিল। এসময় পূর্বপরিকল্পিতভাবে এবং শত্রæতার জের ধরে একই গ্রামের আবুল হোসেন হাওলাদারের পুত্র ফরহাদ হাওলাদার সহ কতিপয় মাদকাসক্ত দুর্বৃত্ত তার উপর সশস্ত্র হামলা চালায়। নেয়ামুল খলিফা দুর্বৃত্তদের হাত থেকে জীবন বাঁচাতে দৌঁড়ে নিজ বাড়ির দরজা আটকিয়ে আত্মরক্ষার চেষ্টা করে। সশস্ত্র দুর্বৃত্তরা তাকে ধাওয়া করে বাড়িতে প্রবেশ করতঃ দরজা জানালা বেড়া কুপিয়ে পিটিয়ে ভাংচুর করে নেয়ামুল খলিফা সহ ঘরের অন্যান্যদের মারপিট ও কুপিয়ে আহত কওে নগদ টাকা চুরি সহ ২ লক্ষ ৫ হাজার টাকার ক্ষতিসাধন করে। হামলায় নেয়ামুল খলিফা (৩০) ,রবিউল খলিফা (১৯), গৃহবধূ পারভীন বেগম (৩৮) ও মুছা হাওলাদার (২০) আহত হয়। গুরুতর আহত নেয়ামুল খলিফা, রবিউল খলিফা ও মুছা হাওলাদারকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও গৃহবধূ পারভীন বেগমকে মংলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় নেয়ামুল খলিফা বাদি হয়ে ফরহাদ হাওলাদার, আবুল হোসেন , কাওছার সহ ১৮ জন নামীয় আসামী করে ২৩ জুন মোরেলগঞ্জ থানায় মামলা দায়ের করেন। ঘটনাটি ভিন্নখাতে প্রবাহিত ও প্রতিপক্ষ জব্দ করতে আবুল হোসেন ২২ জুন প্রধান শিক্ষক শহিদুল ইসলাম, নেয়ামুল খলিফা সহ ২৩ জন নামীয় ও অজ্ঞাতনামা ৭/৮ জনকে আসামী করে একদিন আগে মামলা দায়ের করেন।