ঘুষের ১ লাখ টাকাসহ জেলা পরিষদ কর্মচারী আটক, চেয়ারম্যানের দাবি ‘সাজানো ঘটনা’

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১০:১৩ অপরাহ্ণ, জুন ১২, ২০১৮ | আপডেট: ১০:১৩:অপরাহ্ণ, জুন ১২, ২০১৮
ঘুষের ১ লাখ টাকাসহ জেলা পরিষদ কর্মচারী আটক, চেয়ারম্যানের দাবি ‘সাজানো ঘটনা’

একটি স্কুলকে মোটা অঙ্কের অনুদান পাইয়ে দেয়ার কথা বলে আদায় করা ঘুষের এক লাখ টাকাসহ দুদকের হাতে আটক হয়েছে সাতক্ষীরা জেলা পরিষদের এক কর্মচারী।

মঙ্গলবার সকালে জেলা পরিষদের অফিস চলাকালে মো. শাহীদুজ্জামান নামের ওই কর্মচারীকে আটক করা হয়। শাহীদুজ্জামান সাতক্ষীরা জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী অফিসারের সাঁটলিপিকার।

তবে সাতক্ষীরা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. নজরুল ইসলাম এ ঘটনাকে সাজানো এবং ষড়যন্ত্রমূলক দাবি করে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে ন্যায়বিচার প্রার্থনা করেছেন। একই সঙ্গে তিনি মো. শাহীদুজ্জামান মুক্তি দাবি করেছেন।

দুদক কর্মকর্তারা জানান, গোপন সূত্রে তারা জানতে পারেন, একটি স্কুলের অনুকূলে মোটা অঙ্কের অনুদান পাইয়ে দেয়ার কথা বলে সাঁটলিপিকার মো. শাহীদুজ্জামান এক লাখ টাকা ঘুষ আদায় করছেন। এ খবর পাওয়ার পরপরই কর্মকর্তারা জেলা পরিষদে পৌঁছে শাহীদুজ্জামানকে এক লাখ টাকাসহ হাতেনাতে আটক করেন। পরে তাকে সাতক্ষীরা থানায় সোপর্দ করা হয়।

এ ঘটনায় সাতক্ষীরা সদর থানায় দুদকের সহকারী পরিচালক মো. মাহাতাবউদ্দিন বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন।

শাহীদুজ্জামানকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

এ ঘটনাকে ‘ষড়যন্ত্র’ দাবি করে দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবে এক জরুরি সংবাদ সম্মেলন করেন সাতক্ষীরা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. নজরুল ইসলাম।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, এই মামলার সাক্ষী জেলা পরিষদের কর্মচারী মেহেদি ও জনৈক আবুল হাসান হাদি। তারাই পরিকল্পিতভাবে মো. শাহীদুজ্জামানকে ফাঁসানোর লক্ষ্যে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। তাদের নেপথ্যে কাজ করেছে জেলা পরিষদের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. মাহবুবুর রহমান। আটক শাহীদুজ্জামানের কাছে পাওয়া এক লাখ টাকা দুদক কর্মকর্তারা দেখাতে পারেননি বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বলেন, অভিযোগ যথাযথভাবে যাচাই-বাছাই না করে দুদক তাকে আটক করেছে। এতে প্রকৃতপক্ষে দুদক এবং সর্বোপরি সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ হচ্ছে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে সাতক্ষীরা জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম বাবু, সদস্য আল ফেরদৌস আলফা, আবদুল হাকিম, মাহফুজা রুবিসহ কয়েকজন সদস্য উপস্থিত ছিলেন।