খালেদা জিয়ার মুক্তি চাইলে অাদালতে যাক: প্রধানমন্ত্রী

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ১২:৫২ অপরাহ্ণ, জুন ১১, ২০১৮ | আপডেট: ১২:৫২:অপরাহ্ণ, জুন ১১, ২০১৮

কারাবন্দী বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি চাইলে দলটি আদালতে যাক বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গতকাল রোববার স্থানীয় সময় বিকেলে মেট্রো টরন্টো মেট্রো কনভেনশন সেন্টারে কানাডা আওয়ামী লীগ আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।    অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘অামি দেখলাম এখানেও অামার বিরুদ্ধে স্লোগান এলো কী, খালেদা জিয়ার মুক্তি চাই। অামি তো অ্যারেস্ট করিনি, মুক্তি তো অামার দেওয়ার কথা না। অামি যদি অ্যারেস্ট করতাম, তাহলে করতাম সেইদিন, যখন তিনি অাগুন দিয়ে পুড়িয়ে পুড়িয়ে মানুষ হত্যা করেছেন।’

এ সময় ২০১৩ ও ১৪ সালে বিএনপির তাণ্ডবের চিত্র তুলে ধরেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা করেছে তাদেরই পছন্দের ইয়াজউদ্দিন-ফখরুদ্দিন-মঈনুদ্দিন, এখানে অামাদের দোষটা কী? তার মুক্তি দেওয়ার অধিকার তো অামার নাই, কোর্টেরই অাছে, তারা কোর্টে যাক।’ খালেদা জিয়ার ছেলে মারা যাওয়ার পর তাকে দেখতে যাওয়ার ঘটনার প্রসঙ্গ টেনে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তাদের অনেক পারিবারিক সমস্যার সমাধান অামার বাবা করে দিয়েছেন, অথচ অামাকে ওই বাড়িতে ঢুকতে দেওয়া হলো না। অামার যদি কোনো খারাপ উদ্দেশ্য থাকতো তাহলে ওইদিন গেটের বাইরে থেকে অারও দুটো তালা মেরে পুলিশ পাহাড়ায় দিয়ে অাসতে পারতাম। অামি কিন্তু তা করিনি।’ আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে বিভিন্ন নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীদের জয়ী হওয়ার কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘বিভিন্ন নির্বাচনে তাদের প্রার্থীরা জয়ী হয়েছে। আমরা তো জনগণের ভোটের অধিকার নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে যাইনি।’ আওয়ামী লীগ সরকারের সময়ে সিটি করপোরেশনসহ বিভিন্ন নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়েছে বলে দাবি করেন আওয়ামী লীগ সভাপতি। তিনি বলেন, ‘অনেক চড়াই-উতরাই পেরিয়ে আমরা গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠিত করেছি। আন্দোলন সংগ্রাম করে নির্বাচনে সুষ্ঠু ধারা প্রতিষ্ঠিত করেছি।’ প্রবাসীদের একসঙ্গে মিলেমিশে থাকার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রবাসে মিলেমিশে থাকাটা জরুরি। এ সময় কানাডায় পালিয়ে থাকা বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনি নূর চৌধুরীকে ফেরত নিতে প্রবাসীদের সহযোগিতা চান তিনি। একই সঙ্গে বিভিন্ন দেশে পালিয়ে থাকা বঙ্গবন্ধুর আত্মস্বীকৃত খুনিদের দেশে ফিরিয়ে নিয়ে সাজা কার্যকর করতে সরকারের প্রচেষ্টার কথা জানিয়ে এ ক্ষেত্রেও প্রবাসীদের সহযোগিতা কামনা করেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর খুনিরা জাতির জন্য অভিশাপ। কানাডা আওয়ামী লীগের সভাপতি গোলাম মোহাম্মদ মাহমুদ মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী, আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ। এ সময় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে মাহবুব-উল আলম হানিফ বলেন, ‘দেশে ও  বিদেশে সরকারের উন্নয়নকাজ তুলে ধরতে হবে। একই সঙ্গে বিএনপি জামায়াতের অশুভ তৎপরতার বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকতে হবে।’