‘তানিয়া বলছি, হোটেলে তরুণীর সঙ্গে সময় কাটাতে চান?’

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৬:৪৫ অপরাহ্ণ, জুন ৫, ২০১৮ | আপডেট: ৬:৪৫:অপরাহ্ণ, জুন ৫, ২০১৮
‘তানিয়া বলছি, হোটেলে তরুণীর সঙ্গে সময় কাটাতে চান?’

মোবাইলের স্ক্রিনে ভেসে আছে আকর্ষণীয় একজন সুন্দরী নারীর ছবি। পাশে লেখা, ‘আমার সঙ্গে ডেটিং করতে চান?’ লেখাটি দেখে চিন্তা-ভাবনা না করেই করলেন একটি ক্লিক। এরপর ধাপে ধাপে নাম, মোবাইল নম্বর, বয়স আর ঠিকানা লিখে নিবন্ধন করে নিলেন।

নিবন্ধন শেষ হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই এলো ফোন, ‘হ্যালো, তানিয়া বলছি। সারা দিন ধরে পাঁচতারা হোটেলে সুবেশী তরুণীর সঙ্গে সময় কাটাতে চান? তা-ও একেবারে একান্তে।’

ভাবছেন হয়েই গেল সুন্দরী তরুণীর সঙ্গে ডেটিংয়ের ব্যবস্থা! না, যা ভাবছেন সেরকম কিছু ঘটেনি, বরং একটি ফোনকলেই ১২ লাখ ৫৫ হাজার টাকা খোয়ালেন ভারতের মুম্বাইয়ের এক ব্যাংকের কর্মী।

ভুক্তভোগী ওই ব্যক্তির বরাত দিয়ে আনন্দবাজার পত্রিকা জানায়, ঘটনাটি ঘটেছে ২১ মে। একটি ডেটিং অ্যাপলিকেশনের বিজ্ঞাপন চোখে পড়েছিল তার। এরপর ক্লিক। ফোনে তানিয়া নামের মেয়েটি বলেন, ‘একটি ডেটিং সংস্থা আছে আমাদের। এতে প্রথমে কিছু টাকা দিতে হয়। তবে সুন্দরী নারীদের সঙ্গে ডেটের পর প্রায় পুরো টাকাটাই ফিরিয়ে দেওয়া হয়।’

টাকা ফিরে পাওয়ার কথা শুনে কোনো চিন্তা না করেই প্রথম দফায় সাড়ে তিন লাখ, তারপর আরও তিন দফায় সাত লাখ টাকা দিয়ে দেন ওই ব্যক্তি। কিন্তু কোনো সুন্দরীর দেখা পাননি তিনি।

পরে মিনি নামের আরও এক নারী ফোন করে পুনরায় বেশ কিছু টাকা দেওয়ার কথা বলেন। এরপর কথা হয়, কলকাতার শুভজিৎ মণ্ডল নামে এক ব্যক্তির সঙ্গেও। তখন ওই ব্যক্তি বুঝতে পারেন যে, প্রতারকদের ফাঁদে পা দিয়ে ফেলেছেন তিনি।

বিষয়টি ওই ব্যক্তি তার স্ত্রীকে জানালে মুম্বাইয়ের দাদর থানায় প্রতারণার অভিযোগ একটি মামলা করেন তারা। মামলার অভিযোগে পুলিশের কাছে চারজনের নাম উল্লেখ করেছেন ওই দম্পতি।

এ ঘটনায় পুলিশের এক কর্মকর্তা জানান, প্রতারকদের খুঁজছে পুলিশ। এখনো পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করা যায়নি। তবে, ডেটিং অ্যাপ ব্যবহার যত বাড়ছে, তত বাড়ছে অপরাধের প্রবণতাও। অনলাইন ডেটিং অ্যাপের ফাঁদে পড়ে সর্বস্বান্ত হওয়ার আরও বেশ কয়েকটি অভিযোগ রয়েছে থানায়।