ঝালকাঠি জেলা যুবদলের কমিটি ঘোষণা

প্রকাশিত: ২:৪৬ পূর্বাহ্ণ, জুন ২, ২০১৮ | আপডেট: ২:৪৬:পূর্বাহ্ণ, জুন ২, ২০১৮

দীর্ঘ প্রতিার পর অবশেষে ঝালকাঠি জেলা যুবদলের কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে। ১০ বছর পরে এম কামরুল ইসলামকে সভাপতি ও রবিউল হোসেন তুহিনকে সাধারন সম্পাদক করে যুবদল সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল ও সাধারন সম্পাদক সাইফুল ইসলাম নীরব ৫ সদস্য বিশিষ্ট এ কমিটি ঘোষণা করেন। শুক্রবার এ কমিটি ঘোষণা করা হয়।
জেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক মনিরুল ইসলাম নুপুর জানান, জেলা যুবদলের কমিটি নিয়ে অনেক চড়াই-উৎরাই পার করতে হয়েছে। অবশেষে শুক্রবার যুবদলের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সমাজকল্যান বিষয়ক সম্পাদক এম কামরুল ইসলামকে সভাপতি, কামাল হোসেন মল্লিককে সিনিয়র সহসভাপতি, রবিউল হোসেন তুহিনকে সাধারন সম্পাদক, আসলাম হোসেনকে যুগ্ম সাধারন সম্পাদক ও অ্যাডভোকেট আনিচুর রহমান খানকে সাংগঠনিক সম্পাদক করে কমিটি ঘেষনা করা হয়েছে।
দলীয় সূত্রে জানাগেছে, জোট সরকারের আমলে মীর জিয়াউদ্দিন মিজান সভাপতি ও আবুল কালাম আজাদ সম্পাদক ছিলেন। সে সময় জেলা যুবদল শক্ত অবস্থানে ছিল। বিএনপি মতা হারানোর পর সেই কমিটি ভেঙে দেওয়া হয়। এরপর জেলা বিএনপির বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম নুপুরকে আহ্বায়ক এবং মেহেদী হাসান খান বাপ্পী, রবিউল হোসেন তুহিন, নাসিমুল হাসান ও শামীম তালুকদারকে যুগ্ম আহ্বায়ক করে যুবদলের আহ্বায়ক কমিটি করা হয়। এ কমিটি ৫ বছরেও সম্মেলন করে পূর্ণাঙ্গ কমিটি করতে না পারায় ২০১৩ সালে এম কামরুল ইসলামকে সভাপতি ও শামিম তালুকদারকে সম্পাদক করে ২ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি করা হয়। কেন্দ্রের নির্দেশ অনুযায়ী ২ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি ৯০ দিনের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ কমিটি করার কথা থাকলেও তা আর হয়নি। শুরু থেকেই দুই সদস্যের কমিটি তাদের সমর্থকদের নিয়ে জেলা বিএনপির বিপে অবস্থান নিয়ে আসছে। এ নিয়ে তৃণমূলের দলীয় নেতা-কর্মীদের মধ্যেও ছিলো অসন্তোষ। এ অবস্থায় কেন্দ্রে পরিচিত মুখ হওয়ায় সভাপতি এম. কামরুল ইসলামকে সভাপতি ও জেলা যুবদলের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক রবিউল ইসলামের নাম সাধারণ সম্পাদক পদে এবং অপর তিনটি গুরুত্বপূর্ণ পদে নতুন নাম দিয়ে প্রস্তব পাঠায় জেলা বিএনপি। কেন্দ্রীয় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও সাবেক আইনপ্রতিমন্ত্রী ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর বীর উত্তম এ কমিটি পাশের বিষয়ে কেন্দ্রে লবিং করেন। পাশাপাশি এই প্রস্তাবিত নামের বিরোধিতা করে যুবদলের তিনটি থানা কমিটি বর্তমান সম্পাদক শামিম তালুকদারকে সভাপতি ও আইনজীবী আনিসুর রহমানকে সম্পাদক করে কেন্দ্রে অনুরূপ শীর্ষ ৫ পদের নাম প্রস্তাব করে পাঠায়।
এ বিষয়ে জেলা যুবদলের (সাবেক) সাধারণ সম্পাদক শামিম তালুকদার বলেন, “কেন্দ্র থেকে জেলা যুবদলের কমিটি ঘোষণা করেছে শুনেছি। কিন্তু এখন পর্যন্ত নিশ্চিত হতে পারিনি।” এ বিষয়ে জেলা যুবদলের সভাপতি এম. কামরুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের কমিটি ঘোষণার ৯০ দিনের মধ্যেই আমরা কেন্দ্রে পূর্ণাঙ্গ কমিটি জমা দিয়েছিলাম। তখন কেন্দ্রীয় নেতারা মামলা ও কারাবন্দীর শিকার হওয়ায় এ কমিটি অনুমোদন করা যায়নি। বর্তমানে কেন্দ্র দলীয় সুবিধার্থে যে কমিটি ঘোষণা দিয়েছে আমি তা অকপটে মেনে নিয়েছি। এ বিষয়ে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম নুপুর বলেন, ‘জেলা যুবদলের পূর্ণাঙ্গ কমিটি বিভিন্ন জটিলতার কারণে করা যায়নি। এর দায় কেন্দ্রীয় নেতাদের পাশাপাশি আমাদেরও আছে। নতুন কমিটিকে সাদরে গ্রহণ করে কেন্দ্রকে ধন্যবাদ জানান তিনি।’