বাকেরগঞ্জে ধর্ষণে চেষ্টা মামলার বাদীকে হত্যার উদ্যেশে হামলা

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৯:৪৮ অপরাহ্ণ, মে ২৫, ২০১৮ | আপডেট: ৯:৪৮:অপরাহ্ণ, মে ২৫, ২০১৮
বাকেরগঞ্জে ধর্ষণে চেষ্টা মামলার বাদীকে হত্যার উদ্যেশে হামলা

বাকেরগঞ্জ প্রতিনিধি:

বাকেরঞ্জের রঙ্গশ্রী ইউনিয়নের দাওকাঠী গ্রামের ৭ম শ্রেনী ছাত্রী শ্লীলতাহানির মামলা তুলে না নেওয়ায় জন্য বাদী রুবী বেগমের উপর ছাত্রলীগের সাংগঠনিক কালাম বাহিনী হামলা চালায়। তথ্য সূত্রে জানা যায়, গত ১০ মে কাঠালিয়া ইসলামিয়া দারুসুন্ন্যত দাখিল মাদ্রাসার ৭ম শ্রেনীতে পড়–য়া ছাত্রী রুবি বেগমের মেয়েকে ঘরে প্রবেশ করে একই এলাকার উপজেলা ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কালাম ওরফে থানার দালাল ঘুডু কালামের ভাতিজা নয়ন ও রানা খান শ্লীলতাহানি করেন।

 

ওই ঘটনায় মেয়ের মা রুবি বেগম বাদী হয়ে ২ জনকে আসামী করে বাকেরগঞ্জ থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেন। কিন্তু রহস্য জনক কারনে ১২ মে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলাটি রেকর্ড করেন বাকেরগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ। এরপরে কালাম ও তার পালিত সন্ত্রাসী বাহিনীরা রুবি বেগমকে বিভিন্ন মাধ্যমে মামলা তুলে নিতে মারধরসহ প্রান নাশের হুমকী দিয়ে আসে। পরে বাকেরগঞ্জ থানা পুলিশ আসামী ধরতে কালক্ষেপন করে বাদীকে নয় ছয় বুঝিয়ে রাখে।

 

গত ২৩ মে রাত সাড়ে ৯ টার দিকে বাকেরগঞ্জ থেকে রুবি বেগম তার নিজ বাড়ীতে যাওয়ার পথে ঘুডু কালাম ও তার পালিত সন্ত্রাসী বাহিনী পরিকল্পিত ভাবে অর্তকিত হামলা চালায়। এতে রুবি বেগম গুরুত্ব রক্তাত্ব জখম করে হাত-পা বেধে রাস্তার পাশে ফেলে রেখে যায়। এ সময় স্থানীয়রা রুবিকে আহত অবস্থায় দেখে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য-কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। পরে গত ২৫ মে (রোজ শুক্রবার) আহত রুবির মুখ ও নাক থেকে রক্ত ঝড়তে দেখে কর্তব্যরত ডাক্তার উন্নত চিকিৎসার জন্য রুবিকে বরিশাল শেবামে প্রেরন করেন।

 

এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত রুবি বেগম মৃত্যু সজ্জায় রয়েছে। এ ঘটনায় রুবি বেগমের মা হোসনেয়ারা বেগম বাদী হয়ে বাকেরগঞ্জ থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ে করেন। অনেক জল্পনা কল্পনার পরে গত ২৫ মে অফিসার ইনচার্জ অভিযোগটি আমলে নিয়ে এজাহারভুক্ত করেন।

 

রুবীর ভাই মোঃ মিজান অভিযোগ, আমার ভাগ্নীকে যার শ্লীলতাহানী করছেন তারাই আমার বোন রুবী বেগমের উপর হামলা করেছে। ঘুডু কালাম আমার বোনকে মামলা তুলে নেওয়ার জন্য একাধিকবার হুমকি দিয়েছে। আমার বোন মামলা তুলে না নেওয়া ঘুডু কালাম ও তার পালিত সন্ত্রাসী বাহিনী আমার বোনের উপর হামলা চালায়। এ বিষয় খান আবুল কালাম জানান, আমার ও আমার বাতিজাদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সঠিক নয় তাদের সাথে জমি সংন্ত্রান্ত বিরোধ থাকায় মিথ্যা নাটক সাজিয়ে আমার সুনাম নষ্ট করার জন্য চেষ্টা করছেন। এ বিষয় বাকেরগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ মো. মাসুদুজ্জামান বলেন, রুবি বেগমের উপরে হামলা মামলাটি নিয়েছি। তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। উল্লেখ্য কালাম ও তার পালিত সন্ত্রাসী দ্ধারা গত বছর দুই বছর আগে মিজান হাওলাদারের একটি পা কেটে নিয়ে যায়।অবশেষে কালামের ভাতিজা দিয়ে মিজানের ভাগ্নীর ইজ্জত কেড়ে নিতে চেয়ে ছিল। থানায় মামলা করেও কোন প্রকার আইনি সহযোগীতা পাইনি বলে উপস্থিত সংবাদ কর্মীদের সাথে কান্নায় ভেঙে পরেন। কান্না জরিত কন্ঠ মিজান বলেন কালামের ভয়ে কি আমাদের দেশ ছেড়ে পালাতে হবে?।