জামালপুরে মেলান্দহে অবৈধভাবে নোংড়া পরিবেশে তৈরী হচ্ছে লাচ্ছা সেমাই !

ওসমান হারুনী ওসমান হারুনী

জামালপুর প্রতিনিধি

প্রকাশিত: ৪:১০ অপরাহ্ণ, মে ২৫, ২০১৮ | আপডেট: ৪:১০:অপরাহ্ণ, মে ২৫, ২০১৮
জামালপুরে মেলান্দহে অবৈধভাবে নোংড়া পরিবেশে তৈরী হচ্ছে লাচ্ছা সেমাই !

জামালপুরে মেলান্দহে অবৈধভাবে নোংড়া পরিবেশে তৈরী হচ্ছে লাচ্ছা সেমাই !ওসমান হারুনী,জামালপুর প্রতিনিধি:জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার চাঙ্গামোড়ে লিটন মিয়ার বাড়ীতে সংশ্লিষ্ঠ অধিদপ্তরের অনুমতি ছাড়াই অবৈধভাবে নোংরা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে তৈরী হচ্ছে লাচ্ছা সেমাই। সেমাই কারখানাটি সরেজমিনে পরিদর্শনে দেখা গেছে,সেমাই তৈরীর কারিগররা খালিগায়ে গর্মাক্ত দেহে নোংরা, ঘেঞ্জি ও স্যাঁতসেঁতে পরিবেশ সেমাই তৈরীর কাজ করছে। চারদিকে পচা দুর্গন্ধ। কারিগরদের শরীর থেকে ঝরছে ফোঁটা ফোঁটা ঘাম।

 

খামির তৈরীর জায়গায় খালি পায়ে এক শিশু কারিগর সারারাত কাজ করে ঘোমাচ্ছে। পাশেই মেশানো হচ্ছে ডাল্টা,রং। সেমাই ভাজা হচ্ছে বাসি তেলে। চারিদিকে ঘোর ঘোর করছে মশা,মাছি। ময়দা মেশিনের পাশে ময়লা আবর্জনা। সেমাই খোলা শুকানো স্থানেই যেখানে গৃহ পালিত পশু পাখি অবাধ বিচরণ করছে। সেমাই রাখা পালংকের নিচেই রাখা হয়েছে মুরগী। ডাক্তারদের মতে,এসব পরিবেশে তৈরী সেমাই মানুষ খেলে তাৎক্ষণিক ডায়ারিয়া, গ্যাস্টিক ছাড়াও দীর্ঘ মেয়াদে ক্যান্সারও হতে পারে।
জানা যায়,বেশি মুনাফার আশায় এসব লাচ্ছা সেমাই তৈরীতে ব্যবহার করা হচ্ছে ক্ষতিকারক ফেভিকল গাম ও আইকা। ময়দা,পামওয়েলসহ অত্যান্ত নিম্মমানের তেল।

বিএসটিআইয়ের অনুমোদনবিহীন জেলার মেলান্দহ উপজেলার দুরমুঠ ইউনিয়নের বীরহাতিজা গ্রামের চাঙ্গামোড় অবস্থিত এ লাচ্চা সেমাই কারখানায় গত দুই বছর ধরে এমন পরিবেশে সেমাই তৈরি করে বাজারজাত করছে কারখানার মালিক লিটন মিয়া। কারখানাটি’র নেই কোন বৈধ কাগজ পত্র।
এ ব্যাপারে মেলান্দহ স্যানেটারী ইন্সপেক্টর রাবেয়া বেগম জানান,চাঙ্গা মোড়ে কারখানায় এ বছর সেমাই তৈরী হচ্ছে কিনা জানি না;তবে গত বছর এক বছরের জন্য সেমাই তৈরীর অনুমোদন ছিল সেখানে। এবছর আর লাইসেন্স নবায়ন হয়নি। আপনারা রিপোর্ট করেন খোঁজ নিয়ে দেখবো।

খোজঁ নিয়ে জানা যায়,একই ভাবে জেলার বিভিন্ন উপজেলায় আসন্ন ঈদকে কেন্দ্র করে অধিক মুনাফার আশায় এক শ্রেণির অসাধু খাদ্য উৎপাদনকারী ব্যবসায়ী অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে ভেজালসামগ্রী দিয়ে সেমাই উৎপাদন ও বাজারজাত করছে। বিষয়টি যেন দেখার কেউ নেই।