উপকুলজুড়ে চলছে ইলিশ শিকারের প্রস্তুতি

প্রকাশিত: ২:২২ অপরাহ্ণ, মে ২৪, ২০১৮ | আপডেট: ২:২২:অপরাহ্ণ, মে ২৪, ২০১৮
উপকুলজুড়ে চলছে ইলিশ শিকারের প্রস্তুতি

বরগুনা প্রতিনিধি ।।
আসন্ন ইলিশ মৌসুমকে ঘিরে বরগুনা জেলার উপকুলীয় জেলেদের এখন চলছে গভীর সমুদ্রের ইলিশের আবা¯হলে যাওয়ার পূর্ব প্রস্তুতি।কেউ নতুন ট্রলার তৈরী শেষ করছেন,কেউ পুরাতন ট্রলার মেরামতের কাজ করছেন,আবার কেউ পুরাতন জাল গুছিয়ে নিচ্ছেন কিংবা নতুন কিনছেন।গত বছর সাগরে জেলের জালে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়ায় ও সমুদ্রে জলদস্যুদের তৎপরতা কম থাকায় এ বছরে ব্যাপক প্রস্তুতি লক্ষ্য করা গেছে।প্রতিটি জেলে পল্লীতে একই দৃশ্য পরিলক্ষিত হয়েছে।

 

দেশের বৃহৎ ইলিশের মোকাম বরগুনার পাথরঘাটার বিএফডিসি মৎস্য অবতরন কেন্দ্রও প্রস্তুত।বরগুনা জেলার পাথরঘাটা উপজেলার চরদুয়ানী,রুহিতা,পদ্মা,হরিণঘাটা ও তালতলী উপজেলার আশারচর,পায়রা নদীর মোহনা,শুটকি পল্লী সহ আশপাশের এলাকায় এখন জেলেদের গভীর সাগরের যাওয়ার পূর্ব প্রস্তুতি চলছে।এদিকে ট্রলার মালিকরাও বসে নেই তারাও ব্যাস্ত হয়ে পরেছেন কিভাবে তাদের ট্রলার গভীর সমুদ্রে পাঠান যায়।জেলার পাথরঘাটা ও তালতলীর সবক’টি জেলে পল্লীতে এমন প্রস্তুতি দেখা গেছে।বর্তমানে অল্প সংখ্যক ইলিশ এখন জেলেদের জালে ধরা পড়ছে।তবে আসন্ন ঈদের আগেই ভরা মৌসুম শুরু হবে ইলিশ শিকারের।তখন জেলেদের জালে ঝাঁকে ঝাঁকে ধরা পড়বে ইলিশ।

 

তাই পুরোদমে ইলিশ ধরার প্রস্তুতি নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন এসকল জেলেসহ পেশার সাথে সংশ্লিষ্টরা।সংশ্লিষ্ট জেলে ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে,দেশের দ্বিতীয় মৎস্য অবতরন কেন্দ্র বরগুনা জেলার পাথরঘাটা উপজেলায় হওয়ায় বিষখালী ও বলেশ্বর নদীর তীরবর্তী পাথরঘাটা,পদ্মা,চরদুয়ানী,রুহিতা,হরিণঘাটাসহ উপকুলের সকল জেলেরা অন্তত শতাধীক নতুন ট্রলার তৈরি করছেন।এরা সবাই গভীর সাগরে এ বছর ইলিশ শিকারের জন্য প্রস্তুত হয়েছেন।পাথরঘাটা উপকুলের জেলে মনির,রুবেল,হানিফ,মহিন,আলালসহ অনেক জেলেই জানান, এখন যারা সাগরে মাছ শিকারে নামছে তারা অল্প সংখ্যক ইলিশ পাচ্ছে।তবে আর কিছুদিন গেলেই ঈদের দু’চার দিন আগে পুরো মৌসুম শুরু হবে।ওই সময় প্রত্যেক জেলে প্রচুর পরিমাণ মাছ শিকার করবে।জেলেদের ঈদটাও ভালো কাটবে বলে জানান তারা।বরগুনা জেলা মৎস্যজীবি ট্রলার মালিক সমিতির সভাপতি গোলাম মোস্তফা চৌধুরী জানান, সামনে ঈদকে ঘিরেই ইলিশ মৌসুমে গভীর সমুদ্রে ইলিশ শিকারের জন্য ট্রলার মালিক ও জেলেদের মধ্যে ব্যাপক প্রস্তুতি শেষ করতে দেখা গেছে।ইতিমধ্যেই প্রায় তাদের সকল প্রস্তুতি শেষ।এখন শুধু জাল ফেলতে সমুদ্রে যাবার আপেক্ষা।তিনি আশাবাদী এ বছর জেলেরা গত বছরের চেয়েও বেশী মাছ শিকার করবে।