ফরিদপুরে বাবাকে পুড়িয়ে হত্যা: ২ বছর পর ছেলে গ্রেপ্তার

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৪:০৭ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৪, ২০১৮ | আপডেট: ৪:০৭:অপরাহ্ণ, এপ্রিল ২৪, ২০১৮
ফরিদপুরে বাবাকে পুড়িয়ে হত্যা: ২ বছর পর ছেলে গ্রেপ্তার

ফরিদপুরে মোটরসাইকেল কিনে না দেওয়ায় পেট্রোল ঢেলে আগুনে পুড়িয়ে নিজ বাবাকে হত্যা মামলার আসামিকে প্রায় দুই বছর পর গ্রেপ্তার করা হয়েছে।গোপন সংবাদের ভিক্তিতে ফরিদপুর কোতয়ালী থানা পুলিশ সোমবার গভীর রাতে ঢাকার জিগাতলা থেকে মুগ্ধকে আটক করে। গ্রেপ্তারকৃতর নাম ফারদিন হুদা মুগ্ধ (১৯)।

মামলা ও কোতয়ালী থানা সূত্রে জানা গেছে, শহরের কমলাপুর বটতলা এলাকার বাসিন্দা রফিকুল হুদা পিন্টুকে বিভিন্ন সময় মোটরসাইকেল কিনে দেবার জন্য চাপ দেয় তার একমাত্র পুত্র ফারদিন হুদা মুগ্ধ। ২০১৬ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর বিকেলে মুগ্ধ তারা বাবাকে ফের মোটরসাইকেল কিনে দেবার জন্য চাপ প্রয়োগ করে। কিন্তু তার বাবা মোটরসাইকেল কিনে দেবেন না বলে মুগ্ধকে সাফ জানিয়ে দেয়।

এরপর মুগ্ধ উত্তেজিত হয়ে তাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়। বাবা-ছেলের বাক বিতণ্ডার এক পর্যায়ে মুগ্ধ তার বাবার উপর পেট্রোল ছুড়ে মেরে আগুন ধরিয়ে দেয়। রফিকুল হুদার চিৎকারে তার স্ত্রী সিলভিয়া হুদা এগিয়ে এসে আগুন নেভানোর চেষ্টা করে সেও গুরুতর আহত হয়। আশংকাজনক অবস্থায় দুইজনকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায় স্থানীয়রা। পরে অবস্থার অবনতি হলে রফিকুল হুদাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করে। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২১ সেপ্টেম্বর ভোর চারটার দিকে রফিকুল হুদা মারা যায়।

এ ঘটনায় নিহতের ভাই আকরামউদ্দিন ফরিদপুর কোতয়ালী থানায় ফারদিন হুদা মুগ্ধকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। মামলার পর থেকেই পলাতক ছিল মুগ্ধ। গোপন সংবাদের ভিক্তিতে কোতয়ালী থানা পুলিশ জানতে পারে ঘাতক মুগ্ধ ঢাকার জিগাতলা এলাকায় রয়েছে। সোমবার রাতে পুলিশ জিগাতলার একটি বাসা থেকে মুগ্ধকে আটক করে ফরিদপুরে নিয়ে আসে।

ফরিদপুর কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এএফএম নাসিম বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, গোপন সংবাদের ভিক্তিতে প্রায় দুই বছর পর দেশব্যাপী আলোচিত এ ঘটনার একমাত্র আসামীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদে বাবাকে হত্যার কথা অকপটে স্বীকার করে মুগ্ধ।