‘৫ জানুয়ারির মতো নির্বাচন হলে দলের মনোনয়ন চাইব না’

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৮:৪৪ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ২৪, ২০১৮ | আপডেট: ৮:৪৪:পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ২৪, ২০১৮
‘৫ জানুয়ারির মতো নির্বাচন হলে দলের মনোনয়ন চাইব না’

টেলিভিশন নিউজ এজেন্সির (টিভিএনএ) নিজস্ব স্টুডিওতে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে সাবেক সাংসদ ও রাজনীতিবিদ গোলাম মাওলা রনি বলেছেন, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে দলের কাছে মনোনয়ন চাইনি আমি। ৫ বছর এমপিগিরির কারণে আমার ব্যবসা-বাণিজ্য, পরিবার সবকিছু তখন এলোমেলো হয়ে গিয়েছিল । এসব ঘুছিয়ে আনার জন্য আমার একটি ব্্েরক দরকার ছিল, সেটা নিয়েছিলাম।

তিনি বলেন, ৫ জানুয়ারির একতরফা নির্বাচন আমি মনেপ্রাণে মেনে নিতে পারিনি। বিনা ভোটে নির্বাচিত হবো এমনটি আমার পক্ষে মেনে নেওয়া সম্ভব ছিল না। এ ধরনের নির্বাচন যদি আগামীতেও হয় দলের মনোনয়ন চাইব না আমি। আমি মনে করি দলের বিরুদ্ধে এটা বিদ্রোহ নয়। এ নিয়ে যদি দল বিতর্ক করতে চায়, আমি প্রন্তুত আলোচনায় বসতে। কিন্তু দল যদি মনে করে এটা বিদ্রোহ এবং এ কারণে মনোনয়ন দেবে না তা দলের একান্ত সিদ্ধান্ত। দল করার জন্য মনোনয়ন পেতে হবে, চাইতেই হবে তা নয়।

তিনি আরও বলেন, একাদশ সংসদ নির্বাচনে আমি দলের কাছে মনোনয়ন চাইব। মনোনয়ন পাওয়ার ব্যাপারেও আমি যথেষ্ট আশাবাদী। কারণ মনোনয়ন পাওয়া বা ভোট যুদ্ধে জয়ী হওয়ার জন্য যে কাজগুলো করা দরকার প্রাথমিকভাবে তা দীর্ঘদিন ধরে আমি করে আসছি। বিগত নির্বাচনে যে ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছিলাম, দলের মনোনয়ন পেলে তার দ্বিগুণ ভোটে বিজয়ী হবো বলে আমার বিশ্বাস।

গোলাম মাওলা রনি বলেন, আমার সঙ্গে দলের কখনোই কোনো দূরত্ব ছিল না। আগেও যেমন দলের সঙ্গে আমার ভালো সম্পর্ক ছিল, এখনো আছে। মাঝখানে যখন জেলে ছিলাম, তখনো ভালো ছিল। বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের র কারণে আমি জেলে যাই নি, একজন বিতর্কিত মানুষের বিতর্কিত প্রচেষ্টা ছিল আমাকে বিতর্কিত করার। দেশের শান্তিপ্রিয়, বিবেকবান মানুষেরা খুব ভালো করেই জানত আসলে প্রকৃত ঘটনা কী, কেন গোলাম মাওলা রনি জেলে গেল, কী কারণে আমার অফিসে অনভিপ্রেত ঘটনা ঘটল। মানুষের আস্থা এবং বিশ্বাসের জায়গাটা ধরে আমি আমার মতো করে কাজ করে যাচ্ছি।

তিনি বলেন, বিরোধিতা করে আমার মনোনয়ন ঠেকিয়ে দেবে এমন কাউকে আমি দেখি না। এখানে সর্বোচ্চ সিদ্ধান্তটি জননেত্রী শেখ হাসিনা নিয়ে থাকেন। তিনি যদি প্রয়োজন মনে করেন, নির্দিষ্ট একটি ফোরাম রয়েছে, যাদের তিনি পছন্দ করেন তাদের সঙ্গে আমার ভালো সম্পর্ক রয়েছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমার প্রতি আস্থাশীল। কখনোই তার সঙ্গে আমার সম্পর্কের চির ধরেনি, এখনো নয়। তবে আমার বিরোধিতাকারী থাকলেও তারা ইফেক্টিভ নয়। তারা হয়তো আমাকে গালাগালি করবেন, রাজপথে চিৎকার করতে পারবেন, যে পত্রিকা আমাকে পছন্দ করে না সেখানে আমার বিরুদ্ধে লেখালেখি করতে পারবেন। কিন্তু মনোনয়ন পাওয়া ও রাজনীতির ক্ষেত্রে আমার কোনো ক্ষতি তারা করতে পারবেন না।