প্রেমিকের আত্মহত্যার খবরে জীবন দিলো প্রেমিকাও

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৭:৫২ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ২৩, ২০১৮ | আপডেট: ৭:৫২:পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ২৩, ২০১৮
প্রেমিকের আত্মহত্যার খবরে জীবন দিলো প্রেমিকাও

প্রেমিকের চেয়ে নিজের ভালোবাসাও কম না তারই প্রমাণ দিতে নিজেও আত্মহত্যার পথ বেছে নিলো এক প্রেমিকা। রোববার সকালে প্রেমিক এজাজুল করিমের আত্মহত্যার খবরে প্রেমিকা পপিও আত্মহত্যা করেছে। ঘটনাটি ঘটেছে নাটোরের লালপুরে। বিষয়টি এখন এলাকার আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে রূপ নিয়েছে। গলায় গামছা পেঁচিয়ে প্রেমিক এজাজুলের আত্মহত্যার ৭/৮ ঘণ্টা পরই আত্মহত্যা করে পপি। প্রেমিক এজাজুল করিম লালপুরের নবীনগর গ্রামের আনছার আলীর ছেলে ও পাবনা পলিটেকনিক্যাল ইনস্টিটিউটের সিভিল শাখার ৩য় বর্ষের ছাত্র এবং প্রেমিকা পপি খাতুন একই উপজেলার শ্রীরাম গাড়ি গ্রামের সাজদার আলীর মেয়ে ও পাটিকাবাড়ী বিলায়েত খান উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির ছাত্রী।

 

পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, রোববার সকালে উপজেলার নবীনগর গ্রামের আনছার আলীর ছেলে এজাজুল করিমের ঘুম থেকে উঠতে দেরি দেখে পরিবারের লোকজন ডাকাডাকি করে। কিন্তু তার সাড়া না পেলে দরজা ভেঙ্গে ঘরে ঢুকে তাকে তীরের সঙ্গে ঝুলতে দেখে। এদিকে প্রেমিক এজাজুলের মৃত্যুর খবর শুনে সকাল সাড়ে দশটার দিকে পপিও তার ঘরের তীরের সঙ্গে ঝুলে আত্মহত্যা করে। শনিবার রাতের কোনো এক সময় করিম গলায় গামছা পেঁচিয়ে ঘরের তীরের সঙ্গে আত্মহত্যা করে। পরে পুলিশ গিয়ে তার মরদেহ উদ্ধার করে। পপির মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্কটি বেরিয়ে আসে। এটাই এখন আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে উঠে আসে।

 

এবি ইউপি সদস্য আজিজুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন। এদিকে তাদের আত্মহত্যার কারণ এখনো নির্ণয় করতে পারেনি পুলিশ। লালপুর থানার ওসি আবু ওবায়েদ এজাজুল ও পপির আত্মহত্যর ঘটনা নিশ্চিত করে জানান, এদের দুই জনের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল কিনা তা এই মুহূর্তে নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না। এটা রটনাও হতে পারে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। লাশ ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হবে।