নির্বাচন মামার বাড়ির আবদার নয় : সেতুমন্ত্রী

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৩:১৭ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১০, ২০১৭ | আপডেট: ৩:১৭:অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১০, ২০১৭
নির্বাচন মামার বাড়ির আবদার নয় : সেতুমন্ত্রী

জাতীয় নির্বাচন প্রসঙ্গে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি একবার বলে তত্তাবধায়ক সরকার, আবার বলে সহায়ক সরকারে অধিনে নির্বাচন দিতে হবে। এটা কি মামার বাড়ির আবদার ? নির্বাচন মামার বাড়ির আবদার নয়।
বিশ্বের অন্যান্য দেশের ন্যায় সংবিধান অনুযায়ী দেশের চলমান সরকারের অধিনেই নির্বাচন হবে। শেখ হাসিনার সরকার নির্বাচন কমিশনকে সহায়তা করবে। আজ শুক্রবার সকালে জামালপুর জেলার মেলান্দহ উপজেলার হাজরাবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত পথ সভায় তিনি এ কথা বলেন।

আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশকে বাঁচাতে হলে আর মুক্তিযোদ্ধাদের বাঁচাতে হলে আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হবে এবং শেখ হাসিনাকে বাঁচাতে হবে। মির্জা আজম এমপি যেমন জামালপুরের অনেক উন্নয়ন করছেন এবং বহু উন্নয়ন কর্মকাণ্ড শুরু করা হয়েছে। এসব চলমান উন্নয়ন কর্মকাণ্ড সমাপ্ত করতে এদেশে শেখ হাসিনার সরকার আরেক বার দরকার। শেখ হাসিনাকে আরেকবার ক্ষমতায় রাখতে হবে। তাই আগামী নির্বাচনে আবারও শেখ হাসিনার নৌকা প্রতিকে ভোট দিবেন।

এ ছাড়াও বেগম খালেদা জিয়ার আদালতে দেওয়া বক্তব্য প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, আপনি কাকে ক্ষমা করে দিয়েছেন ? আপনার কাছে কে ক্ষমা চেয়েছেন ? শেখ হাসিনা কখনোই কারো কাছে মাথা নত করেন নাই।
১৫ আগস্টে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার ঘটনা এবং একুশে আগস্টের গ্রেনেড হামলার নেপথ্যে কারা ছিল বাংলার মানুষ তা জানে।

তিনি আরো বলেন, জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় থেকে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের পুরুস্কৃত করে বিদেশে পাঠিয়েছেন। ওইসব খুনিদের ক্ষমা করা যায় না।

এদিন সকালে মেলান্দহ উপজেলার হাজরাবাড়ী উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এসে নামেন সেতুমন্ত্রী। ওই মাঠে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত এই পথ সভায় তিনি বক্তব্য রাখেন। সভায় আরও বক্তব্য রাখেন বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম এমপি এবং জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট মুহাম্মদ বাকী বিল্লাহ।
এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ইসলামপুরের এমপি ফরিদুল হক খান দুলাল, জামালপুরের জেলা প্রশাসক আহমেদ কবির, জেলা পুলিশ সুপার দেলোয়ার হোসেন পিপিএম, জামালপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফারুক আহম্মেদ চৌধুরী, সাবেক এমপি ডা. মুরাদ হাসান, শাহজাহান আলী মন্ডল প্রমুখ।