বিয়ের সাজে কনেকে সুন্দর দেখার যে বিষয়গুলো

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৮:৫৭ পূর্বাহ্ণ, মার্চ ২১, ২০১৮ | আপডেট: ৯:০২:পূর্বাহ্ণ, মার্চ ২১, ২০১৮
মানুষের জীবনে গুরুত্বপূর্ণ বিয়ের দিনটি। বর-কনে দু’জনেরই চাওয়া- এই দিনটিতে সুন্দর লাগুক নিজেকে। বিশেষ করে কনের। সব নারীই চান এই দিনটিতে তাকে যেন সবচেয়ে সুন্দর দেখায়। এর জন্য বেশ আগে থেকেই চলে প্রস্তুতি। প্রথমেই আসা যাক বিয়ের শাড়িতে। বিয়ের শাড়িতে কিংবা পোশাক সম্ভারে লাল, সোনালি, কমলা, গোলাপি- এই ধাঁচের রঙগুলোর উপস্থিতি দেখা যায় বেশি। লাল, খয়েরি শ্রেণির রঙগুলো কনের শাড়িতে আধিপত্য বিস্তার করে আছে বহুকাল ধরেই। সেই সঙ্গে ধীরে ধীরে যোগ হয়েছে কমলা, গোলাপি ও ম্যাজেন্টা। তবে ট্র্যাডিশনাল কনেসাজ বাদ দিয়ে কিছুটা ভিন্ন আবহে নিজেকে সাজিয়ে তোলার প্রবণতা দেখা
বর্তমানে কনের সাজ পার্লারেই করা হয়। কিন্তু যারা পার্লারে যেতে চান না বা যাওয়া পছন্দ করেন না অথবা অর্থনৈতিক দিকটা চিন্তা করে থাকেন, তারা বাড়িতেই কনে সাজতে পারেন। কিন্তু কেমন মেকআপে, কেমন হেয়ার স্টাইলে কনের রূপ খুলবে তা বুঝে উঠতে পারেন না। তাই এ বিষয়ে সঠিক কিছু পরামর্শ দেয়া হলো যা অনুসরণ করে সহজেই কনের সাজে হয়ে উঠতে পারেন অপরূপা, আকর্ষণীয়া, তিলোত্তমা। প্রধানত প্রত্যেক কনের চেহারা, উচ্চতা, রঙের সঙ্গে মানানসই মেকআপ তো বটেই, হাল ফ্যাশনের মেকআপ বিষয়ে জানা প্রয়োজন। নতুন বউ সাজের ছবি এর ছবির ফলাফল

 বিয়ের কনেদের জন্য কিছু টিপস

বিয়ের সিজন আসছে, আর তাই আজ কথা বলব বিয়ের দিনের খুব সাধারণ কিছু বিষয় নিয়ে! The lion king ফিল্মে একটা কথা ছিল- ‘shit happens! & there’s nothing you can do about it!!!’ ওকে, আমি বলব, কথাটা ভুল! প্রস্তুতি থাকলে যেকোনো ধরনের ছোটখাটো ঝামেলা থেকে দূরে থাকা যায়।
আর তাই আপনার বিশেষ দিনটির জন্য জানিয়ে দিচ্ছি কিছু টিপস অ্যান্ড ট্রিকস, যা কয়েকদিন পর যারা কনে সাজবেন তারা তো মনে রাখবেনই, যাদের কাছের কারো বিয়ে হচ্ছে অথবা এখনও বিয়ে করেননি, তারাও ভবিষ্যৎ রেফারেন্সের জন্য মনে রাখতে পারেন-নতুন বউ সাজের ছবি এর ছবির ফলাফল
(১) প্লিজ, প্লিজ… কম্ফরটেবল জুতা পরুন। বিয়ের দিন শুধু সুন্দর দেখানোর জন্য যদি আপনি নরমালি পরে অভ্যস্ত না এমন কিছু পরেন , তবে ফলাফল আপনার বিয়ের ছবিতে দেখতে পারবেন! নতুন জুতা কিনলে বিয়ের ৩-৪ দিন আগে থেকে পায়ে দিয়ে দিয়ে একটু break in করে নেবেন। অনেক আরামদায়ক হবে, বিশেষ দিনটা উপভোগ করতে পারবেন।
(২) নিজের পার্সে, অথবা কাছের কারো পার্সে এই জিনিসগুলো অবশ্যই রাখবেন- টিস্যু, সেফটিপিন, ব্লটিং পেপার, ফেসপাউডার, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, স্পিয়ারমিনট (যদি মুখ তেঁতো লাগতে শুরু করে তো কাজে দেবে), অ্যাসপিরিন (এত শব্দ, হইহুল্লায় মাথা ধরতেই পারে!)
(৩) ব্রাইড’স মেইডের জন্য- বিয়ের দিন নিশ্চয়ই আপনার বোন, কাজিন অথবা বান্ধবীরা আপনাকে হেল্প করবে? ব্রাইড’স মেইডের কাজ শুধু ষ্টেজের শোভা বাড়ানো নয়! এমন বিশ্বস্ত কাউকে কাছে রাখুন, যে আপনার ভালো মন্দের দিকে খেয়াল রাখবে। পানি এনে দেয়া থেকে কুঁচকে যাওয়া ওড়না ঠিক করে দেয়া, সব কাজে যথাসাধ্য সাহায্য করবে। এমন কাউকে কাছে থাকতে অনুরোধ করলে অনেক অযথা ঝামেলা থেকে মুক্তি পাবেন।
(৪) যেকোনো মুল্যে নিশ্চিত করুন যে, সব ফাংশানে আপনি ওয়াটার প্রুফ আই মেকআপ ব্যবহার করছেন। ( যদি আবেগঘন মুহূর্তে বিপদে পড়তে না চান) যারা মফস্বলের তারা যে পার্লার থেকেই সাজেন না কেন, কোন ভাবেই ওয়াটারপ্রুফ মেকআপ বাদ দেবেন না।নতুন বউ সাজের ছবি এর ছবির ফলাফল
(৫) ফেসিয়াল স্প্রে বা মিস্ট রাখতে পারেন। এবার যা গরম! এসির ভিতরেও ভিডিও আর ফটোগ্রাফির চড়া লাইটে মেকআপ গলা শুরু করতে পারে। মিস্ট আপনার মেকআপ রাখবে ফ্রেস, সারাদিন ধরে।
(৬) একজন ‘পয়েন্ট ইট পারসন’ রাখতে পারেন। খেয়াল করেছেন, বিয়ের দিন কনের মেকআপ বা পোশাক একটু এদিক ওদিক হয়ে গেলে কিছু মানুষ মুখ টিপে হাসা শুরু করে? আগে থেকে একজনকে বলে রাখবেন আপনার পোশাকের দিকে কড়া নজর রাখতে। স্পেশালই যখন কনে উঠে হাঁটাহাঁটি করবেন বা একজায়গা থেকে আরেক জায়গায় যাবেন। আপনার বিয়ের দিন মানুষকে হাসার সুযোগ দেবেন না!
(৭) খবরদার! বিয়ের ২-৩ দিন আগে ফেসিয়াল করাতে যাবেন না! এই বিশাল ভুলটা যারা একেবারেই স্কিনকেয়ার করেন না তারা করে। বিয়ের ১ দিন আগে ফেসিয়াল করলে আপনি রুপকথার সুন্দরী হয়ে যাবেন না! বরং হঠাৎ অনভ্যস্ত ত্বকে এত ঘষাঘষি আর প্রোডাক্ট ইউজ করায় যে র‍্যাস আর ব্রণ হবে তা কীভাবে ঢাকবেন তাই নিয়েই চিন্তা করতে হবে সারাদিন।
(৮) সব ধরনের ফেসিয়াল, ওয়াক্সিং ম্যানিকিওর, পেডিকিওর ১ সপ্তাহ আগে সেরে ফেলুন। এতে কোন রিঅ্যাকশন হলে ঠিক করে ফেলার টাইম পাবেন। বিয়ের ১ দিন আগে সুন্দরী হতে গিয়ে র‍্যাসে ভরা হাত, পা মুখ নিয়ে বিয়ের পিঁড়িতে বসতে দেখেছি পরিচিত অনেককে।
(৯) জানি অনেক মেয়েই এটা করতে পারবেন না, তবুও, যদি চান বিয়ের দিন নিজেকে পারফেক্ট করতে, তবে খুব ভালো ভাবে জানুন, বিয়ের ভেন্যুতে লাইটিং, ফটোগ্রাফারের লাইটিং কেমন, বিয়ের দিনের আবহাওয়া কেমন হতে পারে ,ছবি কখন তোলা হবে, দিনে না রাতে? ফটোগ্রাফারের সাথে ভালোভাবে কথা বলুন। সব তথ্য আবার আপনার মেকআপ আর্টিস্টকে জানান। অভিজ্ঞ মেকআপ আর্টিস্ট আপনার লাইটিং, কস্টিউম সব কিছু মাথায় রেখে মেকআপ করলে একদম পারফেক্ট লাগবে আপনাকে বিশেষ দিনটিতে।নতুন বউ সাজের ছবি এর ছবির ফলাফল
(১০) অবশ্যই, অবশ্যই, মেকআপের আগে প্রাইমার ব্যবহার করবেন। প্রাইমার ইউজ না করে বিয়ের দিন মেকআপ টিকিয়ে রাখতে গিয়ে প্যানকেকের আস্তর দিয়ে পরদিন মুখে একগাদা ব্রণ তুলে ফেলতেও দেখেছি অনেককে। নিশ্চয়ই চান না, বিয়ের পরদিন মানুষ আপনার ন্যাচারাল লুক দেখে ভয় পেয়ে যাক?
(১১) চেষ্টা করুন বিয়ের দিনের আগেই সময় করে মেকআপ আর্টিস্টের সাথে একটু কথা বলতে। পারলে আপনার ড্রেস আর কী ধরনের লুক চাচ্ছেন তা বুঝিয়ে বলতে না পারলে নেট থেকে ছবি ডাউনলোড করে নিয়ে যান। একত্রে আপনার লুক প্ল্যান করুন। বিয়ের দিন হঠাৎ করে যাবেন আর সে আপনি যেমনি হন না কেন আপনার স্বপ্নের মত লুক দিয়ে দেবে! এমনটা সব সময় হয় না। তাই বাংলাদেশের বেস্ট মেকআপ আর্টিস্টের কাছ থেকে একগাদা টাকা খরচ করে মেকআপ নিয়েও কেউ স্যাটিসফায়েড হয় না। যেহেতু আপনার মেকআপ আর্টিস্ট ‘মাইন্ড রিডার’ নয়, সেহেতু যত ভালোভাবে পসিবল তাকে আপনার নিড বুঝিয়ে বলুন!
(১২) ন্যুড মেকআপ না করাটাই বেটার, আমাদের ট্রেডিশনাল আউটফিটের সাথে ন্যুড মেকআপ তেমন যায় না। একদম ন্যুড লিপস্টিক ব্যবহার করলে আপনাকে প্রাণহীন আর নির্জীব লাগবে। মভ বা ডাস্টি রোজ শেড বেছে নিতে পারেন। লুক বেশি চড়াও হবে না আবার সাদাটেও লাগবে না।
(১৩) বিয়ে বলে পানি, খাবার না খেয়ে ঠায় বসে থাকবেন না যেন! প্রতি ঘণ্টায় এক গ্লাস পানি খান। এতে শরীর ঠাণ্ডা থাকবে আর অস্বস্তি কম হবে।
(১৪) বেশি চিন্তা, দুশ্চিন্তা কোনটাই করবেন না। যদি প্যানিক লাগেও তবুও সব টেনশন মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলে নরমাল ভাবে শ্বাস নেবেন।
(১৫) সবশেষে মনে রাখুন, এই দিনটা আপনার জন্য! পুরো ব্যাপারটা উপভোগ করুন। সবার সাথে কথা বলুন, হাসুন আর খুশি থাকুন। সারা জীবনের স্মৃতিটাও হবে আনন্দের!
নতুন বউ সাজের ছবি এর ছবির ফলাফল

বিয়েতে কনেকে সবচেয়ে সুন্দর দেখানোর উপায়

 ১। মেকআপে ন্যাচারাল লুক

পারফেক্ট বিয়ের সাজের মূলমন্ত্র হলো, একেবারেই ন্যাচারাল লুক মনে হয় এমন একটি সাজ বেছে নেয়া। কেননা ঐতিহ্যগত ভাবেই বাংলাদেশের কনেরা বেশ জমকালো শাড়ী ও গহনা পরে থাকেন।
তাই সাজটাও যদি অতিরিক্ত জমকালো হয় তাহলে পুরোই জবরজং লাগতে পারে। তাই বিউটিশিয়ানকে বলুন যাতে ন্যাচারাল মনে হয় এমন একটি সাজে সাজিয়ে দিতে। শুধু মুখই নয় গলা, হাত, পা সমানভাবে সাজিয়ে দিতে বলুন। নয়তো মুখের ত্বকের তুলনার গলা, হাত, পা বেমানান দেখাবে।

২। মেকাপের পর কয়েকটি ছবি তুলে দেখুন

মেকআপ করার পর বিয়ের সাজেই কয়েকটি ছবি তুলে ফেলুন। ছবিতে দেখুন কোন অংশটি খারাপ দেখাচ্ছে, মেক আপ সব জায়গায় ঠিক মত বসেছে কিনা, কোন অংশ বেশি সাদা মনে হচ্ছে কিনা। সেক্ষেত্রে শুধরে নেবার সময় থাকবে। তাই হাতে যথেষ্ট সময় নিয়ে পার্লারে সাজতে যাবেন।

৩। বিয়ের আগে ত্বকের যত্ন

বিয়ের সপ্তাহ খানেক আগেই ত্বকের বিশেষ যত্ন নেয়া শুরু করুন। হাত পায়ের ওয়াক্সিং, ফেসিয়াল, চুলের ট্রিটমেন্ট আগেই করে ফেলুন। নয়তো বিয়ের আগে একসাথে সব কাজ করতে গেলে এগুলো আপনার গোটা সাজকেই মাটি করে দিতে পারে।বিয়ের ঠিক এক বা দু দিন আগে ভ্রু প্লাক করুন। বিয়ের দিন সাজার সময় ভ্রু প্লাক করতে গেলে সেখানে দ্রুত মেকআপ করার সময় ভ্রুর জায়গাটিতে যন্ত্রণা, চুলকানি, লাল হয়ে যাবার মত সমস্যা হতে পারে। যা আপনার সুন্দর লুককে নষ্ট করে দেবার জন্যে যথেষ্ট।নতুন বউ সাজের ছবি এর ছবির ফলাফল

৪। কনট্যাক্ট লেন্স পরে নিন মেকআপের আগেই

আপনি যদি চোখের রঙ পরিবর্তনের জন্যে অন্য কনট্যাক্ট লেন্স পরতে চান, তাহলে তা মেকআপ করার আগেই পরে ফেলুন। কেননা, কনট্যাক্ট লেন্স পরার সময় চোখ থেকে কয়েক ফোঁটা পানি পড়তে পারে, যা আপনার চোখের মেকআপ এর ক্ষতি করতে পারে।

৫। পোষাক ও গহনা নির্বাচনে সচেতন থাকুন

পোষাকের ফেব্রিক, রঙ ও গহনা নির্বাচনে সচেতন থাকুন। অন্য কাউকে এই রঙ বা ধরনের পোষাক ভালো লেগেছে বলেই যে আপনাকেও ভালো লাগবে এমন কোন কথা নেই। তাই চেষ্টা করুন আপনাকে মানায় এমন ফেব্রিকের ও রঙের পোষাক ও গহনা পরতে।

৬। তৈলাক্ত খাবার ও মানসিক চাপ থেকে দূরে থাকুন

আপনি নিশ্চয়ই চাইবেন না যে, বিয়ের দিন আপনার মুখে ব্রণ বা র‍্যাশ থাকুক। তাই নিয়মিত ত্বকের যত্ন নেয়ার পাশাপাশি ফাস্টফুড, কোল্ড ড্রিঙ্কস, ভাজাভুজি ও মানসিক চাপ থেকে দূরে থাকুন। প্রচুর ফল ও সবজি খান ও মেডিটেশন করুন। বিয়ের অনুষ্ঠানের আগের রাতে পর্যাপ্ত ঘুমাবার চেষ্টা করুন। এতে আপনার ত্বকে ব্রণ বা অন্য কোন সমস্যা হবার সম্ভাবনা কমে যাবে এবং মেকআপ ত্বকে খুব সুন্দরভাবে বসবে।নতুন বউ সাজের ছবি এর ছবির ফলাফল
  • তথ্য ও সূত্র : ইন্টারনেট