সোহাগ অটোরাইস মিলের নিম্মমানের চাল ভারতের উন্নতমানের নুরজাহান ব্রান্ডের বস্তায় বাজারজাত

প্রকাশিত: ৯:১৫ অপরাহ্ণ, মার্চ ৭, ২০১৮ | আপডেট: ৯:১৫:অপরাহ্ণ, মার্চ ৭, ২০১৮
সোহাগ অটোরাইস মিলের নিম্মমানের চাল ভারতের উন্নতমানের নুরজাহান ব্রান্ডের বস্তায় বাজারজাত

মাদারীপুরের রাজৈর উপজেলার কামালদি ব্রিজের পচ্চিম পাশ এলাকায় মেসার্স সোহাগ অটোরাইস মিলের নিম্নমানের চাল ভারতের উন্নতমানের নুরজাহান ব্রান্ডসহ কয়েকটি নামীও ব্রান্ডের বস্তায় চাল ভরে বিক্রির মাধ্যমে প্রতারণার করে আসছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, জেলার কর্মরত সাংবাদিকগন মেসার্স সোহাগ অটোরাইস মিল মালিকের ছেলে স¤্রাট ফকিরের কাছ থেকে অনুমতি নিয়ে অনুসন্ধান করতে গেলে দেখতে পাওয়া যায়, মিলের মধ্যে বিভিন্ন ব্রান্ডের বস্তা ভরা চাল রয়েছে। নিউজের জন্য ফুটেজ নিতে গেলে মিলের ম্যানেজার নিখিল ভক্ত কর্মরত সাংবাদিকদের বাধা প্রদান ও খারাপ আচরন করে। এক পর্যায় মিল মালিকের ছেলে সাংবাদিকদের কাছে ভুল স্বীকার করে। তবে সোহাগ অটোরাইস মিলের মধ্যে ভারতের উন্নতমানের নুরজাহান ব্রান্ড, দেশীয় এরফান ব্রান্ডের জোরা কবুতর ও ইফাদসহ দেশ/বিদেশের বেশ কয়েকটি নামীয়ও ব্রান্ডের নাম ব্যবহার করে নিম্মমানের চাল ভরে বাজারজাত করে আসছে।

সরেজমিনে আরও জানা যায়, কামালদী ব্রিজের পচ্চিম পাশ দিয়ে সুতারকান্দী গ্রামে যাতায়েতের মুল রাস্তার উপরই গড়ে উঠেছে এই সোহাগ অটোরাইস মিল। তবে অটোরাইস মিলের মালিক হালিম ফকির কৌশলে মিলের উত্তর পাশ দিয়ে যাতায়েতের রাস্তা দেন।

সোহাগ অটোরাইস মিলের মালিক আঃ হালিম ফকিরকে উপস্থিত পাওয়া না গেলে মুঠো ফোনে জানতে চাইলে উক্ত বিষয় নিয়ে সঠিক উত্তর না দিয়ে পরে কথা বলবো বলে ফোন রেখে দেয়।

এব্যাপারে মাদারীপুর জেলা প্রশাসক মোঃ ওয়াহিদুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, মেসার্স সোহাগ অটোরাইস মিলের নাম ছারা অন্য কোন ব্রান্ডের বস্তায় চাল ভরে বাজারজাত করা অনৈতিক ও ভোক্তা আইন অনুযাই দন্ডনীয় অপরাধ। সোহাগ অটোরাইস মিলে অন্য কোন ব্রান্ডের বস্তা পাওয়া গেলে, আইনগত ব্যাবস্থা নেওয়া হবে।