বাকেরগঞ্জে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ

জি এম নিউজ জি এম নিউজ

বাংলার প্রতিচ্ছবি

প্রকাশিত: ৯:০৪ অপরাহ্ণ, মার্চ ৭, ২০১৮ | আপডেট: ৯:০৪:অপরাহ্ণ, মার্চ ৭, ২০১৮
বাকেরগঞ্জে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণ

বাকেরগঞ্জ প্রতিনিধি
বাকেরগঞ্জের পাদ্রীশিবপুর ইউনিয়নে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ৫ম শ্রেনীর ছাত্রীকে লাগাতারা ৬ মাস ধরে ধর্ষণ করার আসছে। ধষর্ণের বিষয়টি এলাকার সাবেক ইউপি সদস্য মো. এনামুলকে জানালে এনামুল শালিস মিমাংসার কথা বলে এক লক্ষ পঞ্চশ হাজার টাকা বিনিময় ধষর্ণের বিষয়টি ধামা চাপা দেয় বলে অভিযোগ উঠেছে। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, পাদ্রীশিবপুর বড় পুইয়াটা গ্রামের মৃত: আনছার হাওলাদারের পুত্র মো. ইব্রাহিম একই বাড়ির আপন চাচাতো বোন মো. আব্দুল খালেক হাওলাদারের মেয়ে ময়না আক্তার (ছদ্মনাম) কে দীর্ঘ ৬ মাস ধরে বিয়ের প্রলোভনে ময়নার সাথে শারীরিক সম্পর্ক করে আসে। ইব্রাহিম ময়নার সাথে শরীরিক সম্পর্কের ঘটনা কিছুদিন পূর্বে ময়নার বড় ভাইয়ের বৌ হাতে নাতে ধরে নিজেদের মধ্যে ধামা-চাপা দেয়। ইব্রাহিম ও ময়নার একই বাড়ি হওয়ার সুবাদে ময়নার সাথে ইব্রাহিমের শারীরিক সম্পর্ক আরও গভীর হতে থাকে। গত ৬ মার্চ (মঙ্গলবার) ময়নার আতœীয় মারা গেলে ঘরের সবাই সেখানে চলে যায়। এসময় বাড়িতে কেউ না থাকায় আনুমানিক রাত ৮ টার দিকে ময়নার ঘরে ঢুকে জোড় করে ধষর্ণ করে ইব্রাহিম চলে যায়। পরে গভীর রাতে সবাই ঘুমাতে গেলে ওৎ পেতে থাকা লম্পট ইব্রাহিম আবার ময়না ঘরে প্রবেশ করে জোড়-জোবস্তি করার সময় ময়নার মা টের পেয়ে ডাক-চিৎকার দিলে বাড়ির সবাই ছুটে এসে ইব্রাহিম ও ময়নাকে আপত্তিকর অবস্থায় হাতে-নাতে ধরে। এবিষয় মিমাংসাকারী এনামুলের সাথে মোবাইলে যোগাযোগের চেষ্ট করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি। এবিষয় বাকেরগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ মো. মাসুদুজ্জামান জানায়, এধরনের অভিযোগ এখন পর্যন্ত আসেনি। এখন জানলাম আমি বিষয়টি দেখছি।