`ডোনাল্ড ট্রাম্প বাদে বিশ্বের সব দেশ জলবায়ু সুরক্ষায় কাজ করছে’-ড. আইনুন নিশাত

জলবায়ু অর্থায়ন ও টেকসই উন্নয়ন

প্রকাশিত: ৩:৪৪ অপরাহ্ণ, মার্চ ৭, ২০১৮ | আপডেট: ৭:১৩:অপরাহ্ণ, মার্চ ৭, ২০১৮
`ডোনাল্ড ট্রাম্প বাদে বিশ্বের সব দেশ জলবায়ু সুরক্ষায় কাজ করছে’-ড. আইনুন নিশাত

 সারা বিশ্বের জলবায়ু দ্রুত পরিবর্তিত হচ্ছে এবং ঋতু পরিবর্তনের ফলে নানারকম প্রাকৃতিক দুর্যোগের জটিল পরিস্থিতির উদ্ভব হচ্ছে। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বিশ্বের অন্যান্য আরো কিছু দেশের মতো বাংলাদেশও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে৷ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ছাড়া বিশ্বের সব দেশ জলবায়ু সুরক্ষায় কাজ করছে।

মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক দরবার হলে অনুষ্ঠিত `জলবায়ু অর্থায়ন ও টেকসই উন্নয়ন, প্রয়োজন অবাধ তথ্য প্রবাহ ও জন অংশগ্রহণ’ বিষয়ক এক সেমিনারে বিশেষজ্ঞ অতিথির বক্তৃতায়  ব্রাক বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর ইমেরিটাস ড. আইনুন নিশাত  এ কথা বলেন।

ইউকে এইড, ব্রিটিশ কাউন্সিলের অর্থায়ন ও সহযোগিতায় এই সেমিনারের আয়োজন করে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা কোস্ট ট্রাস্ট।

আরো উপস্থিত ছিলেন পটুয়াখালী জেলা প্রশাসক ড. মোঃ মাছুমুর রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ মাফুজুর রহমান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ হেমায়েত উদ্দিন, ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির সেন্টার ফর ক্লাইমেট চেঞ্জ এন্ড এনভারমেন্টাল রিসার্চ’র সমন্নয়ক রউফা খানুম এবং বিভিন্ন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বসহ সুশিল সমাজের প্রতিনিধিরা।

জলবায়ু বিশেষজ্ঞ আইনুন নিশাত  আরো বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের জন্য উন্নত দেশগুলো দায়ী, আমরা ক্ষয়-ক্ষতির শিকার। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে পৃথিবীতে উষ্ণতা যেমন বাড়বে তেমনি হিমবাহ গলে সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বাড়বে। জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবেলায় বর্তমান সরকার  বিভিন্ন পরিকল্পনা গ্রহন করেছে। বাংলাদেশ সরকারের পাশাপশি বর্হিবিশ্ব  জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবেলায় একসাথে কাজ করছে। জলবায়ু বিষয়ক প্যারিস চুক্তি থেকে সরে আসার ঘোষণা দিয়েছেন, যা ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য পরিবেশগত বিপর্যয়ের কারণ হয়ে দাঁড়াবে।

এসময় বাংলাদেশ সেন্টার ফর অ্যাডভান্সস্টাডিজের নির্বাহী পরিচালক ড. আতিক রহমান বলেন, দেশের উপকূলীয় এলাকার কৃষি জমির ওপর লবণাক্ততা ক্রমশই বাড়ছে। লবণের বিরুপ প্রভাব পড়ছে কৃষি ব্যবস্থাপনা ও শস্য বিন্যাসে। জলবায়ু পরিবর্তনের কারনে দেশে চিকা নামে একটি ভাইরাস মানুষকে আক্রান্ত করতে পারে। এবং তা খুব শীঘ্রই। কারন পার্শ্ববর্তী ভারতের মানুষ ইতিমধ্যেএই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে দেশে ঘূর্ণিঝড়, প্রাকৃতিক দুর্যোগ বাড়বে। এই র্দূযোগের কারনে দেশের দারিদ্র জনগোষ্ঠি বেশি ক্ষতিগ্রস্থ্য হবে। হেক্টরের পর হেক্টর জমি অনাবাদিতে পরিনত হবে।সে জন্য কৃষিখাতে বেশি নজর দিতে হবে।দেশে সবুজ বেষ্টনী এবং কৃষিখাত ধংসের কবল থেকে রক্ষা করতে পারলে জলবায়ু পরিবর্তন রোধ করা সম্ভব।